ঢাকাশনিবার , ২৮ মার্চ ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

চুনারুঘাটে রেমা চা বাগানের কার্যক্রম ২০ ধরে বন্ধ, বিপর্যস্ত সহস্রাধিক শ্রমিক।

অনলাইন এডিটর
মার্চ ২৮, ২০২০ ২:৫৪ অপরাহ্ণ
Link Copied!

নাসির উদ্দিন লস্কর,চুনারুঘাট প্রতিনিধি।। হবিগঞ্জের চুনারুঘাটে অতি জনপ্রিয় রেমা চা বাগান ২০ দিন ধরে বন্ধ। সূত্রমতে একটি অপ্রীতিকর ঘটনার জের ধরে ২০ দিন ধরে বন্ধ আছে উপজেলার শতশত শ্রমিকের কর্মস্থল রেমা চা বাগান। এতে বিপাকে পড়েছেন ওই বাগানের সহস্রাধিক শ্রমিক। দৈনিক মজুরির ভিত্তিতে কাজ করা এ শ্রমিকরা দীর্ঘদিন বাগান বন্ধ থাকায় অনেকটা মানবেতর জীবনযাপন করছেন। শ্রমিকদের সাহায্যে গতকাল জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে এ বাগানে তিন টন চাল বরাদ্দ দেয়া হয়েছে।


বাগান কর্তৃপক্ষের অভিযোগ, শ্রমিকরা অন্যায়ভাবে বাগানের ব্যবস্থাপক ও উপ-ব্যবস্থাপককে মারধর করেছে। এ ঘটনায় থানায় অভিযোগ দেয়ায় তারা অঘোষিত কর্মবিরতি পালন করছে। এতে বাগানের উৎপাদন ব্যাহত হচ্ছে।তবে শ্রমিকদের অভিযোগ, বাগান ব্যবস্থাপকের সঙ্গে তর্কাতর্কির জের ধরে মালিক পক্ষ ৬ মার্চ থেকে বাগানের উৎপাদন বন্ধ রেখেছে। এতে ২০ দিন ধরে কাজ বিহীন হয়ে আছে সব শ্রমিক। এ ব্যাপারে সমাধানের জন্য একাধিক বার প্রস্তাব দেয়া হলেও মালিকপক্ষ এতে রাজি হচ্ছে না।

রেমা চা বাগানে লংকা ভ্যালিতে অন্তর্ভুক্ত স্থায়ী শ্রমিক রয়েছেন ৩৮৫ জন। অস্থায়ী শ্রমিক আছেন প্রায় ৬০০। তাদের পরিবারের শিশু-বৃদ্ধ মিলিয়ে বাগানে শ্রমিক পরিবারগুলোর সদস্য সংখ্যা প্রায় ১ হাজার ২০০।সম্প্রতি করোনাভাইরাস সংক্রমণের পরিপ্রেক্ষিতে ১০ দিনের জন্য দেশের সব সরকারি-বেসরকারি অফিস-আদালত বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। বন্ধ রয়েছে দোকানপাটও। তবে এমন পরিস্থিতিতেও চা বাগানে উৎপাদন অব্যাহত রাখার নির্দেশনা দিয়েছে সরকার।

২৫ মার্চ শ্রম অধিদপ্তরের উপপরিচালক নাহিদুল ইসলাম স্বাক্ষরিত এক পরিপত্রে চা বাগানে সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের বর্তমান সাধারণ ছুটি প্রযোজ্য হবে না বলে উল্লেখ করা হয়। তবে এমন নির্দেশনার আগে থেকেই বন্ধ রয়েছে রেমা চা বাগানের উৎপাদন।রেমা চা বাগানের শ্রমিক পঞ্চায়েত কমিটির সভাপতি তনু মুণ্ডা বলেন, ৫ মার্চ বোনাস নিয়ে বাগান ব্যবস্থাপকের সঙ্গে কিছু শ্রমিকের ঝামেলা হয়। এরপর মালিক পক্ষ ১০-১২ জন শ্রমিকের নাম উল্লেখ করে থানায় মামলা দেয়। একই সঙ্গে বাগানের উৎপাদনও বন্ধ করে দেয়।তিনি বলেন, চা বাগানের শ্রমিকরা কাজ না করলে টাকা পান না। ২০ দিন ধরে কাজ বন্ধ থাকায় শ্রমিকরা প্রায় অভুক্ত অবস্থায় আছেন।

এ ব্যাপারে রেমা চা বাগানের ব্যবস্থাপক দিলীপ সরকারের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তিনি ফোন ধরেননি।হবিগঞ্জের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ কামরুল হাসান বলেন, বিষয়টি সমাধানের জন্য আমরা চেষ্টা করছি। শ্রমিকদের কথা বিবেচনা করে বাগানে তিন টন চাল বরাদ্দ দিচ্ছি।

Developed By The IT-Zone