ঢাকাবুধবার , ৪ ডিসেম্বর ২০১৯
আজকের সর্বশেষ সবখবর

কেয়া চৌধুরীকে ‘রক্ষিতা’ উল্লেখ করে ফেইসবুকে অশ্লীল আক্রমন

অনলাইন এডিটর
ডিসেম্বর ৪, ২০১৯ ৫:৩২ অপরাহ্ণ
Link Copied!

বিশেষ প্রতিবেদন।। সংরক্ষিত নারী আসনের সাবেক সংসদ সদস্য ও ১১ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিতব্য হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগে সভাপতি পদপ্রার্থী আমাতুল কিবরিয়া কেয়া চৌধুরী তার এক ফেইসবুক পোস্টে জনৈক এমপির ভাতিজাদের নেতৃত্বে তাকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অশ্লীল ভাষায় আক্রমনের অভিযোগ করেছেন।

সৈকত দেব নাথ  নামের একটি ফেইসবুক আইডিতে পরপর দু’টি পোস্টে কেয়া চৌধুরীকে উদ্দেশ্য করে লেখা হয়, ভাইয়েরা আমার মনে হয় টাকার বিনিময়ে তিনি বিছানা গড়ম করে তাই তো সেই টাকা এই অট্রালিকা তৈরি করতে পারছে বা তিনি যখন এমপি ছিলেন জনগনের টাকা মাইরা এই অট্রালিকা তৈরি করছে। আরেকটি পোস্টে কেয়া চৌধুরীকে জনৈক ব্যক্তির রক্ষিতা উল্লেখ করে লেখা হয়, কেয়া চৌধুরী তিন চারটি বিয়ে করেছেনসহ আরো অনেক অশ্লীল কথা। প্রথম পোস্টটি এই নিউজ লেখা পর্যন্ত এখনো বহাল আছে যদিও ২য় পোস্টটি পরবর্তীতে মুছা হলেও এর স্ক্রিনশট দৈনিক আমাদের হবিগঞ্জ পত্রিকায় সংরক্ষিত আছে। সৈকতের দেওয়া পোস্টগুলো পৌর ছাত্রলীগ সভাপতি রবিনকে ট্যাগ করা এবং পোস্টগুলোতে রবিনের লাইক ও দেখতে পাওয়া যায়।

ছবিঃ সৈকত দেবনাথের প্রথম ফেইসবুক পোস্ট। 

দৈনিক আমার হবিগঞ্জের অনুসন্ধানে দেখা যায়, সৈকত দেবনাথ হবিগঞ্জ পৌর ছাত্রলীগের কর্মী এবং পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি ফাইজুর রহমান রবিনের একান্ত সহচর।  সৈকতকে জনৈক এমপি মহোদয়ের সাথে ও বিভিন্ন ছবিতে ঘনিষ্টভাবে দেখতে পাওয়া যায়।

ছবিঃ সৈকত দেবনাথের ২য় পোস্ট যা পরবর্তীতে মুছে ফেলা হয়।

সৈকত দেবনাথের ফেইসবুকে প্রদত্ত তথ্য মোতাবেক সে যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক, মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ, হবিগঞ্জ জেলা শাখা এবং বাংলাদেশ ছাত্র ঐক্য পরিষদ, সদস্য হবিগঞ্জ জেলা শাখা। তার পিতার নাম সুনিল দেবনাথ। সে হবিগঞ্জ সদরের যশোহর আব্দা এলাকার ভৈরব গাছ তলার কাছে তার মামার বাসায় থাকে।

Image may contain: 2 people

ছবিঃ পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি রবিনের সাথে সৈকত দেবনাথ।

ফেইসবুকে কেয়া চৌধুরী অভিযোগ করে লিখেন, গত কাল হতে আমি খেয়াল করছি, আবু জাহির সাহেবের ভাতিজাদের নেতৃত্বে কিছু বিপথগামী যুবক আমাকে নিয়ে অশ্লীল ভাষায় ফেসবুকে লিখছে। যার মাধ্যমে তারা কি শিক্ষা নিচ্ছেন, তাদের রাজনৈতিক শিক্ষাগুরু আবু জাহির সাহেব হতে তা স্পষ্টতর। বিবেকবান মানুষ একে দেখছে, রাজনৈতিক শিষ্টাচার বহির্ভূত বিষয় হিসাবে । এসব লিখে, ভয় দেখিয়ে কেয়া চৌধুরী কে রাজনীতির মাঠ হতে সরানো যাবেনা, তা কেন যেন তারা বুঝতে পারছেন না।

এই ব্যাপারে কেয়া চৌধুরীর সাথে দৈনিক আমার হবিগঞ্জের পক্ষ থেকে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, ফেইসবুকে আমার বিরুদ্ধে যে অশ্লীল আক্রমন হচ্ছে এই বিষয়ে আমি অবগত আছি। আমার নেতা কর্মীরা যারা এসব নোংরামীর প্রতিবাদ করছে তাদেরকেও নানাভাবে হুমকী দেওয়া হচ্ছে। আমি সামগ্রিক বিষয়ে হবিগঞ্জ জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারকে অবহিত করেছি।

ছবিঃ কেয়া চৌধুরীর ফেইসবুক পোস্টের স্ক্রিনশট।

এই বিষয়ে সৈকত দেবনাথের সাথে দৈনিক হবিগঞ্জের প্রতিনিধি যোগাযোগ করা হলে, সৈকত স্বীকার করেছেন যে তিনি অভিযোগকৃত পোস্টগুলো লিখেছেন । সৈকত দেবনাথের এই বিষয়ের স্বীকারোক্তির অডিও দৈনিক আমার হবিগঞ্জের কাছে সংরক্ষিত আছে।

সৈকত দেবনাথ নাথে পৌর ছাত্রলীগে কেউ আছে কিনা এই বিষয়ে হবিগঞ্জ পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি ফাইজুর রহমান রবিন বলেন, পৌর ছাত্রলীগের ১১ সদস্য বিশিষ্ট যে অনুমোদিত কমিটি আছে সেখানে সৈকত দেবনাথ নামে কেউ নাই। তবে সৈকত নামে পৌর ছাত্রলীগে সম্ভবত একজন কর্মী আছে।

আপডেটঃ

দৈনিক আমার হবিগঞ্জে এই নিউজ প্রকাশিত হওয়ার কিছুক্ষন পর উল্লেখিত সৈকত আরেকটি ফেইসবুক পোস্ট দিয়ে বলেন যে, আমাকে ভয় দেখিয়ে নিউজ করিয়ে বা মামলা করে দমিয়ে রাখা যাবে না। এই পোস্টেও হবিগঞ্জ পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি রবিনকে ট্যাগ করতে দেখা যায়। পোস্টে সৈকত হবিগঞ্জ সদর আসনের সংসদ সদস্যের সাথে তার একটি ছবিও শেয়ার করেন।

Developed By The IT-Zone