ঢাকারবিবার , ৫ এপ্রিল ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

করোনায় বিপর্যস্ত শায়েস্তাগঞ্জের খেটে খাওয়া মানুষ

অনলাইন এডিটর
এপ্রিল ৫, ২০২০ ৯:৪২ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

শেখ শাহেউর রহমান বেলাল।। বৈশ্বিক মহামারি নভেল করোনা ভাইরাসের (কোভিড-১৯) কারণে হুমকির মুখে বিশ্ব অর্থনীতি। অনেকটা থমকে গেছে হবিগঞ্জের খেটে খাওয়া মানুষের জীবনযাত্রাও। এ অবস্থায় কর্মহীন সময় কাটাচ্ছেন এসব মানুষ।

কোথায়ও লোকজনের ভিড় নেই, চলাচলও সীমিত। বাস, রেল, কল-কারখানাসহ বন্ধ দোকানপাটও। নেই হকার, কুলি ও বাসস্টাফদের হাঁক ডাক। চিরচেনা শহর যেন অচেনা!

ছবিঃ বিপর্যস্ত দিনমজুর চালকেরা যাত্রীর অপেক্ষায়।

করোনার প্রকোপ ঠেকাতে গত বৃহস্পতিবার (২৬ মার্চ) সকাল থেকে রাজধানী ঢাকাসহ সারা দেশের মানুষকে ১০ দিনের জন্য ঘরে অবস্থান করার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। সেই নির্দেশনা অনুযায়ী দেশবাসী ঘরে অবস্থান করেছেন।

জরুরি প্রয়োজন ছাড়া বাসা থেকে কেউ বের হচ্ছেন না। তীব্র যানজটের এলাকা এখন একদম ফাঁকা ও নীরব নিস্তব্ধ। এতে সবচেয়ে বেশি বিড়ম্বনায় পড়েছেন দিনমজুরসহ নিম্ন-আয়ের খেটে খাওয়া দরিদ্র মানুষেরা।

বৃহস্পতিবার (২ এপ্রিল) করোনা পরিস্থিতিতে ছুটির ৮মদিনে হবিগঞ্জের শিল্পনগরী এলাকা অলিপুরে খেটে খাওয়া কর্মহীন এসব মানুষের সঙ্গে কথা বলে এমনটাই জানা গেছে।

হবিগঞ্জ জেলার ৯টি উপজেলার বিভিন্ন হাটবাজার ঘুরে দেখা যায়, মানুষের আনাগোনা একদম কম। করোনার জন্য ব্যবসানির্ভর এসব এলাকাসহ পাড়া মহল্লার দোকানপাটও বন্ধ রয়েছে। নেই চিরচেনা চায়ের আড্ডাও।

তবে সকালে দু-একটি দোকান কিছু সময়ের জন্য খোলা রাখা হয়। যাতে এলাকাবাসীরা নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য কিনতে পারে। দোকানপাট বা বাজারের আশপাশে কিছু মানুষের হঠাৎ দেখা মিললেও তা অন্যান্য সময়ের তুলনায় একেবারেই নগন্য। রাস্তায় গাড়ি বলতে দেখা গেছে দু’একটা রিক্সা, টমটম। তবে তাও সংখ্যায় হাতে-গোনা।

শিল্পনগরী অলিপুরের কয়েটি রিক্সা চালকের সাথে কথা বলে জানাযায় তাদের কষ্টের কথা। রিক্সা চালক হানিছ মিয়া বলেন, আমাদের এলাকায় সকাল থেকে কেউ বাইরে যাচ্ছে না। সবাই বাড়িতে অবস্থান করেছেন। আমরাও ভাই-বোন সবাই বাসায় অবস্থান করছি। গত এক সপ্তাহ জরুরি প্রয়োজন যেমন- বাজার করা ছাড়া কেউ বাইরে যাইনি। এছাড়া এলাকার প্রতিটি বাসিন্দা বাসায় অবস্থান করেছেন। আমাদের এলাকা একদম নীরব ও নিস্তব্ধ হয়ে পড়েছে। ঘরে খাবারও নেই। তাই ক্ষুদার জ্বালায় আজ রিক্সা নিয়ে বের হলাম।

একই কথা রিকশাচালক মো. বাবুল মিয়ার মুখেও। তবে যাত্রী কমে যাওয়ায় সংসারের খরচ চালাতে যে তার হিমশিম খেতে হয়েছে তা নিয়েও চিন্তিত তিনি।

করোনার ঝুঁকিতে রাস্তায় বেরিয়েছেন? এমন প্রশ্নের উত্তরে তার সোজা উত্তর, পরিস্থিতি যাই অউক (হোক। পেট চালানির লাইগ্যা তো সড়কে নামতেই অইবো।

‘পইলা চাইরদিন (চারদিন) বাড়িতে আছিলাম। সংসার তো ছলে না। খাইয়া বাঁচন লাগবো তো। এরপর আর থাকার সিস্টেম নাই। আমার সংসার চলে গাড়ি চালাইয়া। তাই করোনার ঝুঁকি থাকলেও পেটের দায়ে রাস্তায় নামছি রিকশা লইয়্যা।’

তার সঙ্গে সুর মিলিয়ে পাশ থেকে আরেক রিকশাচালক মো. নাছির উদ্দিন চেকপোস্টকে জানালেন, চিরচেনা রাস্তা যেন এখন অচেনা লাগে। এ অবস্থায় আয়-রোজগার একেবারেই কম।

তিনি বলেন, সকাল ৮ টায় রিকশা লইয়া বের অইছি। দুপুর ১২ টা বাজে। ৪ ঘণ্টায় মাত্র ৮০ টাকার খেপ (ভাড়া) মারছি। করোনার জন্য মানুষ বাইরে বাহির অয় না। জরুরি যেসব দোকানপাট বাজার খোলা রাখার কথা তারও বেশিরভাগ বন্ধ।

নাছির জানালেন, ২৫ / ৩০ টাকার তিনটি ট্রিপ দিয়ে ৮০ টাকা পেয়েছন। এই ছুটি ঘোষণার আগে একই সময়ে আয় হতো ৩০০-৩৫০ টাকা।

সোহেল আহমেদ নিয়মিত রিক্সা চালান। কিন্তু করোনার কারণে গাড়ি চলাচল বন্ধ হয়ে যাওয়ায় তিনি এখন কর্মহীন হয়ে পড়েছেন। বললেন, পাঁচদিন ধরে কাজ নাই। হাতেও টাকা নাই। এখন না খেয়ে থাকার অবস্থা হয়েছে।

তিনি জানান, একদিন কাজ করতে না পারলেই পরিবারের লোকজন কী খাবে তা নিয়ে চিন্তায় পড়ে যেতে হয়। করোনার কারণে বেশ কয়েক দিন ধরে কাজ করতে পারছেন না। তাই আয়ও নেই। এ অবস্থায় না খেয়ে থাকার উপক্রম হয়েছে তার।

‘আগে দিনে সব খরচ বাদ দিয়া ৫০০ থেকে ৬০০ টাকা হইতো। এখন সেখানে ১৫০ থেকে ২০০ টাকা অইতাছে। তা দিয়া সংসার খরচ চালানো অনেক কষ্ট হয়ে যাবে। হুনছি (শুনেছি) সরকার দিনমজুরদের লাইগ্যা সাহায্য দিবো। কিন্তু দিবো কিভাবে? আমরা তো হারাদিন-ই নৌকা চালাই। সাহায্যের জন্য তিন চাইর ঘণ্টা লাইনে দাঁড়াইবো কে?’

তিনি বলেন, লাইনে দাঁড়াইয়াও পাওয়া যায় না। অহন তো নৌকা চালাইয়া কিছু পাইতাছি। তহন না পাইলে তো দুই দিকই যাইবো। তাই সরকারের সাহায্য যাতে আমরা পাই সেইডা নিশ্চিত করন লাগবো।

অলিপুর, পুরাইকলা বাজার, কেশবপুর বাজার, উচাইল বাজারসহ বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে দেখা যায়, বেশ খানিকক্ষণ পর একটি-দু’টি রিকশা বা একজন-দু’জন মানুষ আসা যাওয়া করছেন। রাস্তায় বিভিন্ন জায়গায় ছিল আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। অপ্রয়োজনে মানুষজন যেন রাস্তায় ঘোরাঘুরি না করে তা নিশ্চিত করার চেষ্টা করছেন তারা।

গণপরিবহন বন্ধ থাকলেও প্রয়োজনীয় পণ্যবাহী ট্রাক, জরুরি ওষুধ সরবরাহকারী পিকআপ ভ্যান ও অ্যাম্বুলেন্স চলাচল করতে পারছে।

এদিকে ব্রাহ্মণডুরা ইউনিয়নের বেশ কয়েকজন দিন মজুর চেকপোস্ট জানান, তারা এখনো কোন ত্রাণ পাননি। আক্ষেপ করেই বলেন, যদিও সরকার দিনমজুর রিকশাচালক, ভ্যান চালক, রেস্টুরেন্ট কর্মকর্তা, চা দোকান্দাররা ত্রাণ পাওয়ার কথা কিন্তু এখানে ব্যতিক্রম।

এ বিষয়ে ১১টা ৩০ মিনিটে মুঠোফোনের মাধ্যমে চানতে চাইলে শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুর রশিদ তালকুদার ইকবাল চেকপোস্টকে জানান, প্রকৃত পক্ষে গরীব অসহায় দিনমজুর কর্মহীন ব্যক্তিরাই ত্রাণ পাওয়ার কথা। আমরাও চেষ্টা করছি খাদ্যসামগ্রী বিতেরণের। আমাদের কার্যক্রম চলমান। আমাদের ওয়ার্ড পর্যায় থেকে তালিকা প্রণয়ন করা হয়েছে। কর্মহীন অবস্থায় তাদের যেন খাদ্য সঙ্কটে থাকতে না হয় সেজন্য চেয়ারম্যান/মেম্বারদের লিস্ট করার জন্য বলা হয়েছে। তবে অনেক সময় একটু ব্যতিক্রমও হচ্ছে।

Developed By The IT-Zone