ঢাকাশনিবার , ২৩ নভেম্বর ২০১৯
আজকের সর্বশেষ সবখবর

কেয়া চৌধুরী’র শাড়ির আঁচল নিয়ে অশালিন মন্তব্য আবু জাহির এমপি’র! প্রতিবাদ করায় মনা দেবকে নাজেহাল

অনলাইন এডিটর
নভেম্বর ২৩, ২০১৯ ১২:১৭ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

বিশেষ প্রতিবেদন।। গতকাল বৃহস্পতিবার হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের কার্যকরী কমিটির সভায় সাবেক এমপি কেয়া চৌধুরীকে ১১ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিতব্য কাউন্সিলে কাউন্সিলর/ডেলিগেট করা না করা নিয়ে ব্যাপক গোলযোগের খবর পাওয়া গেছে। নাম  প্রকাশ না করার শর্তে  সভায় উপস্থিত বেশ কয়েকজন নেতা বিষয়টি সুনিশ্চিত করেছেন।

ছবিঃ কেয়া চৌধুরীর আবেদনের কপি।

গত ১২ নভেম্বর ২০১৯ তারিখ সাবেক এমপি কেয়া চৌধুরী হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগ বরাবর তাকে আগামী কাউন্সিলে কাউন্সিলর/ডেলিগেট করার জন্য একটি আবেদন দেন। আবেদনটি জেলা কমিটির দপ্তর সম্পাদক মোঃ আলমগীর খান গ্রহন করেন। গতকাল কার্যকরী কমিটির সভায় এই আবেদন বিষয়ে কথা বলতে গিয়ে জেলা সভাপতি আবু জাহির এমপি কেয়াকে উদ্দেশ্য করে অশ্রাব্য গালিগালাজ করতে থাকেন। এক পর্যায়ে তিনি জেলা আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক অনুপ দেব মনাকে ইংগিত করে  বলেন যে, কেয়া  চৌধুরীর শাড়ির আঁচলের নিচে আমাদের হবিগঞ্জে কিছু নেতা আছেন যারা কেয়াকে আশ্রয় প্রশ্রয় দিচ্ছে। অথচ ২০১৬ সালেই জেলা আওয়ামী লীগের এক রেজুলেসনে কেয়া চৌধুরীকে হবিগঞ্জ আওয়ামী লীগ থেকে অপাংক্তেয় ঘোষণা করা হয়েছে।

এই পর্যায়ে অনুপ দেব মনা সম্মানের সহিত আবু জাহির এমপিকে থামিয়ে দিয়ে এই অশালিন বক্তব্যের প্রতিবাদ করে বলেন যে, একজন মাননীয় নেতার মুখে সভায় অনুপস্থিত আরেকজন সাবেক এমপিকে উদ্দেশ্য করে এরকম মন্তব্য খুবই বেমানান।

মনা দেবের প্রতিবাদের সাথে সাথে আবু জাহির উত্তেজিত হয়ে উঠে বলেন যে মনাকে গলায় পারা দিয়ে জিহবা বের করে ফেলবেন। এমতাবস্থায় সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মজিদ খান এমপি পরিস্থিতি সামাল দেওয়ার চেষ্টা করলে তাকে ও ধমক দেন আবু জাহির এমপি, ”আপনি ও কি তাহলে কেয়া চৌধুরী ও মনাকে সাপোর্ট দেন নাকি?”

পরবর্তীতে সভায় উপস্থিত সিনিয়র শহীদ চৌধুরী মনা দেবকে আবু জাহির এমপির কাছে ক্ষমা চাইতে বলেন। মনা দেবকে শুধু আবু জাহির এমপির কাছে নয়, সারা হাউজের কাছে তিন তিনবার ক্ষমা চাওয়ানো হয়।

এই বিষয়ে কেয়া চৌধুরীর সাথে ”আমার হবিগঞ্জ” এর পক্ষ থেকে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন যে, এতোবড়ো একটা ঘটনা ঘঠে গেল কিন্তু হবিগঞ্জের একটা পত্রিকাও এই বিষয়টি আমলে নিয়ে নিউজ করলো না এটাই আমার কাছে বড় দুঃখের। আর জাহির সাহেব আমাকে নিয়ে আমার অনুপস্থিতিতে যে অশালিন বক্তব্য দিয়েছেন তা মুখে উচ্চারণ করা ও  আমার পক্ষে অপমানজনক। আমি এই ঘটনার তীব্র নিন্দা জানাই।

জেলা আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক  অনুপ দেব মনাকে এই বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এই বিষয়ে আমার কোন বক্তব্য দেওয়ার এখতিয়ার নাই।

এই বিষয়ে মন্তব্য নেওয়ার জন্য জেলা সভাপতি আবু জাহির এমপি’র সাথে ইমেইলের মাধ্যমে যোগাযোগের চেষ্টা করা হয়েছে এবং মন্তব্য পাওয়া মাত্র হুবুহু যুক্ত করা হবে।

Developed By The IT-Zone