ঢাকাবুধবার , ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

কালের বিবর্তনে হারিয়ে যাচ্ছে শিশুদের সকালের “মক্তব”

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
ফেব্রুয়ারি ২৬, ২০২০ ৬:১২ অপরাহ্ণ
Link Copied!

সৈয়দ হাবিবুর রহমান ডিউক,হবিগঞ্জ:   কালের বিবর্তনে হারিয়ে যাচ্ছে শিশুদের সকালের মক্তব।শিশুদের ইসলামী শিক্ষায় জ্ঞান অর্জনের প্রথম ধাপ হচ্ছে সকালের মক্তব। বর্তমান প্রজন্মের অনেকে ছেলে মেয়েরাই সহী করে পড়তে জানেনা পবিত্র কোরআন শরীফ।

আগের মত এখন আর কচিকাচা শিশুদের কোরআন শিক্ষার জন্য মক্তবে যেতে দেখা যায় না। কালিমা আর আলিফ,  বা তা, চা এর শব্দে মুখরিত হয়ে উঠে না জনপদ, কালিমার উচ্চস্বরের মাইকের আওয়াজে ঘুম ভাংগেনা শিশুদের। আগেকার গ্রাম বাংলার ঐতিহ্য ছিল কোরআন শুদ্ধ করে পড়তে জানে এমন মেয়েই হবে ঘরনী। যাতে করে বাড়িঘর বরকত ময় হয়ে উঠে। মক্তব একটি আরবী শব্দ, এর শাব্দিক অর্থহল পাঠশালা, শিশুদের কোরআন শিক্ষা এবং ইসলাম ধর্মের প্রাথমিক জ্ঞান অর্জন করা মুসলিমদের জন্য ফরয। এখানে শিশুরা কোরআন তেলাওয়াতের পাশাপাশি নামাজ, রোযা অন্যান্য মাসালাহ সম্পর্কে জ্ঞান অর্জন করবে।বর্তমান প্রজন্মের শিশুদের অভিবাবকদের অবহেলার কারণে মসজিদের ইমাম সাহেবরা মক্তব শিক্ষায় আগ্রহ হারিয়ে ফেলেছেন। যার কারণে,এলাকার ক্ষুদে শিক্ষার্থীরা বঞ্চিত হচ্ছে ইসলামের আলো থেকে।

সুরাবই গ্রামের কয়েকটি মাদ্রাসায় খোজ নিয়ে দেখা যায় যে, কোন মাদ্রাসায়ই মক্তব শিক্ষা দেয়া হয়না, তবে গ্রামের ভিতরে কোন কোন বৃদ্ধ দাদীরা কিছু কিছু বাচ্চাদেরকে প্রতিদিন সকালে মক্তব পড়ান। বুধবার (২৬ফেব্রুয়ারি) দুপুর ২টায় এ ব্যাপারে কথা হয়, সুরাবই হাফিজিয়া মাদ্রাসার শিক্ষক হাফেজ মো জাকির হোসেনের সাথে,কেন হারিয়ে যাচ্ছে মক্তব এ ব্যাপারে জিজ্ঞাসা করলে তিনি বলেন, এলাকার অভিবাবকরা  শিশুদেরকে সকালে কোচিং করানোর জন্য এবং মর্নিং শিফটের স্কুল থাকায় ই আজ ধর্মীয় জ্ঞান অর্জন করা ফরয থাকা সত্ত্বে ও এখনকার প্রজন্ম ইসলামী শিক্ষা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। এ বিষয়ে তিনি দু:খ  প্রকাশ করেছেন। অনিয়ন্ত্রিতকিছু কিন্ডার গার্ডেনের জন্যই শিশুদের মক্তব হারিয়ে যাওয়ার কারণ মনে করেন সবাই। এলাকার প্রতিটি মসজিদ মাদ্রাসা কমিটি সম্মিলিতভাবে উদোগ নিলেই শিশুরা ধর্মীয় শিক্ষায় সুশিক্ষিত হয়ে উঠতে পারত।

 

Developed By The IT-Zone