ঢাকারবিবার , ৭ আগস্ট ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

কানাডায় সড়ক দুর্ঘটনায় বীর ‍মুক্তিযোদ্ধা সুরঞ্জন দাশের মৃত্যু : বিভিন্ন মহলের শোক

বিশেষ প্রতিনিধি
আগস্ট ৭, ২০২২ ১২:৩৮ অপরাহ্ণ
Link Copied!

দৈনিক মাতৃভূমি পত্রিকার সাবেক প্রকাশক বীর মুক্তিযোদ্ধা মেজর (অব.) সুরঞ্জন দাশ (৮২) ও তার স্ত্রী সুপর্ণা দাশ (৭০) কানাডায় এক সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হয়েছেন। বাংলাদেশ সময় শনিবার (৬আগস্ট) ভোরে কানাডার ভ্যানকুভারে এই সড়ক দুর্ঘটনার ঘটনা ঘটে।

মেজর (অব.) সুরঞ্জন দাসের আত্মীয় নবীগঞ্জ উপজেলার করগাঁও ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নির্মলেন্দু দাশ রানা জানান, তাদের মরদেহ দেশে আনা হবে কিনা তা নিয়ে আলোচনা হচ্ছে। এখনও কোন সিদ্ধান্ত হয়নি। তার এক ছেলে ও এক মেয়ে কানাডায় চিকিৎসক হিসেবে কর্মরত।

হবিগঞ্জের কৃতি সন্তান ও নবীগঞ্জ কীর্তি নারায়ণ কলেজের প্রতিষ্ঠাতা সুরঞ্জন দাশ উপজেলার ঘুমঘুমিয়া গ্রামের একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা। মুক্তিযুদ্ধ শুরুর সময় তিনি চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র ছিলেন। পরে তিনি ভারতের মেঘালয়ে অবস্থিত ইকো-ওয়ান প্রশিক্ষণ ক্যাম্পে প্রশিক্ষণ নিতে সীমান্ত অতিক্রম করে ৫ নং সেক্টরের অধীনে মুক্তিবাহিনীতে যোগ দেন।

পাকিস্তানী সেনারা তার বাড়ি ঘরে হামলা চালিয়ে সবকিছু জ্বালিয়ে দেয় এবং আশে পাশে থাকা তার ভাই ও বৃদ্ধ খালুসহ অনেক আত্মীয়-স্বজনকে হত্যা করে। যুদ্ধ শেষে দেশ স্বাধীন হলে সুরঞ্জন দাশ বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে যোগ দেন এবং পরে অবসর গ্রহণ করেন।

তিনি ঢাকা থেকে প্রকাশিত দৈনিক মাতৃভূমি পত্রিকার প্রকাশক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। পরে তিনি কানাডায় স্থায়ীভাবে বসবাস করলে এলাকায় কলেজ প্রতিষ্ঠাসহ বিভিন্ন সামাজিক কর্মকান্ডে নিয়মিত অংশ নিতেন।

বীর মুক্তিযোদ্ধা সুরঞ্জন দাশের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করে আমার হবিগঞ্জ পত্রিকার প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক ও প্রকাশক সুশান্ত দাস গুপ্ত বলেছেন, ‘সম্মুখ সমরের বীর সেনানী, নির্ভীক ও স্পষ্টভাষী হবিগঞ্জ তথা বাংলাদেশের সূর্য সন্তান বীর মুক্তিযোদ্ধা মেজর সুরঞ্জন দাশ সস্ত্রীক কানাডায় এক মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনায় শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করে পৃথিবী ছেড়ে চলে গেছেন।

উনাদের এমন প্রয়াণে আমি নির্বাক ও গভীরভাবে শোকাহত! বিদেহী আত্মার চিরশান্তি কামনাসহ শোক-সন্তপ্ত পরিবারের সকলের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন করছি। উল্লেখ্য, মেজর সুরঞ্জন দাশ আমার বাবার ঘনিষ্ঠ বন্ধু ছিলেন। তিনি ও আমার বাবা ছাত্রজীবনে হবিগঞ্জে এক মেসে থাকতেন। শুধু তাই নয়, তিনি আমার মা-বাবার বিয়ের ঘটকও ছিলেন’।

বীর মুক্তিযোদ্ধা সুরঞ্জন দাশের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করে সাবেক এমপি আমাতুল কিবরিয়া কেয়া চৌধুরী লিখেছেন, বীর মুক্তিযোদ্ধা, সমাজসেবক মেজর (অব:) সুরঞ্জন দাশ ও ঊনার সহধর্মিণীর অকাল মৃত্যুতে আমরা গভীরভাবে শোকাহত। এই ক্ষতি অপূরণীয়। নবীগঞ্জবাসী কখনও তাঁকে ভুলতে পারে না।

আমরা তাঁর স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করছি। বীর মুক্তিযোদ্ধা সুরঞ্জন দাশের মৃত্যুতে লেখক ও মুক্তিযুদ্ধ গবেষক হাসান মোরশেদ লিখেছেন, বোন ফিরে যাচ্ছে কানাডায়। তাকে এয়ারপোর্টে বিদায় জানিয়ে ফেরার সময়ই কানাডা থেকে খবর পেলাম আরেক অপ্রত্যাশিত বিদায়ের। সড়ক দুর্ঘটনায় সস্ত্রীক নিহত হয়েছেন আমার পিতৃতুল্য বীর মুক্তিযোদ্ধা মেজর( অব:) সুরঞ্জন দাশ।

এ বেদনা আমার জন্য বহনের অধিক। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র অবস্থায় অংশ নিয়েছিলেন মুক্তিযুদ্ধে। বীরত্বের সাথে যুদ্ধ করেছেন ৫ নং সেক্টরের শেলা সাবসেক্টরে। স্বাধীনতার পর যোগ দিয়েছিলেন বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে। মুক্তিযুদ্ধে যাওয়ার অপরাধে তাঁর বাড়িয়ে পুড়িয়ে দিয়েছিলো, তাঁর চাচাকে হত্যা করেছিলো রাজাকারেরা।

সেই রাজাকারদের শীর্ষ পাণ্ডার পুত্রটি এখন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক। ২০১৮ এর এক শীতের রাতে হবিগঞ্জের নবীগঞ্জের হাওরের মতো এক বিস্তীর্ণ এলাকায় বানানো তাঁর বাংলো বাড়িতে এসব সাক্ষ্য দিচ্ছিলেন আমাকে, উত্তম স্কচে চুমুক দিতে দিকে।

সেই সাক্ষ্য আমাদের জেনোসাইড আর্কাইভে সংরক্ষিত আছে। নিজের বাবার নামে প্রত্যন্ত গ্রামে কলেজ করেছেন, সেই কলেজে অনুষ্ঠান করে আমাকে অতিথি হবার আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন। কতো ছবি তাঁর সাথে। মৃত স্বজনের সাথে ছবি দিয়ে শোক প্রকাশ করতে ভালো লাগেনা।

গত কয়েক বছরে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক মুক্তিযোদ্ধার সংস্পর্শ পাবার সুযোগ হয়েছে। তাঁদের স্নেহ ও সান্নিধ্যে আমি ধন্য হয়েছি। কিন্তু সুরঞ্জন আংকেল আমার জন্য ছিলেন আলাদা প্রশ্রয়। প্রথম পরিচয়ের পর থেকে শেষ কথা বলার দিন পর্যন্ত আমাকে সম্বোধন করেছেন ‘বাবা’।

কোভিডের দিনগুলোতে বারবার ফোন করে বলতেন ‘বাবা তুমি সাবধান থেকো’। সেনাবাহিনীর চৌকস অফিসার ছিলেন, আমাকে শত্রু মিত্র চেনার কৌশল শেখাতেন। হাওরে স্কুল করেছি জেনে বলেছিলেন- ‘বাবা তোমার স্কুলে এসে একদিন থাকবো’। আমি তাঁকে বারবার চাপ দিচ্ছিলাম মুক্তিযুদ্ধ ও পরবর্তী সেনাজীবন নিয়ে বই লিখতে। বলছিলাম- ‘প্রয়োজনে অনুলিখনের কাজ আমি করবো, আপনি শুধু বলে যাবেন’ কিচ্ছু হয়নি।

কানাডায় বারবার অসুস্থ হচ্ছিলেন। শেষবার ফোন করেছিলেন মাসখানেক আগে আম্মার অসুস্থতার কথা জেনে। সেই স্নেহ মাখা কণ্ঠ- ‘বাবা, তুমি নিজের খেয়াল রেখো’ কীসব কাকতালীয় ব্যাপার যে ঘটে। সিলেট অঞ্চলে যুদ্ধ করা থার্ড বেঙ্গলের একজন বীরপ্রতীকের খোঁজে কাল ফোন করেছিলাম মেজর জেনারেল ( অব:) জামিল ডি. আহসান বীর প্রতীককে।

উনার সাথে কথা বলার পরপরই মনে পড়েছিলো সুরঞ্জন আংকেলের কথা। মাসখানেক হয়ে গেলো কথা নেই। ম্যাসেঞ্জারে লিখলাম- ‘আংকেল কেমন আছেন? সময় করে ফোন দিয়েন’ ম্যাসেজের রিপ্লাই আর আসবেনা। কথা আর হবেনা। আর কেউ বলবেনা- ‘বাবা তুমি নিজের খেয়াল রেখো’। বোন ফিরে গেলো কানাডায়।

পিতৃতুল্য সুরঞ্জন আংকেল কানাডা ছেড়ে অমর্ত্যলোকে। স্বল্প, দীর্ঘ, চিরস্থায়ী- যে কোন বিদায় মানেই বেদনাময়। তবু অনতিক্রম্য। অনতিক্রম্য সব বেদনার ভার বহন করে চলতে হয় জীবিত মানুষদের। বীর মুক্তিযোদ্ধা সুরঞ্জন দাশের মৃত্যুতে লন্ডন প্রবাসী সাংবাদিক জুয়েল রাজ লিখেছেন, ঘুম ভেঙেই এই নির্মম মর্মান্তিক দুঃসংবাদ! কানাডায় সড়ক  দুর্ঘটনায় সস্ত্রীক নিহত হলেন। বীর মুক্তিযোদ্ধা মেজর(অব:) সুরঞ্জন দাশ। আমাদের সুরঞ্জন কাকু। আমরা বড় হয়েছিলাম তাঁর বীরত্বের গল্প শুনে শুনে। যেন রূপকথার কোন বীরপুরুষ।

মুক্তিযুদ্ধে সম্মুখযুদ্ধে তাঁর বীরত্ব গাঁথা। আরেক অসম সাহসী সহযোদ্ধা সুকুমার দাশ। যিনি স্বাধীনতা পরবর্তী সময় থেকে মৃত্যুর আগ পর্যন্ত নবীগঞ্জের ৭ নং ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন। এই দুই কিংবদন্তী মুক্তিযোদ্ধার বীরত্ব গাঁথা আমাদের অভিভূত করতো। যদি ভুল না করি, আমাদের এলাকায় সেনাবাহিনীর একমাত্র কর্মকর্তা ছিলেন সুরঞ্জন দাশ।

তাই কৌতূহল এবং তাঁকে নিয়ে চর্চাও ছিল অনেক। ছোটবেলায় বহুবার আমাদের বাড়িতে দেখেছি তাঁকে। আমার বড় ভাইকে কোলে পিঠে চড়িয়েছেন, বলতেন আমার বড় ছেলে। সুযোগ পেলেই দেখতে যেতেন। বাবার মাসীর বাড়ির আত্মীয়তার সুবাদে উনি আমাদের কাকু ছিলেন। উনার স্কুল জীবনে একটা সময় আমাদের বাড়িতে ছিলেন কয়েক বছর।

পড়া লেখার পাশাপাশি সেই সময় প্রাইমারী স্কুলেও শিক্ষকতা করেছিলেন কিছুদিন। তাই আমাদের পরিবার ও গ্রামের সাথে তাঁর আত্মিক একটা টান ছিল সম্ভবত। সেই সময়ের অনেক গল্প শুনেছি, রাত ১০ /১১ টা পর্যন্ত নাকি তিনি সহপাঠীদের সাথে আড্ডা দিতেন, আর গভীর রাতে পড়তে বসতেন, অন্যরা জাগবার আগে তিনি ঘুমিয়ে পড়তেন। তাই কেউ তাঁকে কখনো পড়তে দেখে নাই। মুক্তিযুদ্ধ পরবর্তী সময়ে সেনাবাহিনীতে যোগ দিয়েছিলেন। এক সময় সেনাবাহিনীর চাকরী থেকে অবসর নিয়ে কানাডা চলে যান।

কানাডা থাকলেও আমার বাবার সাথে একটা যোগাযোগ ছিল সবসময়। দেশে আসলেও খোঁজ খবর নিতেন। সামাজিক অনুষ্ঠানে নিমন্ত্রণ আমন্ত্রণ চালু ছিল। কানাডা থেকেও মেয়ের বিয়ের নিমন্ত্রণ পৌঁছে দিয়েছিলেন বাবাকে। বাবা বলেছিলেন তোর মেয়ের বিয়ে কানাডা গিয়ে তো আর খেতে পারবো না। তিনি বলেছিলেন৷ না আসতে পারো আমার মেয়ের বিয়ের সংবাদ তো তোমার জানা দরকার।

আমি ব্যক্তিগতভাবে উনার সান্নিধ্য পাই নাই। কারণ উনি যখন দেশে যাতায়াত শুরু করেন তখন থেকেই আমি বাড়ির বাইরে। তবু প্রচ- রকমভাবে উনি ছিলেন আত্মিক বিশ্বাসে। কখনো দেখা হলে বাবার নাম অথবা বড় ভাইয়ের নাম বললেই হয়তো বুকে টেনে নিতেন। কানাডায় ব্যবসা বাণিজ্য করে সাফল্যও ধরা দিয়েছিল তাঁকে। কিন্তু ফিরে আসেন বাংলাদেশে। রাজনীতিতে সরব হয়েছিলেন।

নবীগঞ্জ বাহুবল আসন থেকে নির্বাচন করতে চেয়েছিলেন। দেশে এসে দৈনিক মাতৃভূমি পত্রিকা প্রকাশ করেছিলেন। কিন্তু আওয়ামী লীগ তাঁকে কখনো মনোনয়ন দেয় নাই। তিনিও নৌকা ছাড়া নির্বাচন করবেন না বলে অন্য কোথাও ভিড়েন নাই।

আমাদের ইউনিয়নে,তাঁর পিতার নামে প্রতিষ্ঠা করেন কীর্তি নারায়ণ কলেজ। দীর্ঘদিন ব্যক্তিগতভাবেই ব্যয়ভার বহন করেছিলেন। সম্প্রতি এমপিওভুক্ত হয়েছে কলেজটি। এইবার নাকি দেশ থেকে যাওয়ার সময় বলেছিলেন আর হয়তো ফেরা হবে না বাংলাদেশে। সেই ভাবেই সব কিছু ঘুচিয়ে নিয়েছিলেন। কিন্তু এইভাবে মর্মান্তিকভাবে চলে যাওয়ার জন্য নয় নিশ্চয়।

Developed By The IT-Zone