ঢাকারবিবার , ২১ আগস্ট ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

চুনারুঘাটে সীমান্ত ব্রিক ফিল্ডের বিরুদ্ধে পরিবেশ দুষন ও অনিয়মের অভিযোগ :২ বছরেও শেষ হয়নি তদন্ত!

স্টাফ রিপোর্টার
আগস্ট ২১, ২০২২ ১০:০৮ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

চুনারুঘাট উপজেলায় পরিবেশ দূষণ ও নিয়ম বহির্ভূতভাবে ইটভাটা পরিচালনার অভিযোগে মেসার্স সীমান্ত
ব্রিকফিল্ডের বিরুদ্ধে সরেজমিনে তদন্ত করা হয়েছে।

হবিগঞ্জ জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক ও চুনারুঘাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার এই তদন্তকাজ সম্পন্ন করেন ।

গত ১ আগস্ট উপজেলার আমুরোডের বনগাঁও এলাকায় অবস্থিত ওই ইটভাটাটিতে হবিগঞ্জ জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের ভারপ্রাপ্ত উপ-পরিচালক, কৃষিবিদ আশেক পারভেজ ও চুনারুঘাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার সিদ্ধার্থ ভৌমিকের নেতৃত্বে তদন্ত কার্যক্রম পরিচালনা করা হয়।

জানা যায়, মেসার্স সীমান্ত ব্রিক ফিল্ড নামের ওই ইট ভাটাটি গ্রামের মধ্যবর্তী স্থানে অবস্থিত। এ জন্য আশেপাশের
বাড়িঘরের গাছপালা ও কৃষিজমি সহ প্রাকৃতিক পরিবেশ বিনষ্ট হওয়ার অভিযোগে ২০২০ সালে ওই এলাকার শতাধিক ব্যক্তি বাদী হয়ে চুনারুঘাট উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নিকট ইটভাটাটির বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ দায়ের করেন।

এ অভিযোগের প্রেক্ষিতে একাধিকবার তদন্ত কার্যক্রম পরিচালিত হয়। তদন্তে ঘটনার সত্যতা মিললেও বিভিন্ন অজুহাত দেখিয়ে রহস্যজনক কারণে ইটভাটির বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়নি।

সর্বশেষ হবিগঞ্জ জেলা প্রশাসক ইশরাত জাহানের নির্দেশে গত ১ আগস্ট হবিগঞ্জ জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক ও চুনারুঘাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার যৌথ তদন্ত কার্যক্রম পরিচালনা করেন।

সুত্রে জানা যায়, ইটভাটা স্থাপনের জন্য সর্বোচ্চ দুই একর জমি ব্যবহার করার অনুমতি থাকলেও ওই ইট ভাটাটি দুই একরের থেকে অনেক বেশি জায়গা জুড়ে কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে।

এছাড়া ২০২০ সালের জুলাই মাসে পরিচালিত একটি তদন্তে প্রমাণিত হয় ইটভাটা থেকে নির্গত কালো ধোঁয়া ও পরিবেশের ক্ষতিকারক উপাদানের কারণে আশেপাশের বাড়ি ঘরের প্রচুর গাছপালা বিনষ্ট হয়ে গিয়েছে।

এ ব্যাপারে ওই এলাকার অনেকের সাথে কথা বলে জানা যায়, ইট ভাটাটির অতি নিকটে চারপাশেই গ্রাম অবস্থিত। এছাড়া এটির চারপাশ জুড়ে রয়েছে ধানক্ষেত। ইটভাটাটির কারণে ওই এলাকার পরিবেশের মারাত্মক ক্ষতি হচ্ছে। গাছপালা মরে যাওয়া ও ফসল বিনষ্ট হওয়া থেকে এ ক্ষতি দৃশ্যমান হয়।

এ বিষয়ে হবিগঞ্জ জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের সাবেক ভারপ্রাপ্ত উপ-পরিচালক কৃষিবিদ আশেক পারভেজের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে নির্দেশ প্রাপ্ত হয়ে তিনি গত ১ আগস্ট এ বিষয়ে তদন্ত পরিচালনা করেছেন।

এ ব্যাপারে চুনারুঘাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার সিদ্ধার্থ ভৌমিকের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, গত ১ আগস্ট সরেজমিনে তদন্ত কার্যক্রম পরিচালনা করা হয়েছে। কয়েকটি বিষয়ে বিশেষজ্ঞদের মতামত চাওয়া হয়েছে। এগুলি হাতে পেলেই পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Developed By The IT-Zone