ঢাকামঙ্গলবার , ১৯ জানুয়ারি ২০২১

টিসিবির পণ্য বিক্রিতে অনিয়মের অভিযোগ ডিলারের বিরুদ্ধে

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
জানুয়ারি ১৯, ২০২১ ১০:৪০ অপরাহ্ণ
Link Copied!

জি কে ইউসুফ :  নিজের চাহিদা মত টিসিবির পন্য কিনতে পারছেন না ক্রেতারা। তৈল বা ডাল কিনতে চাইলেও নিতে  পারছেন না,  সাথে পেঁয়াজ ও নিতে হবে।
ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) ট্রাকে পণ্য কিনতে গেলে ডিলাররা  এমনই শর্ত দিচ্ছেন।

নির্দিষ্ট পরিমাণ পেঁয়াজ না নিলে তারা অন্য কোনও পণ্য বিক্রি করছেন না। তাই সরকারের দেয়া ন্যায্যমুল্যের পন্য ক্রয়ের  অধিকার থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন ক্রেতা সাধারনেরা।
ডিলারদের এমন শর্তে ক্ষুব্ধ  হবিগঞ্জের সাধারন মানুষেরা, এমন অভিযোগ ছিল দীর্ঘদিনের।

এমনি অভিযোগের প্রেক্ষিতে মঙ্গলবার (১৯ জানুুয়ারি) বিকাল ৩টায় হবিগঞ্জ শহরের শায়েস্তানগর কবরস্থানের সামনে দেখা যায় এমন দৃশ্য।

চৌধুরী বাজার এলাকার সততা এন্টার প্রাইজ নামের ভ্রাম্যমান দোকান থেকে বিক্রি হচ্ছে এসব পন্য ।
সেখানে গিয়ে দেখা যাচ্ছে নিজের চাহিদা অনুযায়ী পন্য কিনতে না পেরে ফিরে যাচ্ছেন অনেক ক্রেতা। এতে ক্ষোভ প্রকাশ করছেন তারা।

বিদেশী পেঁয়াজের প্রতি মানুষের আগ্ৰহ কম থাকলেও কেউ কেউ আবার তৈল , চিনি, ডাল কিনতে গিয়ে বাধ্য হয়ে কিনতে হচ্ছে  পিঁয়াজ।

 

 

এদিকে এইসব অনিয়মের ব্যাপারে  “দৈনিক আমার হবিগঞ্জ” পত্রিকার সাংবাদিকের  বিভিন্ন প্রশ্নের সম্মুখিন হয় বিক্রেতারা  । ফলে চাহিদা অনুযায়ী পন্য  দিতে বাধ্য হয় সততা এন্টার প্রাইজের পরিবেশক।

দেখা গেছে টিসিবির ট্রাকে বিদেশি পেঁয়াজের মূল্য প্রতি কেজি ১৫ টাকা আর বাজারের দেশি পেয়াজের দাম প্রতি কেজি  ৩৫ টাকা।  যাহা দেশি পেঁয়াজের তুলনায় টিসিবির ট্রাকের পেঁয়াজের দামের  অর্ধেক। তার পর ও দেশি পিঁয়াজের প্রতি আগ্ৰহ ক্রেতাদের।

এদিকে চাহিদা অনুযায়ী পণ্য দেয়া হচ্ছেনা এ নিয়ে সততা এন্টার প্রাইজের মালিক ( পরিবেশকের ) কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান  , বিদেশি পেঁয়াজের প্রতি মানুষের আগ্ৰহ কম থাকায় কেউ পেঁয়াজ নিচ্ছেন না। আমাদের কে প্রতি চালানে প্রায় তিন থেকে আড়াই টন পেয়াজ দেয়া হয়, দিন শেষে পেয়াজ গুলো থাকলে নষ্ট হয়ে যায় আর তাতে আমাদের অনেক লোকসান গুনতে হয়, তাছাড়া  আমরা পেয়াঁজ ছাড়া বিক্রি করতে পারব না।

এদিকে ক্রেতাদের চাহিদা অনুযায়ী পন্য বিক্রয় নিয়ে জেলা ব্যবসা ও বানিজ্য শাখার সহকারী কমিশনার আনিছুর রহমান খানের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি  বলেন,
ক্রেতাদের চাহিদা অনুযায়ী পন্য দিতে  পরিবেশকরা  বাধ্য, একজন ক্রেতা চাইলে যেকোন পন্য নিতে পারবে,  আর আমি বিষয়টি দেখছি।

Developed By The IT-Zone