ঢাকাশুক্রবার , ৩ জুন ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

জেলায় বেড়েছে প্রকাশ্যে ধূমপান ও তামাকজাত দ্রব্য ব্যবহারের প্রবণতা : নেই আইনের প্রয়োগ

ইমদাদুল হোসেন খান
জুন ৩, ২০২২ ৯:৩৪ অপরাহ্ণ
Link Copied!

আইনের প্রয়োগ ও জনসচেতনতামূলক কার্যক্রম না থাকায় হবিগঞ্জ জেলায় প্রকাশ্যে ধূমপান ও তামাকজাত দ্রব্য ব্যবহারের প্রবণতা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। তবে গত বৃহস্পতিবার (২জুন) তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন বাস্তবায়নে জেলা টাস্কফোর্স কমিটির সদস্য ও কর্তৃত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন বিষয়ক প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত হওয়ার খবরে আইনের প্রয়োগ ও জনসচেতনতামূলক কার্যক্রম চালু হওয়ার ব্যাপারে অধূমপায়ীরা আশাবাদী হয়ে উঠেছেন।

জানা গেছে, ধূমপান ও তামাকজাত দ্রব্য ব্যবহার (নিয়ন্ত্রণ) (সংশোধন) আইন-২০১৩ অনুযায়ী পাবলিক প্লেস ও পাবলিক পরিবহনে ধূমপান আইনত শান্তিযোগ্য অপরাধ। এক্ষেত্রে অনধিক ৩০০ টাকা জরিমানা করা যাবে। ওই আইনে পাবলিক প্লেস ও পাবলিক প্লেসের মালিক বা কর্তৃপক্ষ আইন রক্ষার্থে ব্যর্থ হলে ইহাও আইনত শাস্তিযোগ্য অপরাধ। এক্ষেত্রে অনধিক ৫০০ টাকা জরিমানা করা যাবে।

ছবি : দোকান থেকে তামাকজাত দ্রব্য নিচ্ছেন এক ক্রেতা

একই আইনে অনধিক ১৮ বৎসর বয়সের কোনো অপ্রাপ্ত বয়স্ক ব্যক্তির নিকট তামাক বা তামাকজাত দ্রব্য বিক্রয় এবং বিপণন ও বিতরণ কাজে নিয়োজিত করা আইনত শাস্তিযোগ্য অপরাধ। এক্ষেত্রে অনধিক ৫০০০ টাকা জরিমানা করা যাবে।

উল্লেখিত আইনে সকল প্রকারের তামাকজাত দ্রব্যের বিজ্ঞাপন ও প্রচারণা আইনত শাস্তিযোগ্য অপরাধ। এক্ষেত্রে জরিমানা অনধিক এক লক্ষ টাকা অনাদায়ে তিনমাস বিনাশ্রম কারাদণ্ড বা উভয় দণ্ডে দণ্ডিত করা যাবে।

অধূমপায়ীরা মনে করেন, আইন প্রয়োগের পাশাপাশি জেলাজুড়ে ব্যাপকভাবে আইনের এসব বিষয়গুলি প্রচার হওয়া দরকার। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থেকে শুরু করে হাট-বাজার, ক্ষেত-খামার, কলকারখানা সর্বত্র সাংস্কৃতিক কার্যক্রমের মাধ্যমে জনসমাগম ঘটিয়ে এসব প্রচার করা উচিৎ বলে তাদের অভিমত। নাহলে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০৪০ সালের মধ্যে তামাকমুক্ত বাংলাদেশ গড়ার যে ঘোষণা দিয়েছেন তা বাস্তবায়ন করা সম্ভব হবেনা বলেও তারা মনে করেন।

বিভিন্ন হাটবাজার ও জনবহুল স্থানে উঠতি বয়সী কিশোর-যুবক ও প্রাপ্ত বয়স্ক ব্যক্তিদের প্রকাশ্যে ধূমপান ও তামাকজাত দ্রব্য সেবন করতে দেখা যায়। মাছবাজার ও সবজির বাজারে কোন কোন বিক্রেতাদেরকে মুখে সিগারেট ফুঁকাবস্থায় পণ্য মেপে ক্রেতার হাতে তুলে দিতে দেখা যায়।

যানবাহনে অনেক চালককে ড্রাইভিং করা অবস্থায় ধূমপান করতে দেখা যায়। অনেক সময় যাত্রীদেরকেও ধূমপান করতে দেখা যায়। এমনকি কোনো কোনো চাকুরীজীবিদেরকে পর্যন্ত অফিসে বসে ধূমপান করতে দেখা যায়।

মানুষের আইন না মানার প্রবণতার কারণে বিভিন্ন সিগারেট ও জর্দা কোম্পানির প্রতিনিধিদেরকেও কৌশলে ধূমপান ও তামাকজাত দ্রব্যের বিজ্ঞাপন চালিয়ে যেতে দেখা যায়। এসব কারণে আইনের প্রয়োগ ও ব্যাপক জনসচেতনতামূলক কার্যক্রম চালুর দাবী জানাচ্ছেন অধূমপায়ী জনগোষ্ঠী।

Developed By The IT-Zone