ঢাকামঙ্গলবার , ২১ এপ্রিল ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

আমরা এমন “মানবিক পুলিশ” সবসময় দেখতে চাই

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
এপ্রিল ২১, ২০২০ ৮:৫২ অপরাহ্ণ
Link Copied!

বার্তা সম্পাদক,দৈনিক আমার হবিগঞ্জ :  করোনা ভাইরাসের এই মহামারীতে সম্পুর্ণ এক ভিন্ন রূপে হাজির হয়েছেন পুলিশ বাহিনীর সদস্যরা। করোনা সংক্রমণ রোধে সাধারণ মানুষকে ঘরে রাখতে মাঠপর্যায়ে দায়িত্ব পালন করছেন তারা। আর এ কাজে নেমে রীতিমতো অসহায় মানুষের ত্রাতারূপে আবির্ভাব হয়েছেন পুলিশ সদস্যরা। যে কোনো সমস্যায় এখন সবার আগে কাছে পাওয়া যাচ্ছে পুলিশকেই। দিন-রাত আরামের ঘুম হারাম করে তাদের উপর অর্পিত দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছে এই বাহিনীর সদস্যরা। বর্তমান পস্থিতিতিতে মানবিক তৎপরতা পুলিশ বাহিনীকে এক ভিন্ন উচ্চতায় নিয়ে গেছে। নানা সময় সমালোচনার মুখে পড়া এই বাহিনী এখন ভাসছে প্রশংসায়। পরিণত হয়েছে মানুষের সত্যিকার বন্ধুতে। করোনা পরিস্থিতি আসার আগ থেকে হবিগঞ্জের সুযোগ্য পুলিশ সুপার মোহাম্মদ উল্ল্যাহর নেতৃত্বে নানাবিধ কর্মকান্ডে পুরো জেলা জুড়ে প্রশংসায় ভাসছেন পুলিশ সদস্যরা।

 

এলাকায় দাঙ্গা,বাল্যবিবাহ,দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার থেকে শুরু করে চুরি-ডাকাতি রোধে ব্যাপক কাজ করেছেন জেলা পুলিশ থেকে শুরু করে উপজেলার প্রতিটি থানার পুলিশ। সম্প্রতি করোনা ভাইরাসের হাত থেকে জনগণকে রেহাই দিতে স্থানীয় প্রশাসনের পাশাপাশি সচতেনতা বৃদ্ধিতে এমনকি বাজার তদারকি মোবাইল কোর্ট পরিচালনায় প্রতিনিয়ত অংশ নিচ্ছে এই পুলিশ বাহিনীর সদস্যরা। তবে ইদানিং করোনার কারণে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে মানুষ তাদের নিজনিজ এলাকায় আসার ফলে দাঙ্গা-হাঙ্গামাও একটু বেড়েছে। যেখানেই দাঙ্গা-হাঙ্গামা বা ঝঁগড়াঝাটি হচ্ছে সেখানকার দায়িত্ব পুলিশ সদস্যদের কাছে তাদের ব্যবহৃত মোবাইলে রিং দিলেই তারা যত দ্রুত সম্ভব সেখানে পৌছানোর চেষ্টা করছেন। করোনা পরিস্থিতি আসার পরে চুরি-ডাকাতি অনেকটা কমে গেছে। তবে ছোটখাট ছিঁচকে চোরদের উপদ্রপ একটু বেড়েছে ইদানিং।

 

বানিয়াচং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রঞ্জন কুমার সামন্ত’র সাথে কথা হলে তিনি জানান,আমরা বানিয়াচং থানা পুলিশ সুযোগ্য জেলা পুলিশ সুপার স্যার ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (বানিয়াচং সার্কেল) শেখ মো: সেলিম স্যার এর দিকনির্দেশনায় করোনা প্রতিরোধে সার্বক্ষনিক মাঠে রয়েছি। দিন নেই রাত নেই বানিয়াচংয়ের প্রতিটি অলিগলিতে বিচরণ করছে থানা পুলিশ। তারপর বিভিন্ন পয়েন্টে চেকপোস্ট বসিয়ে জনসাধারণকে সতর্ক করতে কাজ করে যাচ্ছে পুলিশ। একের অধিক লোক একত্রিত হলেই তাদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়া হচ্ছে। পুলিশ সদস্যরা একপ্রকাশ ঝুঁকির মধ্যেই কাজ করছে।

 

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (বানিয়াচং সার্কেল) শেখ মো: সেলিম দৈনিক আমার হবিগঞ্জকে বলেন-জাতির যে কোন দুর্যোগ ও ক্রান্তিলগ্নে পুলিশ জনগনের পাশে ছিল আছে আর থাকবে। মানুষকে নিরাপত্তা দেয়াই পুলিশ সদস্যদের কাজ। করোনা সংক্রমণ রোধে বর্তমান সময়ে পুলিশ গুরুত্বপুর্ণ কাজ করে যাচ্ছে। নিজেদের জীবন বাজি রেখে করোনা নামক অদৃশ্য শত্রুর সাথে বিনা অস্ত্রে যুদ্ধ করে যাচ্ছে তারা। আমরা সেই যুদ্ধে অবশ্যই সফল হব।

ছবি : (ফাইল ছবি) ছবিতে হবিগঞ্জে সুযোগ্য পুলিশ সুপার মোহাম্মদ উল্ল্যাহ ও পাশে রয়েছেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বৃন্দ। ছবিটি অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শেখ সেলিম এর ফেসবুক ওয়াল থেকে নেয়া–

হবিগঞ্জের সুযোগ্য পুলিশ সুপার মোহাম্মদ উল্ল্যাহ দৈনিক আমার হবিগঞ্জ কে জানান,পুলিশ জনগণের বন্ধু,পুলিশই জনতা আর জনতাই পুলিশ। এসব শ্লোগানকে বাস্তবে রুপ দিতে জনগণের সাথে গভীর সেতুবন্ধন স্থাপন করতে আমরা চেষ্টা করে যাচ্ছি। বর্তমান পরিস্থিতিতে কতটা মানুষের পাশে থাকা যায় এখন সেটাই পুলিশের জন্য খুব জরুরী কাজ হয়ে দাঁড়িয়েছে। করোনা ভাইরাসের এই দুর্যোগে অন্য কোনো সেবাদানকারী সংস্থার চাইতে পুলিশ পিছিয়ে নেই। আমরা সেবার মন মানুসিকতা নিয়ে মাঠে নেমেছি। সরকারের সকল নির্দেশনা মেনে সর্বপরি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর আন্তরিক দিক নির্দেশনা আমরা শেষ পর্যন্ত মেনে চলব । এতে জীবন বিপন্ন হলেও দায়িত্বপালন থেকে পিছপা হবেনা পুলিশ ।

Developed By The IT-Zone