ঢাকাসোমবার , ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১
আজকের সর্বশেষ সবখবর

কেমন ই-কমার্স পলিসি চাই আমরা?

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
সেপ্টেম্বর ২৭, ২০২১ ৬:৫৩ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

সুমন দেব নাথ :  “ই–কমার্সে নতুন আইন ও নিয়ন্ত্রক সংস্থা চান না উদ্যোক্তারা” এইটাইপের খবরের শিরোনাম শরীররে শিহরন জাগায়। মনে প্রশ্ন আসে, এরা কি আসলেই উদ্যোক্তা নাকি ‘ডাকাত’ এর নতুন সংস্করণ? ই–কমার্স নিয়ন্ত্রনে নতুন আইন হলে সমস্যা কি? পঞ্জি স্কিম ও MLM টাইপের যে কোন ব্যবসা যেন এদেশে আর কেউ করতে না পারে অতিস্বত্তর তার ব্যবস্থা নেয়া হোক।

কেমন ই-কমার্স পলিসি চাই আমরা?

 

 

 

ছবি : সুমন দেব নাথের ফাইল ছবি

 

 

 

১) ই-কমার্স টাইপের বিজনেসের জন্য লাইসেন্স যেনো পৌরসভা কিংবা সিটি কর্পোরেশনের অফিস থেকে দেয়া না হয়।

২) সব ধরনের ই-কমার্স টাইপের বিজনেসের লাইসেন্স দিবে সরাসরি বানিজ্য মন্ত্রনালয় নতুন আইনের প্রেক্ষিতে।

৩) ই-কমার্স কোম্পানি তাদের ডিটেইল্ড বিজনেস মডেল ও কিভাবে তারা আয় ও ব্যায় নির্বাহ করবে তা তাদের বিজনেস পলিসিতে লিখে বানিজ্য মন্ত্রনালয়ে জমা দিবে।

৪) ই-কমার্স কোম্পানি দেশের নির্দিষ্ট এলাকা ভেদে ডেলীভারির টাইমফ্রেম দিবে, উক্ত টাইমফ্রেমের ভিতরে কোন যৌক্তিক কারন ছাড়া ডেলিভারি না দিতে পারলে গ্রাহককে ক্ষতিপূরণ দিবে।

৫)কোন ই-কমার্স কোম্পানী সরাসরি গ্রাহকদের কাছে থেকে টাকা নিতে পারবে না। তারা টাকা নিবে কোন থার্ডপার্টি নিয়ন্ত্রক সংস্থার (বাংলাদেশ ব্যাংক) কাছে থেকে যখন গ্রাহক বলবে যে সে পণ্য পেয়েছে কিংবা গ্রাহক পন্য হাতে পাওয়ার পর ক্যাশ অন ডেলিভারী।

৬)ডিস্টেন্স অর্থাৎ অনলাইন সেলিং এর ক্ষেত্রে গ্রাহককে ক্রয়কৃত পণ্য ফেরত কিংবা রিফান্ড দেয়ার জন্য ১৪ দিন সময় দেয়া যাতে ই-কমার্স কোম্পানি আন্ডার কোয়ালিটি পণ্য ডেলিভারী দিয়ে গ্রাহক ঠকাতে না পারে।

৭)ই-কমার্স কোম্পানী সুস্পষ্ট রিফান্ড পলিসি নির্ধারন করা যেমন পণ্য খরিদ করতে গ্রাহকে যে মাধ্যম ব্যবহার করে পে করেছিলো সেই একই মাধ্যমে ফেরত/রিফান্ড পাবে। রিফান্ড বা পণ্য ফেরত দিলে কুরিয়ার খরচ কে বহন করবে তা নির্ধারণ করা।

৮)কম্পিটিশন কমিশন গঠনের মাধ্যমে ই-কমার্স কোম্পিনিগুলো মনিটরিং করা। এই কমিশনের কাজ হবে কোন ই-কমার্স কোম্পানি বিভিন্ন চটকদার বিজ্ঞাপন দিয়ে যে কোন পণ্য বাজার থেকে ওভার প্রাইস কিংবা আন্ডার প্রাইসে বিক্রি করলে সাথে সাথে ঐ ই-কমার্স সাইটের ডোমেইন ব্লক করে রাখা নির্দিষ্ট সময়ের জন্য। এই কমিশন অনলাইন বাজারে আনফেয়ার কম্পিটিশন মনিটরিং করবে।

৯)ই-কমার্স কোম্পানী তাদের পন্যের বিজ্ঞাপনে, তাদের পণ্যের গুনগত মান ও পণ্যের গুনগত বৈশিষ্ট স্ববিস্তারে উল্লেখ করবে। এবার এই পণ্যের গ্রাহক যদি বর্ণনার সাথে বিক্রিত পণ্যের মিল না পায় তাহলে সে ফুল রিফান্ড চাইতে পারবে। যা ই-কমার্স কোম্পানী ১৪ দিনের ভিতরে রিফান্ড করবে।

১০)অনলাইনে ক্রয়কৃত পণ্য ডেলিভারীর জন্য কখন, কোথায়, কোন অবস্থায় আছে তার ডিটেইল্ড টাইমলাইন রিয়েল টাইমে ক্রেতা যেন অনলাইনে দেখতে পারে সেই তথ্য ক্রেতাকে ট্রাকিং ইনফরমেশন নামে ক্রেতাকে প্রধান করবে।

১১)অনলাইনে বিক্রিত পণ্যের ওয়ারেন্টি/গ্যারান্টি সম্পর্কিত বিস্তারিত তথ্য গ্রাহককে বুঝিয়ে দেয়া। যেমন ক্রয়কৃত পণ্যে কোন সমস্যা দেখা দিলে ক্রেতা কখন কার কাছে পণ্যটি নিয়ে যাবে এবং কতদিনের ভিতরে তা আবার ফেরত পাবে? আর পণ্যটি মেরামত অযোগ্য হলে রিফান্ড কিংবা রিপ্লেসমেন্ট কিভাবে পাবে?

 

আশাকরি উপরোক্ত পদক্ষেপ গুলো ই-কমার্সে পলিসি হিসাবে গ্রহন করলে এই খাতের বর্তমান অরাজকতা দূর করা সম্ভব হবে বলে মনেকরি।

ইংল্যান্ড প্রবাসী সাংবাদিক ও অনলাইন এক্টিভিষ্ট

Developed By The IT-Zone