ঢাকাবৃহস্পতিবার , ৫ জানুয়ারি ২০২৩
আজকের সর্বশেষ সবখবর

আজমিরীগঞ্জে সরকারী খাস কৃষিজ জমি বরাদ্দের নামে চলছে নানা অনিয়ম

দিলোয়ার হোসেন,আজমিরীগঞ্জ
জানুয়ারি ৫, ২০২৩ ৩:৪৮ অপরাহ্ণ
Link Copied!

আজমিরীগঞ্জে কালনী নদী ভরাট হয়ে পতিত কৃষিজ জমি বরাদ্দের নামে চলছে নানা অনিয়ম।কালনী নদীর তীরে জনপ্রতি ৫০ শতক করে মোট ১৩৫০ শতক জায়গা কৃষিকাজ করার জন্য নির্দিষ্ট ফি এর বিনিয়মে সরকারী ভাবে বরাদ্দ দেওয়া হবে মর্মে উপজেলা প্রশাসন আজমিরীগঞ্জের মৌখিক ঘোষনার পর আজমিরীগঞ্জ পৌর এলাকা থেকে প্রায় ১১৪ জন কৃষক জমি বরাদ্দ পাওয়ার জন্য আজমিরীগঞ্জ উপজেলা প্রশাসন বরাবর আবেদন জমা দেয়।

আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে গত ডিসেম্বর মাসে আজমিরীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়ে আজমিরীগঞ্জ সহকারী কমিশনার ভূমি শফিকুল ইসলামের উপস্থিতিতে লটারীর মাধ্যমে ২৭ জন কৃষকের মাঝে উক্ত ১৩৫০ শতক কৃষিজ প্রতি ১জনে ৫০ শতকে ৪ হাজার টাকা ফি নির্ধারিত করে বরাদ্দ দেওয়া হয়।

লটারীর পরের দিন থেকে লটারি প্রাপ্ত কৃষকরা ফি বাবদ ৪ হাজার টাকা জমা দিয়ে রশিদ চাইলে আজমিরীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসারে অফিস সুপার তজিমুল হক জানান,টাকা দেও,জমি কর,জমি কোন একবারে দিতাছি না,রশিদ দেয়া যাবে না। আর বেশি কথা বললে আর মানুষ আছে বাদ দিয়ে তাদের বরাদ্দ দিয়ে দেব।

সূত্রমতে ২৭ জন কৃষকের মধ্য ২৬ জন ৪ হাজার টাকা করে ১ লক্ষ ৪ হাজার টাকা তজিমুল হকের নিকট জমা দেন কিন্তু উক্ত ২৬ জনের কাউকেই কোন প্রকার প্রাপ্তি রশিদ দেয়া হয়নি।

টাকা পরিশোধের পর নির্দিষ্ট জায়গায় জমি বুঝিয়ে দিতে আজমিরীগঞ্জ উপজেলা ভূমি অফিসের সার্ভেয়ার মানিক মিয়া লটারী সিরিয়াল ভঙ্গ করে তার মনগড়া উপায়ে নির্দিষ্ট ব্যাক্তিবর্গকে উৎকোচের বিনিময়ে ভাল জমি বুঝিয়ে দিয়ে সাধারন কৃষকদের কৃষিকাজের অনুপোযোগী জমি বুঝিয়ে দেন বলে কয়েকজন কৃষক অভিযোগ করেন।

লটারীর মাধ্যমে জমি প্রাপ্ত আজমিরীগঞ্জ পৌর এলাকার মিছবাউল হক জানান,লটারীর পরের দিন থেকে ইউএনও অফিস সুপার তজিমুল ভাই আমাকে একাধীক কল দিলেও সরেজমিন জমি বুঝিয়ে দেয়ার দিন আমাকে জানানো হয়নি।

জমি বুঝিয়ে দেয়ার বিকালে জানতে পারি ২৬ জন কৃষককে জমি বুঝিয়ে দেয়া হয়েছে।পরেরদিন সকালে গিয়ে দেখি লটারী লিস্টে থাকা সিরিয়াল না মেনে সার্ভেয়ারের মনগড়া ভাবে প্রভাবশালী কয়েকজনকে ভাল মানের জমি দিয়ে আমাদের কৃষিজ কাজে অযোগ্য বেশির ভাগ জমি দেয়া হয়েছে।

সরকারিভাবে বরাদ্দ দেয়ার কথা থাকলেও আবেদন নেয়ার জন্য উপজেলা প্রশাসনের নোটিশ বোর্ডে কোন নোটিশ না পাওয়া,টাকা গ্রহন করে কোন ধরনের রশিদ না দেয়া,সার্ভেয়ারের জমি বুঝিয়ে দেয়ায় অনিয়ম সহ উপজেলা প্রশাসনের মৌখিক ভাবে সরকারী জমি বরাদ্দের নিয়মকে তুয়াক্কা না করা নিয়ে আজমিরীগঞ্জে চলছে নানান আলোচনা-সমালোচনা।

কৃষিজ জমি বরাদ্দের ব্যাপারে সাধারণ কৃষকদের অভিযোগের ব্যাপারে আজমিরীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার সুলতানা সালেহা সুমি কে মোবাইল কল দিলে তিনি রিসিভ না করায় তার মন্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।

আজমিরীগঞ্জ সহকারী কমিশনার ভূমি শফিকুল ইসলামের সাথে অনিয়মের ব্যাপার জানিয়ে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন,ইউএনও মহোদয়ের সরাসরি তদারকিতে উক্ত বরাদ্দের কাজটি করা হয়েছে,আমি ওনার সাথে আলাপ করে আপনাদের বলতে পারবো।

Developed By The IT-Zone