ঢাকামঙ্গলবার , ১৬ ফেব্রুয়ারি ২০২১
আজকের সর্বশেষ সবখবর

জেলা কৃষকলীগ সভাপতি হুমায়ুন কবীর রেজার বিরুদ্ধে মামলা : সরকারের সাড়ে তিন কোটি টাকা আত্নসাতের অভিযোগ

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
ফেব্রুয়ারি ১৬, ২০২১ ৯:৫৪ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

রায়হান উদ্দিন সুমন : বানিয়াচং উপজেলার ১১নং মক্রমপুর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান,জেলা কৃষকলীগের সভাপতি ও কেন্দ্রীয় কৃষকলীগের সদস্য হুমায়ুন কবীর রেজা’র বিরুদ্ধে সরকারের কোটি কোটি টাকা আত্নসাতের অভিযোগ বানিয়াচং থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। গত রবিবার (১৪ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যা সাড়ে সাতটায় বানিয়াচং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার বরাবরে এই মামলাটি দায়ের করেন খাগাউড়া ইউনিয়ন ভূমি অফিসের ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তা মো: দিদার হোসেন। হুমায়ুন কবীর রেজা ১১নং মক্রমপুর ইউনিয়নের মক্রমপু গ্রামের আব্দুল হাসিম মিয়ার পুত্র।

 

 

ছবি : মামলার আসামি জেলা কৃষকলীগের সভাপতি হুমায়ুন কবীর রেজার ফাইল ছবি

 

 

মামলা সুত্রে জানা যায়,বিগত ১৯৮৮-৮৯ ইং সনে বানিয়াচং উপজেলাধীন ২০০নং জে এল স্থিত সুলতানপুর মৌজার ১নং খাস খতিয়ানের ১নং দাগের ১৪.৮৮ একর সরকারি পতিত ভূমি ১৭জন ভূমিহীনদের নামে সরকার হতে বন্দোবস্ত প্রদান করা হয়। কিন্তু প্রতারক সাবেক চেয়ারম্যান ও জেলা কৃষকলীগ নেতা হুমায়ুন কবীর রেজা ভূমিহীনদের প্রাপ্ত ভূমি সুকৌশলে বেদখল করে নিজে দখলে নিয়ে যায়। উক্ত ভূমির সামিলে তপসীল বর্ণিত সাকুল্য সরকারি খাস ভূমি বেআইনি ভাবে সরকার কর্তৃক কোনো রকম অনুমতি ব্যতিরেকে আসামী হুমায়ুন কবীর রেজা দখল নেয়। ইতিমধ্যে বিগত ০৫/০১/২০২০ ও ১২/০১/২০২০ তারিখে ভূমিহীনগণ লিখিত আকারে বানিয়াচংয়ের সরকারি কমিশনার (ভূমি) কে তাদের দখলে নেই বলে তারা জানান। আসামি হুমায়ুন কবীর রেজা সেখানে এককভাবে পুকুর,মসজিদ,মাদ্রাসা ও ধানি জমি করে দখল করতে থাকেন। সুত্র আরো জানায়,বিগত ২৫/০১/২০২১ খ্রি: পর্যন্ত বিভিন্ন তারিখ ও সময়ে হুমায়ুন কবীর রেজা সরকার কর্তৃক বনায়নের আওতায় লাগানো ৫০টি বিভিন্ন প্রজাতির গাছ,মূল্য আনুমানিক ২ লাখ টাকার গাছ কেটে বিক্রি করে সরকারি সম্পত্তি আতœসাত করে এবং উক্ত তপসীল বর্ণিত সরকারি উচু ভূমি ৫ ফুট পরিমান গর্ত খনন করে ৫টাকা হিসেবে ১ কোটি ৩০ লাখ ৬৮ হাজার টাকার মাটি অবৈধভাবে খনন করে বিক্রি করে সরকারি সম্পত্তি আত্নসাত করে হুমায়ুন।

 

 

ছবি : সরকারি জায়গায় মসজিদ,মাদ্রাসা,পুকুর করে দখল করে রেখেছে কৃষকলীগ নেতা হুমায়ুন কবীর রেজা

 

 

অন্যদিকে তপশীল বর্ণিত ভূমি হইতে অধিকাংশ ভূমি অবৈধভাবে পুকুর খনন করে প্রতি বছরে ২ লাখ টাকা হারে ১০ বছরে সে বছরে অদ্যবধি পর্যন্ত ৩ কোটি ৩২লাখ ৬৮হাজার টাকা ও মাছ বিক্রয়ের সরকারি টাকা আত্নসাত করেছেন কৃষকলীগ সভাপতি হুমায়ুন কবীর রেজা। আসামি রেজা সরকারের অনুমতি ছাড়া তপশীল বর্ণিত ভূমির শ্রেণি পরিবর্তন করে এবং বনায়ন ধ্বংস করেও বলে অভিযোগে উল্লেখ্য করা হয়। উক্ত অভিযোগে সাক্ষী সুত্রে প্রাপ্ত হয়ে উর্ধ্বতন কর্র্তপক্ষের নির্দেশে তপশীল ভূমিতে মামলা বাদী সরেজমিনে ঘটনার সত্যতা পেয়ে অভিযোগ সংক্রান্তে প্রতিবেদন তৈরী করেছেন।

 

সরকারি সম্পত্তি হইতে অবৈধ পন্থায় মাটি খনন,গাছ কর্তন ও পুকুর খনন করে বছরের পর বছর সরকারের বিপুল পরিমানের রাজস্ব জেলা কৃষকলীগের সভাপতি হুমায়ুন কবীর রেজা আত্নসাত করেছেন মর্মে প্রতীয়মান হয়। এসব বিষয়গুলো সরকারের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের অবহিত করে এবং তাদের নির্দেশে এই মামলা করেছেন বলে জানিয়েছেন মামলা বাদী খাগাউড়া ইউনিয়ন ভূমি অফিসের ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তা দিদার হোসেন।

 

প্রসঙ্গত, বানিয়াচং উপজেলার ১১নং মক্রমপুর ইউনিয়নের অন্তর্গত সুলতানপুর মৌজার এসএ জেএল নং-২০০ আরএস জেএল নং-২০৫, খতিয়ান নং-১ এর দাগ নং ৯১, ৯৩ ও ১৩৩ এর মোট ১৪ একর ৪৫ শতক ভূমি বিগত ১৯৮৮ সনে এলাকার ভূমিহীনদের নামে লিজ প্রদান করে বানিয়াচং উপজেলা ভূমি অফিস। কিন্তু লিজ দেয়ার পর এ ভূমিতে কোনো ধরনের স্থাপনা নির্মাণ না করে পতিত ফেলে রাখেন ভূমিহীনরা। পরে ২০১০ সালে এলাকাবাসী ও ভূমিহীনদের মধ্যে এই ভূমি নিয়ে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ হয়। এই সংঘর্ষে শফিক মেম্বার নামে এক ব্যক্তি নিহত হন। ঘটনায় আসামি করা হয় এই ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ও জেলা কৃষকলীগের সভাপতি হুমায়ুন কবীর রেজাকেও।

হত্যার ঘটনার বিষয়টি পরবর্তীতে সমাধান হলে এলাকার নিরীহ ভূমিহীনদের নানা প্রলোভন, ভয়ভীতি দেখিয়ে তাদের কাছে পুরো ভূমিসহ কাগজপত্র নিয়ে নেন জেলা কৃষকলীগ সভাপতি হুমায়ুন কবীর রেজা।

সরেজমিনে ওই ভূমিতে গিয়ে দেখা যায়,হুমায়ুন কবীর রেজার ছোট ভাই মরহুম সামায়ুন কবীরের নামে “সামায়ুন কবীর হাফিজিয়া মাদ্রাসা” নির্মাণ করেছেন। পাশাপাশি ওই মাদ্রাসার জন্য আরেকটি নতুন ভবন গড়ে তোলার জন্য কাজ শুরু করেছেন তিনি।

 

অন্যদিকে পুকুরের দক্ষিণ অংশে মাছ চাষ ও পুকুরের পাড়ে রোপন করা নানা জাতের গাছ বিক্রি করে হুমায়ুন কবীর রেজা হাতিয়ে নিয়েছে কোটি কোটি টাকা। আংশিক জায়গায় মাদ্রাসা নির্মাণ করে পুরো ১৪একর জায়গা দখল করে রেখেছন জেলা কৃষকলীগ সভাপতি হুমায়ুন কবীর রেজা। এটা নিয়ে দৈনিক “আমার হবিগঞ্জ”সহ বিভিন্ন খবরের কাগজে সংবাদ প্রকাশিত হওয়ার পর পুরো জেলা জুড়ে রসালো আলোচনার সৃষ্টি হতে থাকে। সংবাদ প্রকাশের পর হুমায়ুন কবীর রেজা নিজেকে রক্ষা করতে দৌড়ঝাঁপ শুরু করতে থাকেন বিভিন্ন জায়গায়। ঝঁড় উঠে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকেও।

 

Developed By The IT-Zone