ঢাকামঙ্গলবার , ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

চুনারুঘাট নির্বাচন কর্মকর্তা দ্বীপক রায়ের বিরুদ্ধে অনিয়ম দুর্নীতি : দুদকে অভিযোগ দায়ের

এফ এম খন্দকার মায়া ,চুনারুঘাট
ফেব্রুয়ারি ১৫, ২০২২ ১১:৪০ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

হবিগঞ্জ জেলার চুনারুঘাট উপজেলায় নির্বাচন কর্মকর্তা দ্বীপক কুমার রায়ের বিরুদ্ধে দালালদের সিন্ডিকেট, অনিয়ম, ঘুষ বাণিজ্যের অভিযোগে দুদকে এক ভুক্তভোগী লিখিত অভিযোগ দাখিল করেছেন ।

গত ১০ ফেব্রুয়ারি আল মুরাদ খান নামের এক ভুক্তভোগী জেলা সমন্বিত দুদক কার্যালয়ে এই অভিযোগ দায়ের করেন।

উপজেলার দুই লক্ষের বেশি মানুষের ভরসার স্থল উপজেলা নির্বাচন অফিস । দেশ বিদেশের প্রয়োজনে দিনমজুর হতদরিদ্র নারী পুরুষ মধ্য বিত্ত ও উচ্চ বিত্তশালীগণের প্রয়োজনী কাগজপত্র নতুন ভোট তোলা,পুরাতন ভোটারের তথ্য সংশোধন সহ রাষ্ট্রীয় সেবাগুলো বিনামূল্যে পেতে প্রতিদিনই শতশত লোকের আগমন ঘটে এই নির্বাচন কার্যালয়ে।

আর এই সুযোগে দালালদের সিন্ডিকেটের মাধ্যমে  লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা দ্বীপক কুমার রায়। এ বিষয়ে অসংখ্য ভুক্তভোগী বিভিন্ন সময়ে স্থানীয় নেতৃবৃন্দসহ সংবাদকর্মীদের দ্বারস্থ হলেও কোনো রকমের প্রতিকার পাচ্ছেন না । উপস্থিত সময়ে বিভিন্ন টালবাহানা সার্ভার সমস্যা দেখিয়ে ভুক্তভোগীদের ঘুরাচ্ছেন মাসের পরে মাস।

কিন্তু নির্বাচন কমিশন কার্যালয়ে থেকে বের হলে আশেপাশের স্থায়ী অস্থায়ী দোকান ও দালালদের উপস্থিতি তৎপরতায় নির্বাচন কমিশন কর্মকর্তা দ্বীপক কুমার রায় ও কম্পিউটার অপারেটর কাইয়ুম রাহুলের সহযোগিতা পেতে বিভিন্ন প্যাকেজে দশ/বার হাজার টাকা,সাত/ আট হাজার, চার/পাঁচ হাজার টাকার প্যাকেজ মুল্যে সহজেই পাওয়া যায় সকল সমস্যার সমাধান।

নাম প্রকাশ্যে অনিচ্ছুক এক দালাল সিন্ডিকেটর সদস্যদের সাথে কথা হলে সে অকপটে স্বীকার করে এই দুর্নীতির কথা। সে জানায়,আমি আপনার কাজ করে দেবো এইটাই হলো বড় কথা। বিভিন্ন কৌশলে কথা বললে সে উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা দ্বীপক কুমার রায় কে দিয়ে কাজ করায় বলে স্বীকার করে।

সে আরও বলে,এমন অনেকই ঘুরতে ঘুরতে সমাধান না পেয়ে আমার দ্বারস্থ হয়। ইদানীং একটি কাজ সম্পূর্ণ ছবি ফিংগার নেয়া সার্ভারে দেয় নাই। আমি দায়িত্ব নেয়ার কিছু দিনের মধ্যেই তার ভোট অনলাইনে চলে আসছে।

এমন শতশত ভুক্তভোগী সাধারণ জনগণ এভাবেই টাকা গুনতে হয়। নয়তো বা মাসের পরে মাস ঘুরতে হয় বলে জানান ভুক্তভোগী ও দালালগ।রাষ্ট্রীয় সেবা নিশ্চিত করতে গেলো ১০ই ফেব্রুয়ারি ভুক্তভোগী আল মুরাদ খান জেলা সমন্বিত কার্যালয়(দুদক) হবিগঞ্জে লিখিতভাবে অভিযোগ করেন।

এ বিষয়ে যোগাযোগ করলে উপজেলা নির্বাচন কমিশন কর্মকর্তা দ্বীপক কুমার রায়ের সাথে কথা হলে তিনি এমন ঘটনার সাথে জড়িত না বলে জানান। এবং কম্পিউটার অপারেটর কাইয়ুম,রাহুল ও প্রতিবেদক কে সাথে নিয়ে বসার আশ্বস্ত করেন।

বিস্তারিত জানতে জেলা নির্বাচন কমিশন কর্মকর্তা সাদেকুল ইসলামের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি দৈনিক আমার হবিগঞ্জকে জানান,অভিযোগ পেলে অবশ্যই ব্যবস্থা নিবো। এখনো পর্যন্ত এমন কোনো অভিযোগ পাই নি।

Developed By The IT-Zone