ঢাকাFriday , 10 March 2023
আজকের সর্বশেষ সবখবর

আজমিরীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে জরুরী বিভাগে ওয়ার্ডবয় দিয়ে চলে চিকিৎসা !

Link Copied!

আজমিরীগঞ্জ সদর ৫০ শয্যা বিশিষ্ট স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে চিকিৎসা সেবা নিতে আসা রোগীদের ভোগান্তির শেষ নেই। ঘণ্টার পর ঘণ্টা বসে থাকার পরও কাঙ্খিত সেবা না পাওয়ার অভিযোগ আগত রোগীদের।

অভিযোগের ভিত্তিতে আজমিরীগঞ্জ ৫০ শয্যা বিশিষ্ট উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে একাধীকবার সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়, স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সের জরুরী বিভাগে সকাল ১১ টার পরে কোন চিকিৎসকের অস্তিত্ব নেই।

স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সের ওয়ার্ড বয় দ্বারা পরিচালিত হয় জরুরী বিভাগের সকল প্রকার কাজ। ওয়ার্ড বয় রোগী দেখা থেকে শুরু করে ঔষধ নির্দেশিকা পর্যন্ত প্রস্তুত করার তথ্যও পাওয়া গেছে। কোন স্বীকৃত ডাক্তার ছাড়া এইভাবে চিকিৎসা সেবা প্রদান করায় রোগীদের মাঝে হতাশা চরমে।

অনেকেই তাই বাধ্য হয়ে প্রাইভেট হাসপাতাল অথবা জেলা সদরে চিকিৎসার জন্য চলে যান। দিনের বেলা কর্তব্যরত অনেক ডাক্তারই সময়মত তাদের দায়িত্ব পালন করেন না বলেও তথ্য রয়েছে।

তন্মধ্যে কয়েকজন স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সের পরিবর্তে স্থানীয় প্রাইভেট ক্লিনিক মেডিল্যাবে চিকিৎসা প্রদান করেন বলে মর্মেও তথ্য রয়েছে।

গত বুধবার (৮মার্চ)রাত ১১ টায় জনৈক একজন রোগীর কল পেয়ে আজমিরীগঞ্জ ৫০ শয্যা বিশিষ্ট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গিয়ে দেখা যায়, ঐ রোগী ১ ঘণ্টা যাবত তার মা (রোগী) কে নিয়ে স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সের জরুরী বিভাগে অপেক্ষায় থাকলেও জরুরী বিভাগে কোন লোক নেই।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, জরুরী বিভাগের চিকিৎসকের দায়িত্বে রয়েছেন ডাঃ মারযিয়াহ লতিফ বৃষ্টি এবং ওয়ার্ড বয় মুরাদ বেপারী। খোঁজাখুঁজি করে ওয়ার্ড বয় মুরাদকে পাওয়া গেলে সে ইর্মাজেন্সিতে উপস্থিত না থাকার ব্যাপারে জানায় আমি বাথরুমে ছিলাম।

স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সের আবাসিক ডাক্তার ডাঃ সোহরাব হোসেনকে মোবাইলে কল দিলে তার নাম্বার বন্ধ পাওয়া যায়। তারপর দেখা যায় ওয়ার্ড বয় মুরাদ রোগী দেখছেন। সে কিভাবে রোগীর চিকিৎসা করছে জানতে চাইলে বলে বৃষ্টি ম্যাডাম ফোনে বলছে তাই আমি চিকিৎসা করছি।

ওয়ার্ডবয় দ্বারা চিকিৎসা সেবা দেওয়ার ব্যাপারে ডাঃ মারযিয়াহ লতিফ বৃষ্টির কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ইর্মাজেন্সি বিভাগে ডাক্তার বসার কোন জায়গা নেই, তাই আমরা ফোনে ওয়ার্ড বয়কে নির্দেশনা দেই। অবস্থা খারাপ থাকলে পাশেই বাসা নিজে এসে রোগী দেখি।

ওয়ার্ড বয় দ্বারা চিকিৎসাসেবা, ঔষধ সংকট, প্রাইভেট ক্লিনিকের সাথে যোগসাজশে সিজার বাণিজ্য, ডাক্তারদের কর্তব্যে অবহেলা আজমিরীগঞ্জ ৫০শয্যা বিশিষ্ট স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সর নিয়মিত দৃশ্য।

আজমিরীগঞ্জ উপজেলাবাসী চিকিৎসাসেবা নিয়ে অনেকাংশে ওয়ার্ডবয়-ডাক্তার-প্রাইভেট ক্লিনিকের দালালের কাছে জিম্মি। মৌলিক অধিকারের ৪নম্বর স্তর হওয়া এবং বাংলাদেশ সরকারের যোগপোযোগী চিকিৎসা সেবার মান উন্নয়ন করার পরও আজমিরীগঞ্জ ৫০ শয্যা বিশিষ্ট স্বাস্থ্যকমপ্লেক্স যেন রোগীদের কাছে আতংকের নাম।

আজমিরীগঞ্জ ৫০শয্যা বিশিষ্ট স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সের সব অনিয়ম এবং এসব প্রতিকারে কি ব্যবস্থা নেয়া হবে জানতে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ ইকবাল হোসেন বলেন, এ ব্যাপারে লিখিত অভিযোগ দেন, প্রমানাদী আমার সাথে শেয়ার করেন। কর্তব্যে কেউ অবহেলা করলে অবশ্যই যথাযথ ব্যবস্থা নিব।

হবিগঞ্জ জেলা সিভিল সার্জন ডাঃ মোহাম্মদ নুরুল হক দৈনিক আমার হবিগঞ্জকে বলেন, জরুরী বিভাগে ২৪ ঘণ্টা ডাক্তার থেকে আগত রোগীর চিকিৎসা সেবা নিশ্চিত করা হয়। কেউ দায়িত্বে অবহেলা করলে অবশ্যই ব্যবস্থা নেয়া হবে। আপনারা আজমিরীগঞ্জের টিএইচও’র সাথে বিস্তারিত শেয়ার করেন।