ঢাকাবৃহস্পতিবার , ৭ জুলাই ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

আজমিরীগঞ্জ খাদ্য গুদাম কর্মকর্তা বকুল কুমার বৈদ্যের বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু

দিলোয়ার হোসেন,আজমিরীগঞ্জ
জুলাই ৭, ২০২২ ৯:৫৩ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

দৈনিক আমার হবিগঞ্জে প্রকাশিত, প্রতিটনে ৫০০ টাকা করে উৎকোচ নিচ্চেন শিরোনামে সংবাদটি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নজরে পরার পর জেলা কারিগরি কর্মকর্তা আব্দুস সামাদ আজমিরীগঞ্জ খাদ্য গুদামে সরজমিন তদন্তে আসেন।

তদন্তের সময় খবর পেয়ে সরজমিন খাদ্য গুদামে গিয়ে দেখা যায় জেলা কারিগরি খাদ্য কর্মকর্তা আজমিরীগঞ্জ খাদ্য গুদামে তদন্ত কাজ করছেন। তবে তার তদন্ত নিয়ে সাধারন কৃষকরা হতাশ।

সরেজমিনে দেখা যায়,গুদামের ভিতরে অবস্হান নেওয়া ধান ব্যবসায়ী সিন্ডিকেটের একাধীক সদস্যদের তিনি জিজ্ঞেস করছেন,আপনাদের ওসিএলসডি সাব কি ভাল নি,সিন্ডিকেট ব্যবসায়ীর জবাব জী ভালো,ওনি আবার বলেন ওসিএলসডি কি কোন টাকা পয়সা নেয়,সিন্ডিকেট ব্যবসায়ীদের জবাব জী না স্যার।

সিন্ডিকেট ব্যবসায়ীদের তার এই তদন্ত তদন্ত খেলার ভিডিও করতে দেখা যায় তদন্তকারী কর্মকর্তা আব্দুস সামাদকে। সিন্ডিকেট ব্যবসায়ীদের মাঝে সাবেক ছাত্রলীগের কয়েকজন নেতা,বালু ব্যবসায়ী,সাংবাদিকের বাসায় হামলার দায়ে কারাগারে যাওয়া একাধিক ব্যক্তিকেও দেখা যায়।

সিন্ডিকেট ব্যবসায়ী ও তদন্তকারী কর্মকর্তার তদন্ত চলাকালীন সময় গুদামে অবস্থান রত ধানের বস্তা থেকে ধান নিয়ে আজমিরীগঞ্জ খাদ্য গুদাম কর্মকর্তা বকুল কুমার বৈদ্যকে আদ্রতা মাপতে দিলে সে আদ্রতা পায় ১৫.৫, পাওয়ার পর বকুল কুমার বৈদ্য বলেন বৃষ্টি ছিল তাই আদ্রতা বেশি।সাংবাদিকরা ধানে আদ্রতা বেশি পেলেও তদন্ত কর্মকর্তা আবদুস সামাদ দাবী করেন আদ্রতা ঠিক আছে।

গুদামের ভিতরের সার্বিক অবস্থা ও তদন্তে কি পেয়েছেন জানতে সরাসরি জেলা কারিগরি খাদ্য কর্মকর্তা আবদুস সামাদের মুখোমুখি হলে তিনি শাক দিয়ে মাছ ডাকার চেষ্টা করেন। তিনি বকুল কুমার বৈদ্যের পক্ষ নিয়ে নানান কথা বলতে থাকেন,কথা বলার এক পর্যায়ে তাকে সাংবাদিকরা গুদামে থাকা ধানে ময়শ্চার,আদ্রতা সবকিছুতে ঝামেলা আছে বললে তিনি প্রশ্নটি এড়িয় যান।

আবার তদন্তকাজে তিনি কৃষক হিসেবে যাদের বক্তব্য রেকর্ড করছেন তারা কেউই মূলত কৃষক নয়,এ প্রশ্নটি করার পরপরই গুদামে অবস্থানরত সিন্ডিকেট ব্যাবসায়ীরা তদন্ত কর্মকর্তা আব্দুস সামাদের সামনেই সাংবাদিকদের প্রতি চড়াও হয়ে যায়। সিন্ডিকেট ব্যবসায়ীদের মধ্যে কয়েকজন আবার সাংবাদিকদের মারতে তেরে আসে। ঘটনার তীব্রতা আচ করে সংবাদকর্মীরা ঘটনাস্থল ত্যাগ করেন।

উল্লেখ্য যে,ধান ব্যবসায়ী সিন্ডিকেটের মাঝে বিগত কয়েকদিন আগে নদী থেকে বালু উত্তোলনকারী সিন্ডিকেটের মহন মিয়া কেও দেখা যায়। মহন মিয়া সাংবাদিকের বাসায় হামলার দায়ে কয়েকদিন কারাভোগও করেন বলে তথ্য রয়েছে।

খাদ্যগুদামে অনিয়ম এবং অনিয়মের তদন্তকাজে আসা কর্মকর্তার অনিয়ম নিয়ে এলাকায় আলোচনা-সমালোচনা চলছে। অনেকের দাবী সিন্ডিকেট ব্যবসায়ীদের লাগাম না দিলে এ রকম অপকর্ম চলমানই থাকবে।

এ ব্যাপারে বিশদ জানতে জেলা খাদ্য কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) চাই থোয়াই প্রু মার্মার সাথে মোবাইলে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন,তিনি নিজেও তদন্তে গিয়েছলেন। তদন্তকালে কোন অনিয়ম দেখতে পাননি। তিনি জানান একজন কৃষক ৩ টন ধান দিতে পারেন। গোডাউনে একজন কৃষক ৬ টন ধান একই সাথে দিচ্ছে তাকে জানালে এর উত্তরে তিনি জানান ৬ টন ও ধান দিতে পারে। লটারি তালিকার কৃষকের বাইরে অন্যেরাও ধান দিচ্ছে জানালে তিনি তালিকা মুক্ত করা হয়েছে দাবি করেন।

 

Developed By The IT-Zone