ঢাকামঙ্গলবার , ২০ জুলাই ২০২১
আজকের সর্বশেষ সবখবর

উপবৃত্তির একাউন্টের পিন নিতে প্রধানশিক্ষক ও দপ্তরিকে দিতে হয় ৩০০ টাকা !

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
জুলাই ২০, ২০২১ ১০:০১ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

শাকিলা ববি :  হবিগঞ্জের লাখাইয়ের তেঘরিয়া ১নং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ৩য় ও ৫ম শ্রেণীতে পড়ে মাহমুদা খাতুনের ছেলে মেয়ে। তার ছেলে মেয়েকে স্কুল থেকে উপবৃত্তি দেওয়া হয়। প্রায় এক মাস আগে মাহমুদা খাতুনের মোবাইলে উপবৃত্তির ১৮০০ টাকা আসে। কিন্তু পিন নাম্বার না থাকার কারণে সেই টাকা তুলতে পারছিলেন না মাহমুদা খাতুন। তিনি পিন নাম্বার আনতে স্কুলের প্রধান শিক্ষক আব্দুর রহমানের কাছে যান। তখন প্রধান শিক্ষক তাকে ৩০০ টাকার বিনিময়ে পিন নাম্বার দিবেন বলে জানান। তাই বাধ্য হয়ে প্রধান শিক্ষককে ৩০০ টাকা দিয়ে পিন নাম্বার আনেন।

মাহমুদা খাতুন বলেন, আমি গ্রামের গরীব মানুষ লেখাপড়া জানি না, দিন আনি দিন খাই। তারপরও চাই আমার সন্তানরা শিক্ষিত হোক। আমার ছেলে মেয়ে ওই স্কুলে পড়ে তাই উপবৃত্তি পায়। গতমাসে উপবৃত্তির টাকার এসএমএস মোবাইলে আসে। তখন আমি স্কুলে গিয়ে প্রধান শিক্ষককে বলি পিন নাম্বার দিতে। তিনি তখন এই পিন নাম্বারের জন্য আমার কাছে ৩০০ টাকা দাবি করেন। আমি তখন তাকে ৩০০ টাকা দিয়ে পিন নাম্বার আনি।

হবিগঞ্জ জেলার প্রত্যন্ত অঞ্চল লাখাই উপজেলার তেঘরিয়া গ্রাম। সেই গ্রামের বেশিরভাগ শিক্ষার্থীদের অভিভাবক শিক্ষিত নন। তাই যখনই মোবাইলে উপবৃত্তির টাকা আসে তারা সেটা তুলতে আশপাশের বিকাশ/ নগদের দোকানীদের শরণাপন্ন হন। অনেক অভিভাবক বিকাশ বা নগদ নাম্বারের পিন কোড হারিয়ে ফেলেন বা মনে রাখতে পারেন না। অনেকেই আবার একাউন্টের পিন নাম্বার যে সংগ্রহ করা লাগে সেটাই জানেন না। অভিভাবকদের এই অজ্ঞতার সুযোগ নিয়ে লাখাইয়ের তেঘরিয়া ১নং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুর রহমান ও এই স্কুলের দপ্তরি উজ্জ্বল মিয়া টাকা আত্মসাৎ করেন বলে অভিযোগ করেছেন ওই স্কুলে পড়ুয়া বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থীর অভিভাবক।

 

 

 

 

ছবি : লাখাইয়ের তেঘরিয়া ১নং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছবি 

 

 

এই অনিয়মের ব্যাপারে গত ১১ জুলাই লাখাই উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর লিখিত আবেদন করেন তেঘরিয়া গ্রামের মরহুম মারুফ চৌধুরী ছেলে শাহরিয়ার ইমন চৌধুরী। তিনি বলেন,  তেঘরিয়া ১নং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাশে আমার একটি দোকান আছে। সেখানে এই স্কুলের দপ্তরি উজ্জ্বল মিয়ার দোকানও আছে। সেখানে এই স্কুলের অনেক অভিভাবক আসেন উজ্জ্বলের কাছে পিন নাম্বার নিতে। তখন উজ্জ্বল তাদের কাছ থেকে পিন নাম্বারের বিনিময়ে টাকা রাখে। প্রথমে সে ৫০ বা ১০০ টাকা রাখতো। কিন্তু গত কয়েকদিন আগে গ্রামের একটি শালিসে ওই স্কুলের প্রধান শিক্ষক আসলে তার কাছে অভিভাবকরা এ ব্যাপারে অভিযোগ করেন।

তখন প্রধান শিক্ষক বলেন সে এটা কোনো ভাবেই করতে পারে না। পরবর্তীতে যদি সে আবার এই কাজ করে তাকে শাস্তি দেওয়া হবে। এরপর উজ্জ্বল আরেও বেপরোয়া হয়ে উঠে। আগে ৫০ বা ১০০ টাকা নিলেও এখন সে ৩০০ থেকে ৫০০ টাকা পর্যন্ত নিচ্ছে অভিভাবকদের কাছ থেকে। মোটকথা সে যার কাছ থেকে যত পারে টাকা নিচ্ছে। এমনকি উজ্জ্বল প্রধান শিক্ষকের সামনেও পিনের জন্য অভিভাবকদের কাছ থেকে টাকা রেখেছে।

শাহরিয়ার ইমন চৌধুরী বলেন, এ ব্যাপারে আমি লাখাই উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর অভিযোগ করলে গত বৃহস্পতিবার উপজেলা শিক্ষা অফিসারসহ কয়েকজনকে তদন্ত করতে পাঠান। কিন্তু সেখানে কোনো ভুক্তভোগীর বক্তব্য নেওয়া হয়নি। অনেক অভিযোগকারী বাইরে হট্টগোল করলেও তাদের বক্তব্য নেওয়া হয়নি। বরং প্রধান শিক্ষকের যারা তোষামোদি করেন তাদের বক্তব্য নেওয়া হয়েছে। আমি মনে করি এ বিষয়ে আরও সুষ্ঠু তদন্ত দরকার। এবং যারা প্রকৃত ভুক্তভোগী তাদের বক্তব্য নেওয়া উচিত।

তেঘরিয়া ১নং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ১ম ও ৪র্থ শ্রেণীতে পড়ে বদু মিয়ার নাতি আর নাতিন। তাদের ২ বারের উপবৃত্তির ৩ হাজার ১৯৭ টাকা এসেছে এই ক্ষুদেবার্তাটি মোবাইলে আসার পর টাকা তুলতে পারছিলেন না নগদ একাউন্টের পিন নাম্বার না জন্য। তাই স্কুলের দপ্তরি উজ্জ্বল মিয়ার কাছে যান। তখন উজ্জ্বল মিয়া তার কাছে ৫০০ টাকা দাবি করেন। তাই বাধ্য হয়ে দপ্তরি উজ্জ্বলকে ৫০০ টাকা দিয়ে তিনি পিন নাম্বার আনেন।

বদু মিয়া বলেন, দুই দাগে আমার নাতি নাতনিদের উপবৃত্তির টাকা আসে। টাকা আসার পর আমার বাড়ির নারীরা কোনো ভাবেই টাকা তুলতে পারছিল না। তারা তাই আমাকে বলেন টাকা তোলার ব্যবস্থা করতে। তাই পিন নাম্বারের জন্য আমি স্কুলের দপ্তরি উজ্জ্বলের কাছে যাই। সে বলে ৫০০ টাকা দিলে পিন দিবে। তাই কোনো উপায় না পেয়ে বাধ্য হয়ে উজ্জ্বলকে ৫০০ টাকা দিয়ে পিন নাম্বার নিয়ে আসি।

এদিকে এই বিদ্যালয় ছাড়াও উপজেলার তেঘরিয়া ২নং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এক শিক্ষার্থীর উপবৃত্তির পুরো টাকা প্রতারণার মাধ্যমে নিয়ে গেছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ওই শিক্ষার্থীর মা লিপি আক্তার বলেন, আমার মেয়ে নাদিয়া তেঘরিয়া ২নং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ৪র্থ শ্রেণীর ছাত্রী। দপ্তরি উজ্জ্বলের দোকান আছে বাজারে। তাই মোবাইলে টাকার মেসেজ আসার পর আমি উজ্জ্বলের কাছে যাই। তখন উজ্জ্বল বলে পিন এনে দিবে ৩০০ টাকা লাগবে। কিন্তু আমি টাকা দিতে রাজি হইনি। তখন উজ্জ্বল প্রায় ১৫ মিনিট আমার মোবাইলে কি জানি করে। পরে আমি আরেক দোকানে টাকা তোলতে গেলে সে দোকানি আমাকে বলে টাকা নাকি ক্যাশ আউট হয়ে গেছে।

এসব অভিযোগের ব্যাপারে তেঘরিয়া ১নং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দপ্তরি উজ্জ্বল মিয়া বলেন, এই সব অভিযোগ মিথ্যা। আমি কারো কাছে কোনো টাকা দাবি করিনি। বরং পিন নাম্বার এন দেওয়ায় ২ জন অভিভাবক খুশি হয়ে আমাকে ৩০০ ও ১৭৫ টাকা দিয়ে গেছেন।  তিনি বলেন, নগদ একাউন্টের পিনতো আমার বা স্কুল কর্তৃপক্ষের কাছে থাকার কথা না। এই পিন কোড অভিভাবকরা সেট করেন। কিন্তু পিন কোড ভুলে গেলে আবার রিসেট করে আনা যায়। এজন্য আমার কাছে অনেকেই এসেছেন। আমি কয়েকজনের পিন রিসেট করেও দিয়েছি। কিন্তু কোনো টাকা নেইনি। এ অভিযোগ উঠায় প্রধান শিক্ষক স্যার আমাকে নিষেধ করেছেন এই কাজ করতে। তখন আমি আর কাউকে পিন রিসেট করে দেইনি।

উজ্জ্বল বলেন, ৯ বছর ধরে আমি এই স্কুলে কাজ করি। এমন কোনো অভিযোগ কখনো উঠেনি।  আমি গ্রামীণ রাজনীতির শিকার। আমাদের এলাকার একটি পক্ষ আমার পিছু লেগেছে। তারাই পরিকল্পিত ভাবে এই অপবাদ দিচ্ছে আমাকে।

এ ব্যাপারে তেঘরিয়া ১নং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুর রহমান বলেন, আমার স্কুলে প্রথম থেকে ৫ম শ্রেণী পর্যন্ত প্রায় ৫৯৭ জন শিক্ষার্থী এই উপবৃত্তির আওতায় আছে। আগে শিউর ক্যাশের একাউন্ট ছিল। এখন এগুলো নগদ একাউন্ট হয়েছে।

নতুন অ্যাপ তাই তার উপর অভিভাবকরা অনেকেই লেখাপড়া জানেন না। তাই তরা একাউন্টের পিন নাম্বার মনে রাখতে পারেন না। তখন তারা এজেন্টের কাছে যান। ওই এজেন্টরা তাদের কাছ তেকে টাকা হাতিয়ে নেন। এখানে আমার কোনো যোগসূত্র নেই। কারণ করোনার কারণে স্কুল বন্ধ হওয়ার পর সবার সাথেই অনেকটা যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন রয়েছে আমার।

দপ্তরি উজ্জ্বলের ব্যাপারে তিনি বলেন, এ ব্যাপারে তদন্ত হচ্ছে। উপজেলা শিক্ষা অফিসার এসে তদন্ত করে গেছেন। উজ্জ্বল কোনো প্রতারণা করে থাকলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। স্কুলের শিক্ষার্থীর অভিভাবক মাহমুদা খাতুনের অভিযোগের ব্যাপারে তিনি বলেন, এই নামে কেউ আমার আছে আসেনি। তিনি সম্পূর্ণ মিথ্যা অভিযোগ করেছেন। এত বছর ধরে সম্মানের এই চাকুরী করি। ২০০ আর ৩০০ টাকার লোভে পরে আমি সম্মান বিসর্জন দেওয়ার লোক না।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমি এলাকার রাজনীতির শিকার। গতবার করোনার সময় দরিদ্রদের প্রধানমন্ত্রীর উপহার ২৫০০ টাকা দেওয়া হয়। তখন ওইসব তালিকা যাচাই বাছাইরে জন্য আমিসহ কয়েকজন শিক্ষককে দায়িত্ব দেওয়া হয়। এই কারণে হয়তো কেউ ষড়যন্ত্র করেছেন আমাকে ফাঁসানোর জন্য।

লাখাই উপজেলা শিক্ষা অফিসার মো. মজনুর রহমান বলেনে, এ বিষয়ে জানতে আমাকে ইউএনও স্যার বলেছিলেন। আমি প্রাথমিক ভাবে ওই বিদ্যালয়ে গিয়েছি। কয়েকজনের সাথে বলেছি। অভিযোগের কিছু সত্যতা আছে। আমি পরিদর্শন করে এসে ইউএনও স্যারকে মৌখিকভাবে সব জানিয়েছি।

এ ব্যাপারে লাখাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা লুসিকান্ত হাজং বলেন, এ বিষয়ে অভিযোগ পেয়েছি। ইতোমধ্যে প্রাথমিক তদন্ত সম্পন্ন করেছেন উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা। পরবর্তীতে সকল ভুক্তভোগীসহ অভিযোগকারীদের সাথে কথা বলে তদন্ত প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা হবে। কেউ দোষী হলে তাকে শাস্তির আওতায় আনা হবে।

Developed By The IT-Zone