ঢাকারবিবার , ৮ মার্চ ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

চুনারুঘাটে নীরবেই কেটে গেল ভাষা সৈনিক আওয়ামী লীগ নেতা ছুরুক আলীর মৃত্যুবার্ষিকী

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
মার্চ ৮, ২০২০ ৯:০৭ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

এফ এম খন্দকার মায়া,চুনারুঘাট –   হবিগঞ্জের চুনারুঘাট উপজেলার কিংবদন্তী নেতা,ভাষা সৈনিক,বঙ্গবন্ধুর স্নেহধন্য,স্বর্ণ পদকপ্রাপ্ত ইউনিয়ন চেয়ারম্যান ও আওয়ামীলীগের প্রতিষ্ঠাতাকালীন থেকে বিভিন্ন পদে আসিন প্রাপ্ত ও ২০১৩ সাল পর্যন্ত সভাপতি দায়িত্ব পালন কারী আলহাজ্ব আজিজুর রহমান ছুরক আলী ৬তম মৃত্যু বার্ষিকী নীরবেই কেটে গেল।আওয়ামীলীগ সহ ভ্রাতৃপ্রতিম ও সহযোগী সংগঠনের কারও কোন দৃষ্টিগোচর হয় নাই।বিভিন্ন রাজনৈতিক ও পারিবারিক ব্যক্তিদের পেইজবুকে নাম মাত্র শোক প্রকাশ করলেও আওয়ামীলীগ বা কোন সহযোগী সংগঠনের ব্যানারে হয় নি কোন শোকসভা বা দোয়া মাহফিল।রাজনৈতিক মতৈক্যে,কক্ষীগত কারনেই হারিয়ে যাচ্ছে ত্যাগী নেতার মূল্যায়ন।এমনটিই ধারনা সাধারণ কর্মীগনের।এই নিয়ে ৭ই মার্চ বিকাল ৫টায় আজিজুর রহমান ছুরক আলীর ছোট সন্তান রুমন ফরাজি’র ফেইসবুকে আবেগময় স্ট্যাটাস দেখা যায়।নিম্নে হবুহু তা তুলে ধরা হলো।
দুঃখজনক হলেও সত্য?
এই কষ্টের কথা বলি কাকে!
গত ০১/০৩/২০২০ ইং তারিখে নিরবেই চলে গেল চুনারুঘাট উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রতিষ্টাতা সাধারণ সম্পাদক থেকে শুরু করে ২০১৩ সাল পর্যন্ত সভাপতির দায়িত্ব পালন করে যাওয়া মরহুম আজিজুর রহমান ছুরুক আলীর মৃত্যুবার্ষিকী। তিনি কি আওয়ামী লীগের জন্য কিছুই করেননি।
তিনি একজন ভাষা সৈনিক এবং বীর মুক্তিযোদ্ধা।
আজকে যারা দলের নেতৃত্বে রয়েছেন বড় বড় পদ আর সব পদের ভারে যারা শক্তিশালী তাদের বিবেক কি জাগ্রত হয় না।
সাবেক মন্ত্রী এনামুল হক মোস্তফা শহীদ চাচা যিনি চুনারুঘাটের অনেককেই যারা কোথায় ছিলেন আর কোথায় তাদের রেখে গেছেন সব দিক দিয়েই যাদের অবস্থান পরিবর্তন করে দিছেন যার কারনে আজ এত হাক ডাক। উনার ও মৃত্যুবার্ষিকী চলে যায় নিরবে।
মোস্তফা শহিদ চাচা সহ আওয়ামী লীগের প্রতিষ্টাতা সভাপতি ছাবু চাচা, মইন উল্লাহ চাচা,হোছন আলী চাচা, হরেন্দ্র কাকা,রউফ চাচা,কালাম চেয়ারম্যান চাচা,শুকুর মোহাম্মদ চাচা,মন্নান সরকার ভাই, তোতা ভাই সহ চুনারুঘাট উপজেলা এবং ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের অনেক প্রবীণ নেতারাই মারা গেছেন কিন্তু আজ পর্যন্ত আওয়ামী লীগের পক্ষে সম্ভব হয়নি কারও মৃত্যুবার্ষিকী পালন করা।দুঃখ হয় উনাদের জন্য যারা নিজের সম্পদ বিক্রি করে আওয়ামী লীগ করে গেছেন কিন্তু তাদের ভুলে গেছে দল আর আজকে যারা নাকি দলের নাম ভাঙিয়ে পদ ব্যবহার করে দলকে বিক্রি করে সম্পদের পাহাড় গড়েছেন মনে রাখবেন ইতিহাস নিজের মত করেই রচিত হয় ইতিহাস কাউকেই ক্ষমা করে না।
প্রকৃতির বিচার খুব নিষ্টুর হয়,তৈরি থাকেন যেকোনো সময় বিচার শুরু হয়ে যাবে।
চুনারুঘাটের মানুষ জানে কে কোন পরিবারের কার বাপ দাদা কি ছিল আর অবস্থা কেমন ছিল।
ফেরাউন,সাদ্দাত ও শক্তিশালী ছিল কিন্তু মিথ্যা শক্তি দিয়ে ঠিকতে পারেনি আপনারাও পারবেন না।
মিথ্যার রাস্তা দিয়ে হয়তোবা দুই চার দশ মাইল রাস্তা আপনার মত করেই খুব দাপটের সাথে চলে যেতে পারবেন কিন্তু মনে রাখবেন গন্তব্যস্থানে পৌঁছানো সম্ভব হবেনা কারন মিথ্যা প্রতিষ্টিত নয় এটাই সত্য।
সত্যের রাস্তা পাড়ি দেওয়া খুব কষ্টের কিন্তু সঠিক থাকলে আপনি পৌঁছাতে পারবেন অবশ্যই।
শুধু পদে আর মুখের কথায় আওয়ামী লীগ হলেই হবেনা সত্যের পথেও হাটতে হবে।
আওয়ামী লীগের রাজনীতি করে যারা মারা গেছেন তারা ভুল করেন নি ভুল করেছেন তারা যারা উনাদের ব্যবহার করে প্রতিষ্টিত হয়েছেন।
কষ্ট থেকে লিখেছি ভুল হলে ক্ষমার চোখে দেখবেন আশাকরি।
অনলাইনে সন্তানের এমন স্ট্যাটাস দেখে একজন রাজনৈতিক কর্মীর প্রতি এমন অবহেলা কিছুতেই মানতে পারেনি সাধারণ কর্মীগন। তারা এমনটা কখনোই প্রত্যাশা করেন নি।এই নিয়ে জেলা আওয়ামীলীগ ও একমাত্র ভরসা শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

 

Developed By The IT-Zone