ঢাকামঙ্গলবার , ২৩ জুন ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

ছাত্রলীগ নবীগঞ্জ উপজেলা শাখার পক্ষ থেকে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন

অনলাইন এডিটর
জুন ২৩, ২০২০ ৮:১৫ অপরাহ্ণ
Link Copied!

দিপু আহমেদ,নবীগঞ্জ প্রতিনিধি।। বাংলাদেশ ছাত্রলীগ নবীগঞ্জ উপজেলা শাখার পক্ষ থেকে আওয়ামীলীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়েছে। ২৩ জুন মঙ্গলবার বাংলাদেশের সবচেয়ে প্রাচীনতম রাজনৈতিক দল, বঙ্গবন্ধুর হাতে গড়া সংগঠন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে, নবীগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি শাহ ফয়সল তালুকদার এবং সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুর রহমান রাজু এর নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন নবীগঞ্জ উপজেলা সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুর রহমান রাজু ও সাবেক যুগ্নসাধারন সম্পাদক জাহিদুল ইসলাম রুবেল মিজান খান মিটু দেব জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সদস্য ফয়ছল আহমদ সহ উপজেলা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীবৃন্দ।

ছবিঃ ছাত্রলীগ নবীগঞ্জ উপজেলা শাখার পক্ষ থেকে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন ।

নবীগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি শাহ ফয়সাল তালুকদার এক বিবৃতিতে বলেন, ৭১ পেরিয়ে বাহাত্তরে পা-রাখল দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার সর্ববৃহৎ রাজনৈতিক সংগঠন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ। নানা চরাই উৎরাই পেরিয়ে বাংলাদেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় সংগঠন এটি। আওয়ামী লীগ মানুষকে দিয়েছে একটি স্বাধীন দেশ। যার জন্য বাঙালি লড়াই করেছে দীর্ঘ ২৩ বছর। ৫২’র ভাষা আন্দোলন, ৬৬’র ছয় দফা, ৬৯’র গণঅভ্যুত্থান, সর্বোপরি মহান ৭১’এ ৩০ লক্ষ মানুষের রক্ত এবং ২ লক্ষ মা-বোনের সম্ভ্রমের বিনিময়ে আমরা পেয়েছি স্বাধীন বাংলাদেশ। যার নেতৃত্ব দিয়েছেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ। আওয়ামী লীগ মানুষের চিন্তা-চেতনাকে লালন করে। মানুষই আওয়ামী লীগের মূল শক্তি। বঙ্গবন্ধু চেয়েছিলেন সোনার বাংলা গড়তে। ভৌগলিক মুক্তির পাশাপাশি অর্থনৈতিক মুক্তি। কিন্তু ৭৫’র ১৫ই আগস্ট ঘাতকের বুলেট ক্ষত-বিক্ষত করে দিয়েছিলো বাঙালির আশা-আকাঙ্ক্ষা। বাংলাদেশ দীর্ঘ ২১ বছর চলেছে উল্টো রথে।বাংলাদেশকে মিনি পাকিস্তান বানানোর অপচেষ্টা করা হয়েছিলো। মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে বাংলাদেশ থেকে নির্বাসিত করা হয়েছিলো। স্বাধীনতা বিরোধীদের গাড়িতে তুলে দেওয়া হয়েছিলো স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা। আর এই পরিস্থিতি থেকে বাংলাদেশের মানুষকে মুক্তি দিয়েছেন বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা। আওয়ামী লীগের হাজারো নেতাকর্মী রক্ত দিয়েছে স্বাধীনতা বিরোধী অপশক্তিদের রুখতে।বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত কর্মসূচী বাস্তবায়নে কাজ করে যাচ্ছেন জননেত্রী শেখ হাসিনা। সকল দুর্যোগে আওয়ামী লীগ সবসময় মানুষের পাশে ছিল। আওয়ামী লীগের লক্ষ-লক্ষ নেতাকর্মী ঝাঁপিয়ে পড়েছে যেকোনো মানবিক প্রয়োজনে। মৃত্যু জেনেও মানুষের পাশে দাঁড়াতে দ্বিধা বোধ করেনি আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা। বৈশ্বিক করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ বাংলাদেশের মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে। আর এ কারণে একে একে আওয়ামী লীগের জনপ্রিয় নেতারা মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ছেন।জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কাজ করছেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা। এটার নামই আওয়ামী লীগ। আওয়ামী লীগ অতীতের ন্যায় ভবিষ্যতেও বাংলাদেশের মানুষের পাশে থাকবে সর্বক্ষণ। আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর মহান এই ক্ষণে আমাদের শপথ হোক বাংলাদেশের মানুষকে রক্ষার।

Developed By The IT-Zone