ঢাকামঙ্গলবার , ২৮ এপ্রিল ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

কালের বিবর্তনে হারিয়ে যাচ্ছে ডাকবাক্স

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
এপ্রিল ২৮, ২০২০ ১২:৩৫ অপরাহ্ণ
Link Copied!

মোঃ খায়রুল ইসলাম সাব্বির :    রানার চলেছে তাই ঝুম ঝুম ঘন্টা বাজছে রাতে….” কবি সুকান্তর এই কবিতাটি পরবর্তীকালে গান হয়ে লোকের মুখে মুখে ঘুরত। রানার অর্থাৎ ডাকহকাররা এক সময় দূর-দূরান্তে সংবাদ আদান-প্রদানে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতেন। প্রাচীনকালে যাতায়াতের বা যোগাযোগের তেমন সুব্যবস্থা ছিল না। প্রিয়জনদের কথা পৌঁছে দিতে এরাই ছিল একমাত্র ভরসা। ভয়কে তুচ্ছ করে, জীবন বিপন্ন করে এরা যে কত লোকের সুখ-দুঃখের কথা গ্রাম থেকে গ্রামে পৌঁছে দিত তার কোনও হিসেব নেই।

সংবাদ আদান-প্রদান শুধু মানুষই করে তা নয়। পশু, পাখিদের দিয়ে ও চিঠি আদান প্রদান করানো হতো তারা এই কাজটি সারে ধ্বনির মাধ্যমে পৌছে দিত বিভিন্ন ধরনের পাখি ডাকের জন্য ব্যবহার করা হতো পায়রা । এবং তার পরে আসে ডাকে মাধ্যম তখন ড্রাম জাতীয় কোনও বাজনা বাজিয়ে সংবাদ প্রেরণ করতো ডাকবাহকরা । সংবাদ দেওয়া নেওয়ার এই পদ্ধতিগুলি ছোট ছোট এলাকার মধ্যে ঠিক ছিল। সভ্যতার অগ্রগতির সাথে সাথে সংবাদ আদান-প্রদানের এই সীমানা বাড়তে থাকে। কিন্তু আধুনিক যুগে মাটি চাপা পরে গেছে চিঠি প্রচল তখন মানুষের প্রয়োজন হল অন্য কারও সাহায্য নেওয়া। চালু হলো মোবাইল ফোন,এস এম এস,ইমেইল যা মুহূর্তের মধ্যে পৌঁছে যায় প্রিয় জনের কাছে।  প্রয়োজন হয় না ডাক বাক্স বা বাহকের অপেক্ষা করতে হয় না দীর্ঘ দিন ।

ছবি : এক সময়কার চিঠি আদান প্রদানের মাধ্যম এই ডাকবাক্স আজ মূল্যহীন

কালের বিবর্তনে হারিয়ে গেছে চিঠি প্রচলন নেই ডাক বাক্স। নোংরা আবস্থায় কয়েকটি ডাকবাক্স পরে থাকলে ও নেই চিঠি। হারিয়ে যাচ্ছে আমাদের ঐতিহ্য। মাঠি চাপা পরে গেছে হাজারো প্রেমিক প্রেমিকার স্মৃতি। ভালো আছি ভালো থেকো আকাশে ঠিকানায় চিঠি লিখ, কী ভাবছেন প্রিয় জনের চিঠি আসবে আর আসবে না। হাতের লেখা চিঠি হারিয়ে গেছে হাজারো আধুনিক সভ্যতার ভিড়ে। হবিগঞ্জ প্রধান ডাক ঘরের একজন কর্মকতা মোঃ রায়হান আরমান তিনি দৈনিক আমার হবিগঞ্জ কে জানান এক সময় অনেক চিঠি আদান প্রদান হতো।  কিন্তু এখন আর হয় না। ডাক মাধ্যম আছে কিন্তু নেই চিঠি ডাক ব্যবহার করা হয় অন্য কাজে যেমন পারসেল, পরীক্ষার খাতা ইত্যাদি বিভিন্ন জায়গায় জায়গায় পৌছানো হয়।

Developed By The IT-Zone