ঢাকাসোমবার , ৩০ ডিসেম্বর ২০১৯
আজকের সর্বশেষ সবখবর

কালের আবর্তে হারিয়ে যাচ্ছে মৃৎশিল্প

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
ডিসেম্বর ৩০, ২০১৯ ৪:৫৩ অপরাহ্ণ
Link Copied!

সৈয়দ হাবিবুর রহমান ডিউক :   শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার নুরপুর ইউনিয়নের সুরাবই গ্রামের কুমারহাটির মৃৎশিল্প একসময় অত্র এলাকার মাঝে বিখ্যাত ছিল। আধুনিকতার ছোঁয়ায় দৈনন্দিন জীবনে ব্যাবহার্য আসবাবপত্রের অবকাঠামোগত পরিবর্তনের ফলে মৃৎশিল্প থেকে মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছে ব্যাবহারকারীরা । ফলে মৃৎশিল্পিরাও বাজার হারিয়ে বেকার হতে বসেছে। এখন আর খুব একটা চোখে পড়ে না মৃৎশিল্পের নকশা করা নানান রকম বাহারী সামগ্রী। মৃৎশিল্পীরা কোন রকমে টিকিয়ে রেখেছেন পূর্ব পুরুষের এই ঐতিহ্য,বাজার হারানো, আয়ের সাথে ব্যয়ের অসঙ্গতি আর জীবন মান উন্নয়নের ফলে অন্য পেশার দিকে ঝুকে পড়ছেন তারা। মৃৎশিল্পের চাহিদার অবনতি সহ নানা জটিলতায় সংকীর্ণ হচ্ছে এ শিল্পের স্থায়িত্বের পথ।

মৃৎশিল্প পেশার সাথে জড়িত প্রায় সবাই ছিল হিন্দু সম্প্রদায়ের। একসময় একসময় বাড়ি বাড়ি গিয়ে মাটির হাড়ি পাতিল বিক্রি করতেন দিনেশ পাল, তিনি মারা যাওয়ার পরে উনার ছেলেরা ও এভাবেই বিক্রি করতেন, কিন্তু এখন আর গ্রামে গ্রামে গিয়ে বিক্রি করতে দেখা যায় না তেমন কাউকে। সুরাবই কুমারহাটির শ্যামসুন্দরপাল জানান, পহেলা বৈশাখে মাটির খাবারের বাসন বানানের অর্ডার পড়ে, তখন প্রতিবছরই চারশত থেকে পাঁচশত বাসন তৈরী করেন তিনি। বর্তমানে মৃৎশিল্পিরা বেশীর ভাগ সময় ক্ষুদ্র পরিসরে ফুলের টব, খেলনা, মাটির ব্যাংক সহ ইত্যাদি জিনিস তৈরী করছে। অধিকাংশ সময় বেকার থাকলেও পহেলা বৈশাখ ঘনিয়ে আসার সঙ্গে সঙ্গে কুমার পাড়াগুলোতে মাটির তৈরি বাহারি জিনিসপত্র তৈরির ধুম পড়ে যায়। ছেলে-বুড়ো সবাই ব্যস্ত হয়ে পড়েন মাটির জিনিসপত্র তৈরিতে।

কালের পরিক্রমায় মৃৎশিল্পের কদর কমে গেলেও এই কুমারপাড়ার কয়েকটি পরিবার নানা প্রতিকূল অবস্থার মধ্যেও মৃৎশিল্পকে টিকিয়ে রেখেছে। এর মাঝে বিশেষ করে অনুলাল পাল, অনুকুল পাল, শ্যামসুন্দর পালের পরিবার হাড়িপাতিল বিক্রি করেই তাদের সংসার চালান।তারা কারুকার্য খচিত মাটির তৈরি হাড়ি পাতিল, কলসি, কড়াই, সরা, মটকা, পেয়ালা, বাসন-কোসন, মাটির ব্যাংকসহ নিত্য প্রয়োজনীয় নানা রকমারী তৈজসপত্র তৈরি করছেন। সপ্তাহে দুইদিন প্রতি রবিবারে ও বুধবারে সুতাং বাজারে তারা এগুলো বিক্রি করেন। মাটির সামগ্রীর চেয়ে টেকসই সামগ্রীর সহজলভ্যতার কারণে মৃৎশিল্পের চাহিদা নেই। তাই অনেকে ঐতিহ্যগত পৈতৃক পেশা ছেড়ে অন্য পেশা বেছে নিয়েছেন। জানা গেছে, যারা এখনো পৈত্রিক পেশাকে আকড়ে ধরে রেখেছেন তারা অতিকষ্টে তাদের জীবিকা নির্বাহ করে থাকেন। এসব দরিদ্র কুমার পরিবারগুলোর আর্থিক সংগতি না থাকায় তারা অধিক মাটি কিনে বেশি পরিমাণে জিনিস উৎপাদন করতে পারেন না। ফলে তারা খুব বেশি লাভবান হতে পারছেন না। এতে অর্থনৈতিকভাবে তারা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন।

 

তারা জানান, তাদের পূর্বপুরুষের সবাই এ পেশায় নিয়োজিত ছিলেন। এটা তাদের জাত ব্যবসা হলেও এখন অনেকে এ ব্যবসা ছেড়ে অন্য ব্যবসা ধরেছেন। অনুকুল পাল জানান, মৃৎশিল্পের প্রয়োজনীয় এঁটেল মাটি এখন টাকা দিয়ে কিনে আনতে হয়। তাছাড়া মাটির তৈরি সামগ্রী পোড়ানোর জন্য জ্বালানির খরচ আগের চেয়ে অনেক বেশি। চাহিদা অনুযায়ী এখন শুধু মাটির তৈরি ফুলের টব, কলকি ও দইয়ের পাত্র তৈরি হচ্ছে। তাও প্রয়োজনের তুলনায় খুবই কম। এক যুগ আগেও এই কুমার পাড়ায় শতাধিক পরিবার এ শিল্পের সাথে জড়িত ছিল। মৃৎশিল্প হারিয়ে যাওয়ার ফলে এ শিল্পের সাথে জড়িত পরিবারগুলোতে বেকারত্বের সংখ্যা বেড়েছে।

 

এক সময়ের অতি প্রয়োজনীয় মাটির বাসন-কোসন এখন আর গেরস্তের ঘরে খুঁজে পাওয়া যায় না। কালের বিবর্তনে এখন গ্রামাঞ্চলেও চলে এসেছে আধুনিক সব তৈজসপত্র। ফলে গ্রামবাংলার ঐতিহ্য সানকি পাতিলের দেখা এখন মেলে না। কিছু হিন্দু পাল সম্প্রদায়এখনও তাদের বংশগত ঐতিহ্যকে ধরে রাখার শেষ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। সারাদিন কায়িক শ্রমের বিনিময়ে তারা যা পান তা দিয়ে পরিবার পরিজন নিয়ে কোনভাবে সংসার টিকিয়ে রেখেছেন। তাদের ছেলেমেয়েদের লেখাপড়া, সামাজিক অুনষ্ঠানসহ অর্থনৈতিকভাবে মোটেই স্বচ্ছল নয়। ফলে পৈত্রিক পেশায় নিয়োজিত কুমাররা চরম বিপাকে পড়েছেন। গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী এ শিল্পকে বাচিয়ে রাখতে সরকারি পৃষ্ঠপোষকতা অধিক প্রয়োজন। তা না হলে অচিরেই এ শিল্প পরিণত হবে ইতিহাসে।

Developed By The IT-Zone