ঢাকাশুক্রবার , ২৭ মার্চ ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

গুজব কে দায়ী ?

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
মার্চ ২৭, ২০২০ ১০:৩১ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

জাবেদুর রহমানঃ ফেইসবুকে স্ট্যাটাস দিতে টাকা লাগে না, কারো অনুমতির প্রয়োজন হয় না। যখন যা ইচ্ছা হয় তখন তা নিজের টাইমলাইনে পোস্ট করতে পারি অথবা সোর্স যাচাই-বাছাই ছাড়া শেয়ার দিতে পারি। অথচ আমরা কি নিজেরদেরকে একবার ও প্রশ্ন করেছি, আমাদের এই বিভ্রান্তমূলক স্ট্যাটাসের কারণে যে অনেকেরই মনে তৈরি হচ্ছে নতুন প্রশ্ন। যা সমাজকে করছে আতংকিত!!!!!

★গত বৃহস্পতিবার (২৬মার্চ) রাত্রে একটা গুজব ছড়ানো হয়েছিল যে, এক শিশু জন্ম গ্রহন করার পর বলেছে করোনা ভাইরাস থেকে মুক্তি পেতে হলে কালিজিরা, লং এলাছি এবং চিনি ছাড়া চা পান করার জন্য। একথা বলেই সে মৃত্যু বরণ করে। অথচ আমরা কি নিজেকে একবার প্রশ্ন করেছি এটা কতটুকু সত্যি বা কতটুকু মিথ্যা? কিন্তু সত্য না মিথ্যা যাচাই-বাছাই ছাড়াই আমরা আত্মীয়স্বজনের কাছে ফোন দিয়ে ও একথা ছড়িয়ে দিয়েছে।

★কিছুদিন ধরে একটা কথা শুনে আসছি মহিলাদের কাছ থেকে “সরকারে বাড়িতে বাড়িতে কিছু ডাক্তার এবং কিছু পুলিশ পাঠিয়েছে ১০ বছরের নিচে যেসকল শিশু আছে তাদেরকে ইনজেকশন দেওয়ার জন্য। অথচ এরকম খবর মহিলাদের মুখ ছাড়া কোথাও খুঁজে পেলাম না।

★শুধু করোনা ভাইরাস না পূর্বে যেত ধরনের বিপদ আমাদের দেশে দেখা দিয়েছে, সবগুলোতেই আমরা কোনো না কোনো ভাবেই গুজব ছড়িয়ে ছিলাম।

কিছু উদাহরণ নিচে দেওয়া হলোঃ

১) ছেলেধরা গুজব

পদ্মাসেতুতে মানুষের মাথা লাগবে এই গুজব ছড়িয়ে পড়লে আরেকটি গুজব ছড়ায়, তা হলো সেতুতে শিশুদের মাথা লাগবে। আর এ জন্য শিশুদের ধরে নেয়া হচ্ছে এবং তাদের মাধা কাটা হচ্ছে। এই ‘ছেলেধরা’ গুজব ছড়িয়ে পড়লে সারােদেশে শুরু হয় ছেলেধরা সন্দেহে গণপিটুনি। গণপিটুনিয়ে রাজধানীসহ সারা দেশে অনেকে নিহত হয়েছেন।

২) বিদ্যুৎ বন্ধ

ছেলেধরা গুজবের রেশ না কাটতেই দেশের বিভিন্ন স্থানে তিনদিন বিদ্যুৎ বন্ধ রেখে বাচ্চাদের ধরে নিয়ে যাওয়া হবে বলে ম্যাসেঞ্জারেরর মাধ্যমে গুজব ছাড়িয়ে পড়ে। পরে বিদ্যুৎ বিভাগ জানায়, এই খবরটি সঠিক নয়।

৩) ডেঙ্গু প্রতিরোধে হারপিক

জুলাই মাসে গুজব ছড়ায় যে ৫০০ গ্রাম হারপিক ও ৫০০ গ্রাম ব্লিচিং পাউডার একযোগে ঢাললে ড্রেনে যত মশা আছে সব মরে যাবে। ফেসবুকে বিষয়টি ছড়িয়ে পড়ে। পরে বিশেষজ্ঞরা জানান, এর কোনো বৈজ্ঞানিক ভিত্তি নেই। হারপিকের উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানও বলে এটা গুজব।

সবার কাছে বিনীতভাবে অনুরোধ করছিঃ [ কোনো কিছু শেয়ার করার পূর্বে অথবা লিখার পূর্বে সত্য কি মিথ্যা যাচাই করে নিন ]

★★পরিশেষে, আমার এই পোস্ট দ্বারা প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলতে চাই, শহরের তুলায় গ্রামের মানুষ সচেতন নয়। এমন কি এখন যে আমাদের দেশে করোনা ভাইরাস এসেছে সেটা তারা মেনে নিতে চাচ্ছে না। আমি মনে করি, গ্রামের দিকে ও করোনা ভাইরাস সম্পর্কে সচেতনতা বৃদ্ধি করা দরকার। পাশাপাশি প্রত্যেক ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এবং প্রত্যক ওয়ার্ডের মেম্বার মহোদয় গণ যদি মাইকিং অথবা প্রচারপত্রের মাধ্যমে সচেতনতা বৃদ্ধি করতে পারেন। তাহলে করোনা ভাইরাস যে আমাদের দেশে যে আক্রমণ শুরু করেছে, সেই বিষয়ে তারা অবগত হতে পারবেন। তা নাহলে, দেশে বড় ধরনের ক্ষতি হয়ে যেতে পারে।

Developed By The IT-Zone