ঢাকাশনিবার , ১৮ জুন ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বানিয়াচংয়ে বৃষ্টি হলেই জলাবদ্ধতা : অপরিকল্পিত উন্নয়ন ও খাল ভরাটকেই দায়ী করছেন অনেকেই

ইমদাদুল হোসেন খান
জুন ১৮, ২০২২ ১০:১৭ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

এক সময় হেমন্ত মৌসুমেও নৌকাযোগে সমগ্র বানিয়াচং উপজেলা সদর ঘুরে দেখা যেতো। কারণ, ওইসময় সব পাড়া/মহল্লার ভেতর দিয়ে খাল ছিল। এক খালের সাথে আরেক খালের সংযোগও ছিল।

উপজেলা সদরের ভেতরে সাপের মতো আঁকাবাঁকা খালগুলো ছাড়াও বাহিরে ছিল বিশাল গড়ের খাল। ভেতরে সবগুলো খাল নিয়ে মিশেছিল গড়ের খালে। গড়ের খাল আবার মিশেছিল শুঁটকি, ঝিংরি এসব নদীতে। পাড়া/মহল্লার ভেতরের খালগুলোর উপর উঁচু ব্রীজ, সাঁকো ইত্যাদি।

ফলে দীর্ঘমেয়াদী ভারি বৃষ্টি হলেও কোনো পাড়া/মহল্লায় জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হতোনা। কারণ, বৃষ্টির পানি সঙ্গে সঙ্গে পাড়া/মহল্লার খালে পতিত হতো। এসব খালের পানি গড়ের খাল হয়ে সরাসরি নদীর পানির সাথে মিশে যেতো। দিনে দিনে অপরিকল্পিত সরকারি উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়নের ফলে খালের উপরে থাকা উঁচু ব্রীজ ভেঙ্গে নিচু ব্রীজ এবং একসময় নিচু ব্রীজ ভেঙ্গে সরু কালভার্ট নির্মাণ করা হয়।

এভাবে নৌযোগাযোগ ব্যবস্থা বন্ধের পাশাপাশি পানির স্বাভাবিক প্রবাহে প্রতিবন্ধকতার সৃষ্টি করা হয়। পানির স্বাভাবিক প্রবাহে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টির ফলে কালক্রমে খালগুলো সরু হতে থাকে এবং পলি পড়ে খালের গভীরতা হ্রাস পেতে থাকে। এভাবে একসময় কালভার্টগুলোও বন্ধ অথবা ভেঙ্গে মাটির সমতলে পরিণত হয়।

একসময় কালভার্টের পরিবর্তে সরাসরি রাস্তা নির্মাণ শুরু হয়। মানুষও সরু এবং ভরাট হয়ে যাওয়া খালের উপরে সাঁকোর পরিবর্তে বাঁধ দেয়া শুরু করেন। এক পর্যায়ে অস্তিত্ব বিলীন হওয়া খালের উপর ঘরবাড়ি ও দোকানপাট নির্মাণ হওয়া শুরু হয়। এভাবে খালভিত্তিক সংস্কৃতিতে অভ্যস্থ মানুষ খাল ভরাটের সংস্কৃতিতে পরিণত হয়।

এই অপরিকল্পিত উন্নয়ন ও গণহারে খাল ভরাটের হিড়িকের ফলে এখন সামান্য বৃষ্টি হলেই পাড়ায়-পাড়ায়, মহল্লায়-মহল্লায়, বাজারে-বাজারে, রাস্তায়-রাস্তায় দেখা দেয় জলাবদ্ধতা। আর জলাবদ্ধতা দেখা দিলেই ছবি তুলে ফেসবুকে পোস্ট দেয়া এবং লাইভ দিয়ে শুরু হয়ে যায় একে অপরকে দোষারূপ।

ওই এলাকার প্রভাবশালীর খাল ভরাট করায় অমুক-অমুক এলাকার মানুষ পানিবন্দী থাকলেও দেখার কেউ নেই এসব প্রচারণা চালাতে দেখা যায় অনেককেই । কিন্তু সবাই যে কমবেশি একই দোষে দুষ্ট এটা কেউ স্বীকার করতে রাজী না।

একদিনের ভারী বৃষ্টিতে বানিয়াচং উপজেলা সদরের বিভিন্ন বাজার ও পাড়া/মহল্লায় জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হলেও বরাবরের মতোই লোকজনকে ফেসবুকে ছবি এবং ভিডিও পোস্ট দিয়ে প্রতিক্রিয়া দেখাতে লক্ষ্য করা যায়।

বড়বাজার ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির সদস্য রিপন খানকে পুরান তোপখানা এলাকা প্লাবিত হয়ে রাস্তাঘাটসহ ঘরবাড়িতে পানি প্রবেশের ভিডিও পোস্ট করে লিখতে দেখা গেছে, ‘সবার যে অবস্থা আমারও একই অবস্থা’। জলাবদ্ধতার কারণে কারও বসতঘর আবার কারও দোকানে পানি ঢুকে ক্ষতিসাধন হওয়ার কথা জানিয়ে বিভিন্ন বাজার ও পাড়া-মহল্লা থেকে অনেকে এ প্রতিবেদককে ফোন করেও লেখালেখি করার তাগিদ দিয়েছেন।

বৃহস্পতিবার (১৬জুন)  সন্ধ্যা থেকে শুক্রবার বিকাল পর্যন্ত হওয়া ভারী বৃষ্টিতে বানিয়াচং উপজেলা সদরের প্রায় এলাকাই জলাবদ্ধতায় প্লাবিত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।এছাড়া

সরেজমিন ঘুরে উপজেলা সদরের বড়বাজার-কাদিরগঞ্জ সড়কের প্রবেশমুখ হতে ব্রাক স্বাস্থ্যসেবা কেন্দ্র (মুতি মিয়ার রাইস মিল) পর্যন্ত, বড়বাজার-৫/৬ নং বাজার সড়কের উপজেলা আওমীলীগের সভাপতি আমির হোসেন মাষ্টারের বাড়ীর মসজিদ পর্যন্ত, বড়বাজার-বাবুর বাজার সড়কের ইট সলিং থেকে পুকুর পাড়ের মোড় পর্যন্ত, বড়বাজার-গ্যানিংগঞ্জ বাজার সড়কের পুরান বাগ এলাকা পর্যন্ত, গ্যানিংগঞ্জ বাজারস্থ ৪নং বানিয়াচং দক্ষিণ-পশ্চিম ইউনিয়ন পরিষদ অফিসের সামন থেকে জনাব আলী কলেজ সংলগ্ন মাদানী ম্যানশনের সামন পর্যন্ত এবং গ্যানিংগঞ্জ পশ্চিম বাজার থেকে সাগর দিঘিরপাড় সড়কে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হতে দেখা যায়।

এছাড়া পুরান তোপখানা, তাম্বুলিয়াটুলা, মাদারীটুলাসহ বিভিন্ন এলাকা জলমগ্ন হয়ে পড়ে। এসব এলাকায় জলাবদ্ধতার কারণ হিসেবে অনেকে গণহারে খাল ভরাট ও অপরিকল্পিত উন্নয়ন প্রকল্পের সমালোচনা করে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন এবং এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য দায়িত্বশীল প্রশাসনিক কর্মকর্তা ও জনপ্রতিনিধিদের দৃষ্টিআকর্ষণ করছেন।

Developed By The IT-Zone