ঢাকাবৃহস্পতিবার , ৪ আগস্ট ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

ক্রেতা ঠকানোর অভিযোগে জরিমানা গুনলেন আমুরোড বাজার ব্যবসায়ী সেলিম

স্টাফ রিপোর্টার
আগস্ট ৪, ২০২২ ১০:২৬ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

দীর্ঘদিন ধরে গ্রামের সহজ সরল ক্রেতাদের ঠকিয়ে ব্যবসা করে আসছিলেন চুনারুঘাটের আমুরোড বাজারের ‘জননী ফোন এন্ড ইলেক্ট্রনিক্স এর মালিক সেলিম আহম্মেদ। এ নিয়ে ক্রেতা সাধারনের মধ্যে নানা কানাঘোষা চললেও কেউ এর প্রতিকারে পদক্ষেপ নেননি। অবশেষে এক ক্রেতার অভিযোগের প্রেক্ষিতে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষন অধিদপ্তর ব্যাবসায়ী সেলিমকে ৫ হাজার টাকা জরিমানা করেছে।

অভিযোগে প্রকাশ, আমুরোড বাজারের পাশ্ববর্তী গোছাপাড়া গ্রামের সাদেক গত ১ জুলাই সেলিমের দোকান থেকে দেশের স্বনামধন্য একটি কোম্পানীর একটি ফ্রিজ কেনেন। এর দাম নেয়া হয় সাড়ে ত্রিশ হাজার টাকা।

পরে সাদেক তার আত্নীয় স্বজনদের কাছে জানতে পারেন একই মডেলের ফ্রিজ সেলিমের দোকান থেকে ২২ হাজার টাকায় ক্রয় করেছেন তার কেনার কয়েকদিন আগে।

বিষয়টি নিশ্চিত হতে তিনি হবিগঞ্জ , চুনারুঘাট ও অন্যান্যস্থানে ওই কোম্পাানীটির শোরুমে খোঁজ নিয়ে জানতে পারেন এ ফ্রিজ ২২ হাজার থেকে সাড়ে ২২ হাাজার টাকার মধ্যে বিক্রি হচ্ছে।

এ ব্যাপারে তিনি দোকানের মালিক সেলিমের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি দাম বেশি নেননি বলে সাফ জানিয়ে দেন। এদিকে সাদেক ফ্রিজ কেনার রশিদ চাইলে সেলিম রশিদ দিতে রাজি হননি।

এ নিয়ে কথাবার্তার এক পর্যায়ে সেলিম ফ্রিজের ‘ওয়ারেন্টি ও ব্যবহারবিধি’ বইয়ের এককোনে ৩০ হাজার ৫শ টাকা লিখে দেন। বাজার কমিটির নেতা কয়েকজন নেতৃস্থানীয় লোকজনকে অবগত করেন সাদেক।

নেতৃবৃন্দ টাকা বেশি নেয়ার বিষয়টি সম্পর্কে জানতে চাইলে সেলিম অভিযোগটি উড়িয়ে দিয়ে দাম্ভিকতা প্রকাশ করেন।কিন্তু হাল ছাড়েননি সাদেক। তিনি গত ২৫ জুলাই ভোক্তা অধিকার সংরক্ষন অধিদপ্তর হবিগঞ্জ কার্যালয়ের সহকারি পরিচালকের বরাবরে লিখিত অভিযোগ করেন। সহকারি পরিচালক দেবানন্দ সিনহা গতকাল ৩ আগষ্ট উভয় পক্ষকে অফিসে ডেকে পাঠান।

অভিযোগকারী সাদেক জানান, ফ্রিজ ক্রয়ের রশিদ না দেয়া সত্বেও চতুর সেলিম বিক্রির রশিদ দেয়া হয়েছে প্রমান করার জন্য রশিদ বই নিয়ে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষন কর্মকর্তার কাছে উপস্থাপন করেন। কিন্তু বিধিবাম। রশিদে ক্রেতার সাক্ষরের জায়গায় তার সই না থাকায় সেলিমের ধাপ্পাবাজী সহজে ধরা পড়ে।

লোভের ফাঁদে নিজেই ধরা পড়েন তিনি। উভয় পক্ষের বক্তব্য শুনানী ও প্রমানাদি পরীক্ষার পর সহকারি পরিচালক দেবানন্দ সিনহা ফ্রিজ বিক্রেতা সেলিম আহমদকে দোষি সাব্যস্থ করে তাঁর নিকট থেকে ৫ হাজার জরিমানা আদায় করেন।

যোগাযোগ করা হলে সহকারি পরিচালক দেবানন্দ জরিমানা আদায়ের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। জরিমানা দেয়ার ব্যাপারে সেলিম বলেন, ভুল হয়ে গেছে। আর এ ধরনের কাজ করবেন না। এলাকাবাসীদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, দরিদ্র পরিবারের সন্তান সেলিম এক সময়ে দোকানের বারান্দায় বসে ’মোবাইলকল’ ব্যবসা করতেন। এক সময়ে তিনি ইলেক্ট্রনিক্স পন্য ব্যবসা জড়িত হন। তার বিরুদ্ধে ক্রেতা ঠকানোর অসংখ্য অভিযোগ রয়েছে।

Developed By The IT-Zone