ঢাকাবুধবার , ১৫ জানুয়ারি ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

ঐতিহ্য হারাতে বসেছে সুতাংয়ের বাশেঁর বাজার

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
জানুয়ারি ১৫, ২০২০ ৭:২৮ অপরাহ্ণ
Link Copied!

সৈয়দ হাবিবুর রহমান ডিউক,হবিগঞ্জ : শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার নূরপুর ইউনিয়নের সুতাং বাজার বাশেঁর জন্য প্রসিদ্ধ। প্রতি সপ্তাহে দু’দিন রবি ও বুধবার সুতাং নদীর তীরে বিভিন্ন রকম বাঁশের হাট বসে। ওই বাজারের পাইকারী ব্যবসায়ীরা নদীপথে বিভিন্ন স্থানে বাঁশ প্রেরণ করে।দীর্ঘকাল ধরে শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন অঞ্চলে বাঁশের পণ্যসামগ্রী তৈরি হয়ে আসছে। স্থানীয় চাহিদা মিটিয়ে দেশের বিভিন্ন এলাকায় সরবরাহ করা হতো এসব পণ্য। কিন্তু বাঁশের মূল্যবৃদ্ধি এবং উৎপাদিত পণ্যের সঠিক মূল্য না পাওয়ায় এ পেশার অনেক পরিবার মানবেতর জীবনযাপন করছে। অর্থকষ্টে এসব পরিবারের ছেলে-মেয়েরা শিক্ষার আলো থেকেও বঞ্চিত হচ্ছে। অনেকে টিকে থাকতে না পেরে অন্য পেশায় চলে যাচ্ছেন।

বাংলাদেশে প্রায় ১৭-১৮ প্রকারের বাঁশ পাওয়া গেলেও হবিগঞ্জ জেলায় প্রধানত শিল বরাক, বরাক, জাই, বাখাল, মুলি, টেংরা, কনকই জাতের বাঁশ পাওয়া যায়। জেলার বিভিন্ন গ্রামে বেসরকারি উদ্যোগে স্থাপিত বাঁশ বাগানগুলো থেকেও বিপুল পরিমাণ বাঁশ বিক্রয়ের জন্য বাজারে প্রেরিত হচ্ছে। উপজেলার নূরপুর, পুরাসুন্দা প্রভৃতি এলাকায় প্রচুর বাঁশ জন্মায়।অত্র এলাকার বাকাল বাশঁ, ও বরাক বাশঁ সারাদেশের মধ্যে বিখ্যাত। জগদীশপুর- শায়েস্তাগঞ্জ সড়কে ভ্রমণের সময় জনপদসমূহে বাঁশ বাগানের অপরূপ দৃশ্য সকলকে বিমোহিত করে। বর্ষাকালে গ্রামাঞ্চলে বাড়িঘর মেরামত, ঢেউয়ের আঘাত হতে জনপদ রক্ষায় বাঁশের গুরত্ব অপরিসীম। কিন্তু বর্তমানে চাহিদার তুলনায় সরবরাহ হ্রাস পাওয়ায় বাজারে বাঁশের দাম অনেকাংশেই বেড়ে গেছে।

বাঁশের ব্যাপক ব্যবহারের মূলে রয়েছে এর ভিন্নধর্মী ব্যবহারিক উপযোগিতা। তবে ওই এলাকায় প্রচুর বাঁশ উৎপাদন হলেও যথাযথভাবে সংরক্ষণের ব্যবস্থা না থাকায় অনেক সময়ে চাষিরা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। অন্যদিকে অত্র এলাকার আশেপাশেই শিল্পাঞ্চল গড়ে উঠায় বাশেঁর বাগান উজার করে কেটে অনেকেই বাড়ি ভাড়া দেয়ার জন্য গড়ে তুলছেন বাসা, বাড়ি। ফলে এ এলাকায় আগের তুলনায় বাশেঁর বাগান ও হ্রাস পাচ্ছে।একে একে বিলীন হচ্ছে প্রয়োজনীয় এই বাঁশ ও বাঁশঝাড়,এর জন্য নেই সরকারি-বেসরকারি কোনো পৃষ্ঠপোষকতা।বাশঁ কেনাবেচাঁ কওে এখনো সুরাবই, পুরাসুন্দা, লাদিয়া, শৈলজুড়া গ্রামের কয়েকশ পরিবার টিকে আছে।

 


সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, উপজেলার শৈলজুড়া গ্রামের রাজ্জাক মিয়া তৈরী করেন বাশঁ দিয়ে ধান রাখার ঢোল, প্রতিটি ঢোল তিনি ৭০০-১০০০টাকা দামে বিক্রি করেন, তিনি বলেন, একটি ঢোলে ১০-১২মণ ধান সংরক্ষণ করা যায়। এছাড়াও তিনি তৈরী করেন বাশঁ দিয়ে খাচাঁ, বাশেঁর ঝুড়ি ও বাশের তৈরী মই। এগুলো তৈরী করে তিনি সুতাং বাজার বিক্রি করেন। সুরাবই গ্রামের বাশঁ ব্যবসায়ী দুলাল মিয়া বলেন, আগে সুতাং বাজারে অনেক দুরদুরান্ত থেকে বাশঁ কেনার জন্য পাইকার আসত, এখন পাইকারের সংখ্যা ও কমে গেছে। তিনি বলেন মাঝে মাঝে বিভিন্ন কোম্পানীতে তিনি বাশঁ সাপ্লাই করে থাকেন। পুরাসুন্দা গ্রামের জাহাঙ্গীর মিয়া বলেন, প্রতি বাজারে ২-৩ কান্দি বাশঁ তিনি বিক্রি করেন, এতেই তার সংসারের খরচ হয়ে যায়। অত্র এলাকার সচেতনমহল মনে করেন সরকারী পৃষ্ঠপোষকতায় বাশঁ শিল্প সংরক্ষণ করা না গেলে দৈনন্দিন জীবনের অতি প্রয়োজনীয় জিনিস এই বাশঁ অচিরেই হারিয়ে যাবে।

Developed By The IT-Zone