ঢাকামঙ্গলবার , ২৮ এপ্রিল ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

করোনা পরিস্থিতিতে তাদের কি হবে ?

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
এপ্রিল ২৮, ২০২০ ৯:৪৯ অপরাহ্ণ
Link Copied!

জাবেদুর রহমান:    বিশ্বব্যাপী করোনা ভাইরাসের কারণে আজ সবাই ঘরবন্দী। যতদিন যাচ্ছে ততই বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা পাশাপাশি মারা যাচ্ছে হাজার হাজার মানুষ। এই বিপদ থেকে বাঁচতে আজ সবাই ঘরের এককোণে বন্দী আর ঘরের এককোণে বন্দী থাকার কারণে না পারছে আজ কাজ করতে, না পারছে আজ বাইরে যেতে, না পারছে আজ পরিবারের সদস্যদের মুখে একমুঠো খাবার তুলে দিতে। কিন্ত তারা কারা এবং কার কথাই বা বলছি? প্রথমেই আমি বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকদের কথা বলছি, যারা প্রতিমাসের বেতন দিয়ে কোন রকম পরিবারের মুখে খাবার তুলে দেন, নিজের শখের জিনিস ক্রয় না করে পিতামাতার চিকিৎসার জন্য রেখে দেন। টিউশনির টাকা খরচ হবে বলে রিক্সায় না গিয়ে হেঁটে হেঁটে বাড়ি ফিরেন। কিন্তু এই পরিস্থিতিতে তারা কি করবে বা তাদের পরিবারকেই কি খাওয়াবেন?

 

যারা আল্লাহর ঘর মসজিদে পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ মুসল্লিদের-কে নিয়ে জামায়াতের সাথে নামাজ আদায় করতেন এবং সপ্তাহের ঈদের দিন তথা জুম্মার দিনে জুম্মার নামাজ পড়াতেন। পাশাপাশি যারা কোরআনের হাফিজ তারা রমজান মাস আসলে তারাবির নামাজ পড়াতেন। শুধু জুম্মার নামাজ আর তারাবির নামাজই না;এই ক্রান্তিলগ্নে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে কেউ মারা গেলে যেখানে পরিবারের লোকজন জানাযার নামাজ পড়তে ভয় পায়, সেখানে ইমাম ও মুয়াজ্জিন নির্ভয়ে নামাজ পড়ান। একইভাবে মন্দিরে থেকে বৈষ্ণবী নিত্যপূজা দিতেন এবং দেখাশোনা করতেন। যখন দিনমজুর, রিক্সাচালক, এবং চায়ের দোকানদার সহ যারা এই পরিস্থিতিতে অসহায় তাদের জন্য সরকার আলাদা তালিকা করে ত্রাণ দিচ্ছে কিন্তু যারা মসজিদ ও মন্দিরের দায়িত্বে আছে, তাদের জন্য কি আলাদা ত্রাণের ব্যবস্থা করা যায় না?

শুধু বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক, মসজিদের ইমাম-মুয়াজ্জিন আর মন্দিরের বৈষ্ণবীই নয়, পথশিশু ও বটে। পথশিশুদের কথা শুনে অনেকের মনে এখন প্রশ্ন জাগতে পারে; কেন তাদের কথা উল্লেখ করেছি? এখন আমি যদি প্রশ্ন করি পথশিশুরা কিভাবে তাদের খাবার সংগ্রহ করে; তখন আপনিই বলবেন বোতল সংগ্রহ করে, রাস্তায় রাস্তায় পত্রিকা বিক্রি করে এবং আমার আপনার কাছ থেকে দুই টাকা, পাঁচ টাকা সংগ্রহ করে কোনরকম বেঁচে আছে। কিন্তু এখন কি তারা চা, পত্রিকা অথবা বোতল বিক্রি করতে পারছে? শুধু এটাই নয়; আর পিছনে আরেকটি কারণ আছে, সরকার প্রথম থেকে শুরু করে এই পর্যন্ত সপ্তম বারের মতো বিভিন্ন উপজেলায় ত্রাণ পাঠিয়েছে। আর সেই ত্রাণ উপজেলা থেকে ইউনিয়ন এবং ইউনিয়ন থেকে প্রত্যেকটি ওয়ার্ডে পাঠানো হয়। যখন ইউনিয়ন অথবা ওয়ার্ডে ভিত্তিক ত্রাণ চলে যায় তখন পথশিশুরা এই ত্রাণ থেকে বঞ্চিত হয়। তাঁর কারণ হলো পথশিশুদের-কে গ্রামের তুলনায় শহরের অঞ্চলে বেশি দেখা যায়।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশ্যে বলতে চাই, বর্তমান সময়ে বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক, মসজিদের ইমাম-মুয়াজ্জিন, মন্দিরের বৈষ্ণবী আর পথশিশুরাই হলো সবচেয়ে বড় অসহায়, না পারছে তারা কাউকে বলতে, না পারছে তারা এই পরিস্থিতিতে নিজেদেরকে মানিয়ে নিতে। পরিশেষে বলতে চাই, প্রত্যেক উপজেলায় যদি তাদের জন্য আলাদা ত্রাণের ব্যবস্থা করা হয়। তাহলে, তারা এই পরিস্থিতিতে কিছুটা হলেও নিজেদের-কে মানিয়ে নিতে পারবে।

Developed By The IT-Zone