ঢাকামঙ্গলবার , ৩০ আগস্ট ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে আজমিরীগঞ্জে আদালত প্রাঙ্গণেই চলছে ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলন

দিলোয়ার হোসেন,আজমিরীগঞ্জ
আগস্ট ৩০, ২০২২ ৮:২০ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

বিগঞ্জ জেলার বিভিন্ন নদনদী থেকে ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলনে আদালতের নিষেধাজ্ঞা থাকার পরও আজমিরীগঞ্জে সক্রিয় হয়ে উঠেছে বালুখেকো সিন্ডিকেট।

আদালতের নিষেধাজ্ঞাকে একরকম ওপেন চ্যালেঞ্জ করে আজমিরীগঞ্জ উপজেলা প্রশাসন ও আজমিরীগঞ্জ সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত প্রাঙ্গণেই নদী থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করছে এই চক্রটি।

সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, আজমিরীগঞ্জের কালনী নদী থেকে প্লাস্টিক পাইপ টানিয়ে, আজমিরীগঞ্জ কাকাইলছেও রাস্তা ও আজমিরীগঞ্জ-হবিগঞ্জ রাস্তা ভেঙে পাইপ টানিয়ে আজমিরীগঞ্জ উপজেলা প্রশাসন ও আদালত প্রাঙ্গণের সামনের স্থাপনায় অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করছে একদল অসাধু বালু ব্যবসায়ী।

রাস্তা ভেঙে পাইপ টানানোর কারণে বিগত দুইদিনে ঐ স্থানে একাধিক দুর্ঘটনার খবর পাওয়া গেছে। উপজেলা প্রশাসনের নাকের ডগায় অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করার পর প্রশাসনের নীরব ভূমিকায় এলাকাবাসী বিভিন্ন অভিযোগ করছে।

বালুখেকো সিন্ডিকেট নিয়ে খবরাখবর জানতে বিশদ তদন্তে উঠে আসে, বিগত দিনে বিএনপি রাজনীতির সাথে সরাসরি জড়িত কতিপয় ব্যক্তি বর্তমানে আওয়ামী লীগের সাইনবোর্ড ব্যবহার করে একরকম আদালতের সাথে মুখোমুখি অবস্থানে গিয়ে এই ড্রেজার মেশিন পরিচালনা করছে।

পরিচয় গোপন করে ড্রেজার ব্যবসার সাথে জড়িত একজনের সাথে আলাপ করলে সে জানায়,আমরা কালনী নদী থেকে বালু উত্তোলন করছি না,আজমিরীগঞ্জ উপজেলার আওতার বাইরে অন্য জায়গা থেকে বালু উত্তোলন করে আজমিরীগঞ্জে শুধু আনলোড করছি।

যে জায়গায় বালু উত্তোলন করছেন সেখানের বৈধ কোন অনুমতিপত্র বা বালু ক্রয়ের রশিদ এবং আজমিরীগঞ্জে বালু পরিবহন ও আনলোড করার জন্য প্রশাসন কোন অনুমতি দিয়েছে কিনা জানতে চাইলে তিনি সদুত্তর দেননি, শুধু বলেছেন আজমিরীগঞ্জ উপজেলা প্রশাসন আমাদের মৌখিক অনুমতি দিয়েছে। লিখিত কোন অনুমতি নেই আমাদের।

আদালতের নিষেধাজ্ঞা থাকার পরও মৌখিকভাবে ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলনের অনুমতি দেয়ার সত্যতা জানতে আজমিরীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার সুলতানা সালেহা সুমীকে মোবাইলে কল দিলে তিনি কল রিসিভ না করায় তার বক্তব্যে নেয়া সম্ভব হয়নি।

আজমিরীগঞ্জ উপজেলা সহকারী কমিশনার ভূমি শফিকুল ইসলামের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি জানান, আমাদের সরকারী কাজ মসজিদের মাটির জন্য মৌখিক অনুমতি দিয়েছি । হবিগঞ্জ জেলার আওতাধীন কোন নদী থেকে ওনারা মাটি উত্তোলন করলে আমাদের অবগত করবেন।

অন্য এরিয়া থেকে মাটি ক্রয়ের কোন বৈধ কাগজ পত্র দেখে আপনারা মৌখিক অনুমতি দিয়েছেন কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন ঐগুলি আমরা এখনও চেক করি নাই।

Developed By The IT-Zone