ঢাকারবিবার , ২৯ ডিসেম্বর ২০১৯
আজকের সর্বশেষ সবখবর

ঘুরে আসুন প্রকৃতির অপরুপ সৌন্দর্য ভোলাগঞ্জের “সাদা পাথর”থেকে

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
ডিসেম্বর ২৯, ২০১৯ ১২:৪৫ অপরাহ্ণ
Link Copied!

রায়হান উদ্দিন সুমন,সাদা পাথর (ভোলাগঞ্জ) থেকে ফিরে :   ধলাই নদীর মনোলোভা রূপ, সবুজ পাহাড় বন্দী এলাকা জুড়ে অজ¯্র সাদা পাথর, আকাশের নীল ছায়া রেখে যায় পাথরে জমে থাকা স্ফটিক জলে। দূরের পাহাড়গুলোর উপর মেঘের ছড়াছড়ি, সাথে একটা দুটো ঝর্ণার গড়িয়ে পড়া। নদীর টলমলে হাঁটু পানির তলায় বালুর গালিচা। চিক চিক করা রূপালী বালু আর ছোট বড় সাদা অসংখ্য পাথর মিলে এ যেন এক পাথরের রাজ্য। প্রকৃতির খেয়ালে গড়া নিখুঁত ছবির মত সুন্দর এই জায়গাটির নাম ভোলাগঞ্জ। সাদা সাদা পাথর ছড়ানো এই জায়গাটি দেখতে অবিকল বিছানাকান্দির মতো।

এ যেন সাদা পাথরের আরেক বিছানাকান্দি। জাফলং, বিছানাকান্দিতে তো অনেকেই গিয়েছেন, এবার ঘুরে আসুন অনিন্দ্য সুন্দর ভোলাগঞ্জের সাদা পাথর থেকে। সিলেটের কোম্পানিগঞ্জের ভোলাগঞ্জ দেশের বৃহত্তম পাথরকোয়ারী অঞ্চল। সিলেট থেকে এর দূরত্ব মাত্র ৩৩ কিলোমিটার। অসাধারণ প্রাকৃতিক শোভার স্থান এই ভোলাগঞ্জ। সাথে বাড়তি পাওনা হিসেবে পাবেন ধোলাই নদীর নয়নাভিরাম সৌন্দর্য। চারদিকে শুধু সাদারঙা পাথর আর পাথর। এতো সাদা পাথর হয়ত জীবনে কখনোই দেখেননি। পাথর তোলার প্রচুর নৌকা দেখতে পাবেন এখানে। নির্জন নৈসর্গিক এই জায়গাটিতে সামনে সবুজ পাহাড়ের সারি, পাহাড় থেকে গড়িয়ে পড়া প্রচন্ড স্রোতের স্বচ্ছ শীতল জল। এই জলে অবগাহন করে সকল ক্লান্তি-অবসাদ নিমিষেই দূর করতে পারবেন। মন-প্রাণ হয়ে উঠবে সতেজ ও প্রাণবন্ত।

পানি আর সাদা পাথরের জাদুকরী শীতল স্পর্শ আপনাকে নিঃসন্দেহে বিমোহিত করবে। পার্শ্ববর্তী দেশ ভারত থেকে বন্যার তোড়ে নদী ও ছড়া দিয়ে প্রচুর পাথর ভোলাগঞ্জ পাথর কোয়ারিতে জমা হয়। যা সারা বছর উত্তোলন করে থাকেন শ্রমিকরা। এই পাথুরে রাজ্য যেমন চমৎকার তেমনিই উপভোগ্য এখানকার পাথর উত্তোলনের দৃশ্য। ভোলাগঞ্জের আর একটি আকর্ষণীয় স্থান হলো ভোলাগঞ্জ রোপওয়ে। পাথর কোয়ারী, পাহাড়ি মনোলোভা দৃশ্য অবলোকনের পাশাপাশি ভোলাগঞ্জ রোপওয়ে এলাকা ঘুরে দেখতে পারেন। ১৮৬৪ সালে সোয়া দুই কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মাণ করা হয় ভোলাগঞ্জ রোপওয়ে প্রকল্প।

মজার ব্যাপার হলো, এলাকাটি দেখতে অনেকটা ব-দ্বীপের মতো। ধলাই নদী বাংলাদেশ অংশে প্রবেশ করে দু’ভাগে বিভক্ত হয়ে প্ল্যান্টের চারপাশ ঘুরে আবার একীভূত হয়েছে। রোপওয়ের এরিয়া প্রায় একশ একর। আর এ কারণেই স্থানটি পর্যটকদের কাছে এত আকর্ষণীয়। এদিকে পৃথিবীর সর্বাধিক বৃষ্টিবহুল এলাকা চেরাপুঞ্জির অবস্থান ভারতের পাহাড়ি রাজ্য মেঘালয়ে। ধলাই নদীর উজানে এ রাজ্যের অবস্থান। খাসিয়া জৈন্তিয়া পাহাড় ঘেরা এ রাজ্যের দৃশ্য বড়ই মনোরম। ভোলাগঞ্জ রোপওয়ে এলাকায় অবস্থান করে পাহাড় টিলার মনোরম দৃশ্যাবলী অবলোকন করা যায়। সবুজে মোড়া পাহাড়ি এই সৌন্দর্য আপনাকে বিমুগ্ধ করবে। এছাড়া ভোলাগঞ্জে রয়েছে একটি ল্যান্ড কাস্টমস স্টেশন।

এ স্টেশন দিয়ে আমদানি রপ্তানি কার্যক্রম চলে। এ স্টেশন দিয়ে বাংলাদেশী ব্যবসায়ীরা প্রধানত চুনাপাথর ও কয়লা আমদানি করে থাকেন। চুনাপাথর নিয়ে প্রতিদিন শত শত ট্রাক বাংলাদেশে প্রবেশ করে। সীমান্তের জিরো লাইনে এ কাস্টমস স্টেশনের অবস্থান। চাইলে এখান থেকেও ঘুরে আসতে পারেন।

কিভাবে যাবেন : সিলেট নগরীর আম্বরখানা থেকে শুরু হয়েছে ট্যুরিস্ট বাস নামে নতুন বাস সার্ভিস। বাসের মধ্যে রয়েেেছ এসি/নন এসি। এসি বাসের ভাড়া পড়বে জনপ্রতি ১২০টাকা আর নন এসি বাসে জনপ্রতি ভাড়া পড়বে ৭০টাকা। চাইলে আপনি পুরো বাসই রিজার্ভ নিতে পারেন। এছাড়া সিএনজি চালিত অটোরিকশা চলে সিলেট কোম্পানীগঞ্জ রুটে ১২০ টাকা জনপ্রতি ভাড়ায় কোম্পানীগঞ্জের টুকের বাজারে নামাবে। টুকের বাজার থেকেই ট্রলারে চলে যেতে পারেন সাদা পাথর।

তবে ট্রলার পেতে আপনাকে অনেক ভোগান্তি পোহাতে হবে। ট্রলারের ইজারাদারের কাছে আগেভাগে নাম লিখাতে হয় ট্রলার পাওয়ার জন্য। নইলে আপনাকে অনেক যন্ত্রণা পোহাতে হবে। বিশেষ করে ছুটির দিনে একটু ঝামলো হয়। পর্যটকদের মুখর বেশি থাকায়। কোম্পানীগঞ্জ পৌঁছে টুকের বাজার ঘাট থেকে ট্রলারে সাদা পাথর পৌঁছাতে ৩০ থেকে ৪০ মিনিটের মতো সময় লাগবে। যাওয়া-আসায় নৌকা ভাড়া পড়বে ৮০০-১০০০ টাকা। এখানে নৌকা রিজার্ভ করে নিতে হয়, অন্যথায় ভুগতে হবে।

 

তাই গ্রুপে গেলে খরচটা একটু কম পড়ে। সিলেট থেকে ভোলাগঞ্জ সরাসরিও চলে যাওয়া যায়। ১০ মাইল নামক স্থান থেকে নৌকা নিলে ৫০০-৬০০ টাকা ভাড়া পড়বে, তবে এ ক্ষেত্রে অতিরিক্ত ভাড়া গুনতে হবে অটোরিকশায়। তবে এখানকার মূল সৌন্দর্য্য কেবল বর্ষাকালে মিলবে। শীতকালে নদীর পানি প্রবাহ কমে যায় বলে নৌকায় চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। তখন সাদা পাথর এলাকায় যেতে হবে নদীর বুক দিয়ে পায়ে হেটে।

Developed By The IT-Zone