ঢাকামঙ্গলবার , ১৪ এপ্রিল ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

করোনা আতঙ্কে বোরো কাটা নিয়ে দুশ্চিন্তায় হাওরের কৃষকরা

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
এপ্রিল ১৪, ২০২০ ৯:১০ অপরাহ্ণ
Link Copied!

রায়হান উদ্দিন সুমন :   করোনাভাইরাস সংক্রমণের কারণে বোরো ধান ঘরে তোলা নিয়ে উদ্বেগ উৎকণ্ঠায় আছে হাওর অধ্যুষিত জেলার কয়েক হাজার কৃষক পরিবার। ধান কাটার শ্রমিকের অভাব ও পর্যাপ্ত মেশিন না থাকায় যথাসময়ে বোরো ধান কেটে গোলায় উঠাতে পারবে কি না এ নিয়ে চরম অনিশ্চিয়তায় ভুগছে তারা। নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে ধান কাটতে না পারলে অকাল বন্যায় ফসল তলিয়ে যাবার ও আশঙ্কা করছেন কৃষকরা। একই সঙ্গে রয়েছে অন্যান্য বছরের চেয়ে এবার ধানের মূল্য কম পাওয়ার দুশ্চিন্তা ও। এ অবস্থায় উচ্চ সুদে ঋণ পরিশোধসহ উৎপাদনের খরচ যোগাতে হিমশিম খেতে হবে কৃষকদের। সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় কৃষকদের প্রতি বিশেষ নজর দিতে সরকারের কাছে দাবি জানিয়েছেন কৃষি কর্মকর্তাসহ কৃষকরা।

ছবি : বানিয়াচং হাওরের একটি ফসলি জমি

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের তথ্য মতে, দেশের খাদ্য সরবরাহের বড় অংশটি নিশ্চিত হয় বোরো ধানের মাধ্যমে। সরকারি গুদামে মজুদের মূল অংশটিও নির্ভও করে এই ফসল থেকে। এপ্রিলের প্রথম সপ্তাহ থেকে মূলত বোরো কাটা শুরু হলেও এবার করোনাভাইরাসের সংক্রমণের কারণে কিছুটা দেরিতে ধান কাটা শুরু হয়েছে। এবার বোরোতে দুই কোটি টন চাল উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে বলে জানা গেছে। গত দুই বছর অকাল বন্যা ও পাহাড়ি ঢলে কৃষকরা বোরো ধান ঘরে তেমনটা উঠাতে পারেনি। এতে এক ফসলি জমির উপর নির্ভরশীল কয়েক হাজার পরিবার নিঃস্ব হয়ে যায়। এবার কড়া সুদে ঋণ নিয়ে আবার সেই জমিতে আবাদ করেছেন তারা। তবে ফসল ঘরে ওঠাতে না পারলে তবে জমি বিক্রি করা ছাড়া তাদের আর কোনো উপায় থাকবে না।

কৃষকরা জানান, বোরো ফসল উঠিয়েই ধান বিক্রি করে ধান কাটার শ্রমিক, মাড়াই এবং ঋণ পরিশোধ করতে হয়। এ সময় প্রতি বছর ধানের দাম একদম কম থাকে। তবে এবার করোনার কারণে ধানের দাম আরো কমে যাওয়ার শঙ্কা করছেন তারা। এমনটা যদি হয় তবে কৃষকরা এবারো ঋণের বোঝা কমাতে পারবে না।

বানিয়াচংয়ের কৃষক তৌহিদ মিয়া। তিনি জানান, এখন পর্যন্ত ধান কাটার জন্য পর্যাপ্ত শ্রমিক ম্যানেজ করতে পারিনি। ইতোমধ্যে বিআর২৮ ধান পেকে গেছে। এক সপ্তাহ মধ্যে এ ধান না কাটতে না পারলে ধান নষ্ট হয়ে যাবে। অন্যদিকে বাকি জাতের ধান আগামী ১০ দিনের মধ্যে কেটে শেষ করতে হবে। না হয় হাওরে পানি চলে আসবে। এখন কি করব বুঝে উঠতে পারছি না।

হবিগঞ্জের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ কামরুল হাসান দৈনিক আমার হবিগঞ্জকে বলেন, যতটুকু শুনেছি কৃষি মন্ত্রণালয় থেকে উপজেলা পর্যায়ে ধান কাটার কম্বাইন হারভেস্টার ও রিপার দেয়া হয়েছে। ধান কাটার পুরো সময়টুকুতে হাওর উপজেলা গুলোর ইউএনও এবং কৃষি কর্মকর্তারা সমন্বয় করে কাজ করবেন। তিনি বলেন, ধান কাটার জন্য জামালপুর, কুড়িগ্রামসহ আরও কয়েকটি জেলা থেকে শ্রমিকরা আসেন। যানবাহন বন্ধ থাকায় এবার একটু সমস্যা হচ্ছে। তবে অনেক হাওরে বিকল্প পদ্ধতিতে শ্রমিকরা এসেছে বলে জানান তিনি।

Developed By The IT-Zone