ঢাকামঙ্গলবার , ২৪ আগস্ট ২০২১
আজকের সর্বশেষ সবখবর

আজমিরীগঞ্জে নাম সর্বস্ব সমবায় সমিতির নামে কাগজে-কলমে চলছে সুদের ব্যবসা

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
আগস্ট ২৪, ২০২১ ৯:০৮ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

দিলোয়ার হোসেন :   আজমিরীগঞ্জে সরকারি অনুমোদন ছাড়াই ক্ষুদ্র ঋণ ব্যবসা জমজমাটভাবে করছে কিছু এনজিও ও নাম সর্বস্ব সমবায় সমিতি। তাদের অনেকেরই নেই নিবন্ধন। এসব সমিতি কিংবা এনজিওর ঋণের বোঝায় পড়ে সর্বস্বান্ত হচ্ছেন এলাকার কৃষক ও ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা।

অনুসন্ধানে জানা যায়, উপজেলার পাঁচটি ইউনিয়ন যথাক্রমে, জলসুখা, বদলপুর, কাকাইলছেও, শিবপাশাও সদর ইউনিয়নে প্রায় ২০-৩০ টি এনজিও ক্ষুদ্র ঋণের নামে মূলত কাগজে কলমে সুদের ব্যবসা করছে। জরুরি প্রয়োজনে ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী ও দিনমজুররা এদের কাছ থেকে চড়া সুদে ঋণ নিয়ে আটকা পড়ছে কড়া সুদের জাতাকলে । সুদ ও ঋণের টাকা পরিশোধ করতে গিয়ে অনেকে ঘরের আসবাবপত্র বিক্রি করছেন, আবার অনেককে ঘরবাড়ি বিক্রি করে চলে যেতে হয়েছে অন্যত্র।

খোজঁ নিয়ে দেখা গেছে, বেশিরভাগ এনজিও বা সমিতির কোনো সরকারি নিবন্ধন নেই। কিন্তুু তারা স্বাচ্ছন্দে মনমজাইয়া ক্ষুদ্রঋণের ব্যবসা করে আসছেন। নিয়ম অনুযায়ী একটি এনজিওর ক্ষুদ্র ঋণ কার্যক্রম পরিচালনার জন্য বাংলাদেশ ব্যাংকের মাইক্রো ক্রেডিট রেগুলেটরি অথরিটির নিবন্ধন নিতে হয়। আর সমিতির ক্ষেত্রে সমাজসেবা ও সমবায় অধিদপ্তরের নিবন্ধন নিয়ে শুধু নিজেদের সদস্যদের কাছ থেকে সঞ্চয় গ্রহণ ও ঋণ দেয়ার কথা। কিন্তু এসব এনজিও ও সমিতি সরকারি নিয়মনীতির কোন তোয়াক্কা না করে দেদারসে তাদের ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। এসব অনুমোদনহীন সংস্থা পাশ বইয়ের মাধ্যমে ঋণের কিস্তির টাকা তুলছে।

 

 

 

 

 

 

 

ছবি : নিবন্ধনবিহীন একটি সমবায় সমিতির পাশ বই

 

 

 

 

 

 

 

সাপ্তাহিক ২০% হারে সুদে কোন কোন এনজিও বা সমিতি ঋন প্রদান করে উক্ত ঋণের সুদ আদায়ের অভিযোগ ও পাওয়া গেছে বিভিন্ন জায়গায়। অনেক ভুক্তভোগী অভিযোগ করে বলেন, এসব সংস্থার সভাপতি-সম্পাদকরা দিনে দিনে আঙুল ফুলে কলা গাছ বনে যাচ্ছেন। তাদের প্রভাবের কারণে কেউ কিছু বলতে পারে না। শুধুমাত্র বদলপুর ইউনিয়নে ই ১৫ এর অধিক সমিতির খবর পাওয়া গেছে। যেগুলির মধ্যে আবার কয়েকটি টাকার অংকে তাদের সমিতিকে কোটি টাকার মূল্যে নিয়ে গেছে।

উল্লেখযোগ্য কয়েকটি এনজিও সমিতির মধ্যে বন্ধন,প্রথম আলো,জিএইচপিএল,সেভেন স্টার এনজিওগুলি করা সুদে ব্যবসা করে শুধুমাত্র বদলপুরেই কোটি টাকার এনজিওতে পরিনত হয়েছে। আজমিরীগঞ্জ সচেতন সমাজ এই ধরনের ব্যবসাকে কাগজে কলমে প্রকাশ্যে “সুদের ব্যবসা’ আখ্যা দিয়ে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার দাবি করেছেন।

নিবন্ধনবিহীন সমিতি কিভাবে চালাচ্ছেন জানতে চাইলে প্রথম আলো এনজিও পরিচালক নিবারন দাসকে তার মোবাইল নাম্বারে রিং দিলে তিনি রিং ধরেন নি। সেভেন স্টার সমিতির পরিচালক গনেন তালুকদার জানান,তারা এরকম কোন সমিতি চালান না।

অন্যদিকে বন্ধন সমিতির পরিচালক রাজেশ দাস প্রতিবেদকের পরিচয় পাওয়ার পরপরই কল কেটে দেন। জিএইচপিএল সমিতির পরিচালক তাপস দাস জানান,সমিতি চালান তবে সমিতি চালাতে কোন ধরনের নিবন্ধন আমরা নেয়নি। সমিতির নামে পাশবই করে কড়া সুদে ঋণ, সমিতির সদস্যদের বাইরে ঋণ দেওয়া যায় কিনা জানতে চাইলে আজমিরীগঞ্জ উপজেলা সমবায় কার্যালয়ের সহকারী পরিদর্শক দুলাল দেব রায় দৈনিক আমার হবিগঞ্জকে জানান,সমবায় আইনে আছে নিবন্ধন ছাড়া কেউ যদি সমিতির পূর্বে সমবায় ব্যবহার করে তাহলে সমবায় আইনের ৯ ধারা অনুযায়ী ৭ বছরের জেল অনাদায়ে ন্যুনতম ১০ লক্ষ টাকা জরিমানা করার বিধান রয়েছে।

আমরা খোঁজ নিচ্ছি কেউ যদি আজমিরীগঞ্জে এমন করে তাহলে অবশ্যই আমরা ব্যবস্থা নিব। এ ব্যাপারে আজমিরীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সুলতানা সালেহা সুমি দৈনিক আমার হবিগঞ্জকে জানান,এইসকল এনজিও,সমবায় সমিতির বিরুদ্ধে কেউ লিখিত অভিযোগ দিলে আমি অবশ্যই ব্যবস্থা গ্রহন করব।

এ ব্যাপারে হবিগঞ্জ জেলা প্রশাসক ইশরাত জাহানের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি দৈনিক আমার হবিগঞ্জকে জানান,উক্ত ব্যাপারে আমার কাছে এখনও কোন অভিযোগ আসেনি। অভিযোগ আসলে আমি অবশ্যই আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করব।

Developed By The IT-Zone