ঢাকাসোমবার , ২২ মার্চ ২০২১
আজকের সর্বশেষ সবখবর

চেয়ারম্যান শেখ সামছুল হকের বিরুদ্ধে অন্যের জায়গায় মার্কেট গড়ে তোলার অভিযোগ

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
মার্চ ২২, ২০২১ ৯:০৯ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

রায়হান উদ্দিন সুমন : বানিয়াচংয়ে অন্যের জায়গা দখল করে নিজের নামে মার্কেট গড়ে তোলার অভিযোগ উঠেছে বানিয়াচং ১৩নং মন্দরি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সহসভাপতি শেখ সামছুল হকের বিরুদ্ধে। তাছাড়াও ওই জনপ্রতিনিধির বিরুদ্ধে রয়েছে সরকারের খাস ভূমি দখলের অভিযোগ।

গত রবিবার (২১মার্চ) ওই জনপ্রতিনিধির বিরুদ্ধে বানিয়চং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার বরাবারে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন ভুক্তভোগী নাছির উদ্দিন রানা নামে এক ব্যক্তি। অভিযোগের অনুলিপি সদয় অবগতির জন্য জেলা প্রশাসক হবিগগঞ্জ,সহকারি কমিশনার (ভূমি) বানিয়াচং ও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার বরাবরে প্রেরণ করা হয়েছে।

 

 

ছবি : সরকারি ও মালিকানাধীন জায়গায় নির্মাণাধীন ফিস মার্কেট । ইনসেটে চেয়ারম্যান শেখ সামছুল হক

 

 

অভিযোগ সুত্রে জানায়,শেখ সামছুল হক প্রভাবশালী দলের নেতা ও জনপ্রতিনিধি হওয়ার সুবাদে এলাকার নিরীহ মানুষদের ভয়-ভীতি দেখিয়ে মার্কেট নির্মাণের অজুহাতে তাদের জায়গা দখল করে রেখেছেন। এই ধারাবাহিকতায় মন্দরী মৌজার ৩২২নং খতিয়ানের ৪৪১৬নং দাগের জায়গার মালিক মৃত হাজী ইনছান উল্ল্যাহর নামে বৈধ কাগজপত্র থাকা সত্ত্বেও ইউপি চেয়ারম্যান প্রভাব দেখিয়ে ওই জায়গায় মাটি ফেলে রাস্তা নির্মাণ করেছেন চেয়ারম্যান সামছুল হক।

 

 

ছবি : জোর করেই মালিকানাধীন জায়গায় মাটি ফেলে রাস্তার নির্মাণ করেছেন সামছুল হক

 

 

গায়ের জোরে একই মালিকের অপর জায়গা থেকে বড় বড় গর্ত করে মাটি উত্তোলন করেছেন তিনি। তার গড়া মার্কেটের সুবিধার্থে মাটি ফেলে রাস্তা করার কারণে আশেপাশের কয়েকটি বাড়ির জনসাধারণের চলাচলের পাশাপাশি শুকনো মৌসুমে ধান শুকানোটাও কষ্টকর হয়ে পড়বে বলে জানিয়েছেন এলাকার অনেক কৃষক।

এলাকাবাসীদের সাথে কোনো ধরণের যোগাযোগ না করেই সম্পুর্ণ তার ব্যক্তিগতভাবে ওই সব দোকানপাট ও রাস্তা নির্মাণ করে যাচ্ছেন সামছুল হক। ভুক্তভোগীরা মাটি ফেলানোর সময় তাকে বাধা প্রদান করলেও তিনি সেই বাধাকে তোয়াক্কা করে প্রভাব খাটিয়ে মাটি ফেলার কাজ সমাপ্ত করেছেন।

 

ছবি : মাটি উত্তোলন করে বড়বড় গর্ত করা হযেছে। যা খুবই বিপজ্জনক

 

গত বৃহস্পতিবার সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়,রাস্তার একটু দক্ষিণ-পশ্চিম দিকে নতুন ফিস মার্কেটের জন্য ঘর নির্মাণ করে যাচ্ছে শ্রমিকরা। তার দক্ষিণ পাশেই প্রায় এক বছর আগে শেখ মার্কেট নামে বাজার সৃষ্টি করে দোকানপাট নির্মাণ করেছেন চেয়ারম্যান সামছুল হক। ওই মার্কেট নির্মাণ ও করা হয়েছে সরকারের একটি খাল দখল করে বলে নাম প্রকাশ না করার শর্তে এলাকাবাসী জানিয়েছেন। অথচ এসব নির্মাণের জন্য প্রশাসন কিংবা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কারো কোনো অনুমতি নেয়া হয়নি। এসব নিয়ে কেউ মুখ খোলে কথা বলতে চাইলে তার অনুগত লোকদের দিয়ে বিভিন্ন মামলা-হামলার ভয়-ভীতি দেখান সামছুল হক।

অন্যদিকে শেখ বাজার নামে একটি সাইনবোর্ড দিয়ে সেখানে দোকান বরাদ্দের জন্য যোগাযোগ করতে তার ই ছেলের নাম শেখ হাবিবুল হকের মোবাইল নাম্বার দিয়ে রেখেছেন তিনি। ভুক্তভোগী ওই এলাকার মৃত ইনছান উল্লাহর নাতি নাছির উদ্দিন রানা গত কয়েকদিন পূর্বে বিষয়টি বানিয়াচং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাসুদ রানাকে জানালে তিনি তাৎক্ষনিক চেয়ারম্যান শেখ সামছুল হকের সাথে কথা বলেন। একপর্যায়ে ইউএনও সরকারি জায়গায় মার্কেট নির্মাণের কোনো অনুমতি আছে কিনা জানতে চাইলে সামছুল হক কোনো সদুত্তর দিতে পারেন নি। একপর্যায়ে মালিকানা জায়গায় মাটি ফেলার বিষয়টি মালিক পক্ষকে নিয়ে বসে মিটমাট করার জন্য বলেও দেন ইউএনও মাসুদ রানা। কিন্তু অদ্যবধি পর্যন্ত সেই মালিকানাধীন জায়গা থেকে মাটি না সরিয়ে কাজ করে যাচ্ছেন তিনি।

 

ভুক্তভোগী নাছির উদ্দিন রানা জানান,আমরা কিছু দিন পূর্বে বিষয়টি মৌখিকভাবে ইউএনওকে অবহিত করেছিলাম কিন্তু কোন কাজ হয়নি। তাই বাধ্য হয়ে গতকাল (রবিবার) তার বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেছি। তিনি আরো জানান, মানবিক দিক বিবেচনা করে আমার বসত বাড়ির উপর থেকে মার্কেট ও রাস্তা সরাতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার জন্য এই অভিযোগ করেছি।

বিষয়টি নিয়ে কথা হয় বানিয়াচং উপজেলার ১৩নং মন্দরী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সহসভাপতি শেখ সামছুল হকের সাথে। তিনি জানান, এটা আমার করার কিছু নাই। এলাকাবাসী ও জনস্¦ার্থে এসব করা হচ্ছে। এটা কোনো কারো ব্যক্তিগত না। এসব অভিযোগ ভিত্তিহীন। আর এখানে কারো ব্যক্তিগত জায়গায় কোনো মার্কেট নির্মাণ করা হচ্ছে না।

 

সহকারি কমিশনার (ভূমি) ইফফাত আরা জামান ঊর্মির সাথে অভিযোগের বিষয়ে কথা হলে তিনি দৈনিক “আমার হবিগঞ্জ”কে জানান, অফিসিয়ালি অভিযোগ পেয়েছি। তাদের অভিযোগ তারা দাখিল করেছে। বিষয়টি খতিয়ে দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। আর সরকারি জায়গায় যে কেউ ইচ্ছে করলে কোনো কিছু করতে পারেনা । করার আগে অনুমিত নিতে হয়।

 

বিস্তারিত জানতে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাসুদ রানার সাথে কথা হলে তিনি একটা মিটিংয়ে আছেন বলে মোবাইলের লাইন কেটে দেন।

 

উল্লেখ্য,বানিয়াচং উপজেলার ১৩নং মন্দরী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শেখ সামছুল হকের বিরুদ্ধে সরকারি ত্রাণ আতœসাত,অতি দরিদ্রদের জন্য কর্মসংস্থান কর্মসূচীর প্রকল্প বাস্তাবায়নে অনিয়ম ও দুর্নীতি,ভূমি দখল,টাকার বিনিময়ে প্রধানমন্ত্রীর আর্থিক সহায়তার অনুদান পাইয়ে দেয়াসহ অসংখ্য অভিযোগ রয়েছে। এসব অভিযোগের উপর ভিত্তি করে জাতীয়,স্থানীয়সহ বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক্স মিডিয়ায় সংবাদ প্রকাশিত হয়েছিল।

 

Developed By The IT-Zone