ঢাকামঙ্গলবার , ২৬ জুলাই ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

আবু জাহির এমপির বিরুদ্ধে রাজনৈতিক দুর্বৃত্তায়নের অভিযোগ আনলেন আ’লীগ নেতা মাসুম মোল্লা

স্টাফ রিপোর্টার
জুলাই ২৬, ২০২২ ৯:৫১ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক প্রথম যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট আবুল হাসেম মোল্লা মাসুম গত সোমবার (২৫জুলাই) এক ফেসবুক পোস্টে এডভোকেট মোঃ আবু জাহির এমপির বিরুদ্ধে রাজনৈতিক দুর্বৃত্তায়নের অভিযোগ করেছেন। তাছাড়াও তিনি পোস্টে উল্লেখ করেন, আবু জাহির এমপি তার হাত ধরেই ছাত্র ইউনিয়ন থেকে ছাত্রলীগের রাজনীতিতে এসেছেন।

মাসুম মোল্লার ফেসবুক পোস্টটি হুবুহু তুলে ধরা হলো-  হায়রে!!! আজকের হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগ।দুঃখের কথা আর কি বলবো আশ্চর্য না হয়ে পারলাম না।

হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সভায় সভাপতি আলহাজ্ব জনাব আবু জাহির তার বক্তৃতায় বলেছে আমি নাকি ২০১৪ সালের উপজেলা নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ছিলাম! এবং সেজন্য নাকি আমাকে জেলা আওয়ামী লীগের কমিটি থেকে বাদ দেয়া হয়েছে। অথচ সেই নির্বাচনে জেলা আওয়ামী লীগের বর্তমান সাধারণ সম্পাদক জনাব আলমগীর চৌধুরীও নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাচনে প্রার্থী ছিলো।

আসল সত্য কথা হলো,আমি জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব জনাব আবু জাহিরের প্রতিহিংসার শিকার হয়েছি কারন হলো আমি ২০১৮ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে, হবিগঞ্জ -৩ আসনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী ছিলাম এবং ২০১৯ সালের ১১ই ডিসেম্বরের জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলনে সভাপতি প্রার্থী ছিলাম।

এই গুনাহ্ বা অপরাধের কারনেই আমাকে বাদ দেওয়া হয়েছে। অথচ আপনারা জেনে আশ্চর্যাণ্বিত হবেন যে, ২০১৪ সালে উপজেলা নির্বাচন কিংবা কোন স্থানীয় নির্বাচনেই নৌকা প্রতীকে নির্বাচন হয় নি।

বরং ২০১৪ সালের উপজেলা নির্বাচনে নৌকা প্রতীক বরাদ্দ না করলেও নেত্রীর মনোনয়ন বোর্ডের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী নির্ধারণ করে দেন। প্রতি বিভাগে একজন করে সমন্ময়কের দায়িত্ব দেন,সিলেট বিভাগের দায়িত্বে ছিলেন নেত্রীর বিশ্বস্ত ডাঃ কর্নেল কানিজ ফাতিমা এবং সেই সময় আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী হিসেবে লাখাই উপজেলায় আমিই ছিলাম।

হবিগঞ্জ জেলার আওয়ামী পরিবারের সর্বস্তরের নেতাকর্মীদের কাছে ও জেলা আওয়ামী লীগের সম্মানিত নেতৃবৃন্দের কাছে আমার প্রশ্ন আপনারা তো সবাই ভালো করে জানেন আমি কোনো সময়ই বিদ্রোহী নির্বাচন করি নাই।

কিন্তু আলহাজ্ব জনাব আবু জাহির জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হয়ে,জেলা আওয়ামী লীগের সভায় নেতাকর্মীদের সামনে কিভাবে এতবড় মিথ্যা কথা বলতে পারে যে আমি বিদ্রোহী ছিলাম??? আমি আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের নিকট ও সভানেত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নিকট বিচার প্রার্থী।

উল্লেখ্য,আমার হাত ধরেই উনি ছাত্র ইউনিয়ন থেকে ছাত্রলীগের রাজনীতি শুরু করেন। কিন্তু দুর্ভাগ্য আজ উনার ক্ষমতার জোরে ও প্রতিহিংসার কারনে,মিথ্যা অপবাদ দিয়ে আমাকে দলের কমিটি থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে। যা কোনদিনও আমার জন্য কাম্য ছিলো না।আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের নিকট ও সভানেত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নিকট বিচার চাই।

আমি ১৯৭৫ সালে চরম দুর্দিনে হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগকে সুসংগঠিত করেছি। ১৯৮০সালে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি, ১৯৮৫ সালে জেলা যুবলীগের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করি।

১৯৯৩ সালে আমি জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ভোটে নির্বাচিত হই এবং ২০১৩ সালেও পুনরায় জেলা আওয়ামী লীগের ভোটে নির্বাচিত সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করি।

অথচ আজকে সে আমাকেই বিদ্রোহী বানিয়ে দিল! কিন্তু বর্তমান কমিটিতে দেখা গেছে,নৌকা মার্কার বিরুদ্ধে সরাসরি বিদ্রোহী নির্বাচন করে সহসভাপতি পদ পেয়েছে,অনেকেই ৫৯ বছর চাকুরী করে অবসর জীবনে এসে দলীয় পদবী পায় কিভাবে !

কেউ কেউ সারা জীবন অন্য দল করে আওয়ামী লীগের সুদিনে এসে পদবী পায় কিভাবে? আবার কেউ কেউ ৭৫ এর পরে এবং ৮৫ সালের পরে দলের সাথে কোন সম্পর্ক না থাকার পরে ও দলে পদবী পায় !! পঁচাত্তর পরবর্তী চরম দুঃসময়, স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনের সময়ে, কিংবা বি.এন.পি জোট সরকারের আমলে দুর্দিনে যাদের বিন্দু মাত্র অবদান নেই।

একটা কথাই মনে রাখবেন, এই হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের পেছনে আমার ত্যাগ,অর্থ,পরিশ্রম ঘাম আজকের বেঈমান বিশ্বাস ঘাতকরা অস্বীকার করলেও ১৯৭৫ পরবর্তী চরম দুঃসময়ের রাজপথ কখনো অস্বীকার করবে না। আমিই পঁচাত্তর পরবর্তী আওয়ামী রাজনীতির দুর্দিনের সকল আন্দোলন সংগ্রামের একজন নীরব সাক্ষী। সামনে আবারও দুর্দিনে, দুঃসময়ে, আন্দোলন,সংগ্রামে দেখা হবে হবিগঞ্জের উত্তপ্ত রাজপথে।

Developed By The IT-Zone