ঢাকাসোমবার , ২৮ জুন ২০২১
আজকের সর্বশেষ সবখবর

এখনো ধরা ছোঁয়ার বাহিরে সনদ জালিয়াতির মূল হোতা কাউন্সিলর গৌতম কুমার রায়

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
জুন ২৮, ২০২১ ১০:৩১ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

স্টাফ রিপোর্টার :  নানা কৌশলে ধরা ছোয়ার বাইরে আছেন সনদ জালিয়াতির মূল হোতা হবিগঞ্জ পৌরসভার ৫নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর গৌতম কুমার রায়। সুনির্দিষ্ট অভিযোগের প্রেক্ষিতে জালিয়াতি একাধিকবার প্রমাণিত হলেও অজ্ঞাত কারনে তার বিরুদ্ধে নেয়া হয়নি কোন প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা।

অনুসন্ধানে জানা যায়, হবিগঞ্জ পৌরসভার ৫নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর গৌতম কুমার রায় ও স্থানীয় একটি প্রতারক চক্রের পরস্পর যোগসাজশে দীর্ঘদিন ধরে জন্ম ও মৃত্যুসনদ জালিয়াতি করে বাল্য বিবাহ, ভুয়া দলিল রেজিস্ট্রি, সরকারী ভাতা বাণিজ্য ইত্যাদি চলে আসছে। এর আগে ভুক্তভোগী বাবুল চন্দ্র মোদক নামে এক ব্যক্তি বাদী হয়ে তার বিরুদ্ধে হবিগঞ্জ পৌর মেয়রের কাছে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

অভিযোগ প্রমাণিত হলেও কেন ব্যবস্থা নেয়া হয়নি তা জানতে চাইলে উপ-পরিচালক, স্থানীয় সরকার তওহীদ আহমদ সজল জানান, সনদ জালিয়াতির সাথে জড়িত থাকলে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে জানানো হবে। প্রমাণিত শাস্তি মুলক ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 

 

ছবি : অভিযুক্ত কাউন্সিলর গৌতম কুমার রায় (ফাইল ছবি)

 

 

 

কাউন্সিলর গৌতম কুমার রায়ের বিরুদ্ধে অনুসন্ধানে বেরিয়ে আসে কিছু চাঞ্চল্যকর তথ্য। জানা যায়, পিতার বিক্রি করা সম্পত্তি ফিরিয়ে আনতে হবিগঞ্জ পৌরসভার ৫নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর গৌতম কুমার রায়ের সহযোগিতায় ০০২১৪৯ নং নিবন্ধনে ১১ নভেম্বর ২০১৯ তারিখে জাল মৃত্যু সনদ তৈরি করেন। এতে তিনি উল্লেখ করেন, তার পিতা ডাঃ হরিপদ মোদক স্ট্রোক জনিত কারণে ২০১০ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারী মৃত্যুবরণ করেন। এই জাল মৃত্যু সনদ দিয়ে বাবুল চন্দ্র মোদকের ক্রয়কৃত জায়গার দলিল ভুয়া প্রমাণের চেষ্টা করেন নুপুর মোদক। তার দাবি যেহেতু তার পিতা ২০১০ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারী মৃত্যুবরণ করেছেন। তাই ২০১২ সালের ১৬ জুলাই জায়গা বিক্রির তথ্যটি মিথ্যা এবং ওই রেজিস্ট্রি দলিলও ভুয়া।

অনুসন্ধানে আরও জানা যায়, ডাঃ হরিপদ মোদক ২০১৫ সালের ৩ জানুয়ারী নিজ বাসভবনে মৃত্যুবরণ করেন। যা ওই সময়ে হবিগঞ্জের শীর্ষ স্থানীয় পত্রিকায় শোক সংবাদ প্রকাশ করা হয় এবং পৌর শ্মশানঘাটে ডাঃ হরিপদ মোদক এর মৃতদেহ দাহ করার সময় হবিগঞ্জের বিশিষ্ট ব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন। এ ব্যাপারে ভুক্তভোগী বাবুল মোদক দৈনিক আমার হবিগঞ্জ’কে বলেন, ‘আমি ২০১২ সালের ১৬ জুলাই বৈধভাবে ৪ শতক জায়গা ১ লাখ ৮৫ হাজার টাকা মূল্যে ক্রয় করি। স¤প্রতি ডাঃ হরিপদ মোদকের পুত্র নুপুর মোদক দাবি করছেন তার পিতা কোন জায়গা বিক্রি করেননি। তিনি জায়গা বিক্রির ২ বছর আগেই স্ট্রোক জনিত কারণে মারা যান। সময়ে অসময়ে আমার কাছে মোটা অঙ্কের টাকা দাবি করেন। টাকা না দিলে প্রাণনাশের হুমকিও দিচ্ছেন। এ নিয়ে আমরা খুব আতঙ্কে দিনাতিপাত করছি’।

ডাঃ হরিপদ মোদকের পুত্র নুপুর মোদকের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি উত্তেজিত হয়ে বলেন, ‘আমার বাবা ২০১০ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারী মারা গেছেন। যদি কোন পত্রিকা বা স্থানীয় কেউ এ সম্পর্কে ভুল কোন তথ্য ছড়িয়ে থাকে তাহলে সেটা মিথ্যা’। এ ব্যাপারে অভিযুক্ত কাউন্সিলর গৌতম কুমার রায়ের সাথে যোগাযোগ করা হলে দ্বায় স্বীকার করে তিনি বলেন, ‘অচেতন অবস্থায় আমার স্বাক্ষর নিয়ে প্রতারণা করেছে ডাঃ হরিপদ মোদকের পুত্র নুপুর মোদক। আমি তার বিরুদ্ধে আইনগতভাবে দ্রুত ব্যবস্থা নিব’।

অনুসন্ধানে জানা যায়, হবিগঞ্জ শহরের চিড়াকান্দি এলাকার বাসিন্দা ডাঃ হরিপদ মোদক বার্ধক্যজনিত কারণে ২০১৫ সালের ৩ জানুয়ারী নিজ বাসভবনে মৃত্যুবরণ করেন। তবে তিনি মারা যাওয়ার ৩ বছর আগে, অর্থাৎ ২০১২ সালের ১৬ জুলাই বানিয়াচং উপজেলার চৌধুরীপাড়া মৌজার পৈত্রিক সম্পত্তির ৪ শতক জায়গা ১ লাখ ৮৫ হাজার টাকা মূল্যে বিক্রি করেন উপজেলার বানেশ্বর পাড়া গ্রামের জহর লাল মোদকের পুত্র বাবুল চন্দ্র মোদকের কাছে। আইন অনুযায়ী সম্পত্তি হস্তান্তরের যথাযথ রেজিস্ট্রিও সম্পন্ন করা হয়।

Developed By The IT-Zone