ঢাকামঙ্গলবার , ৮ মার্চ ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

আজমিরীগঞ্জে চাকরি দেয়ার নামে উৎকোচ আদায়ের অভিযোগ পিইডিপি-৪ প্রকল্পের কর্মকর্তা আলমগীরের বিরুদ্ধে

দিলোয়ার হোসেন,আজমিরীগঞ্জ
মার্চ ৮, ২০২২ ৯:৪০ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

আজমিরীগঞ্জে উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা বুরো,প্রাথমিক ও গনশিক্ষা মন্ত্রলানয়ের অধীনে আউট অব স্কুল চিলড্রেন এডুকোশেন প্রোগ্রাম পিইডিপি-৪,সাব-কম্পোনেন্ট ২.৫ প্রকল্পে ব্যাপক হারে শিক্ষক নিয়োগ বাণিজ্যের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

পিইডিপি-৪ প্রকল্পে আজমিরীগঞ্জ উপজেলাধীন পৌরসভা ও প্রতিটি ইউনিয়নে ওয়ার্ড ভিত্তিক প্রাথমিক পর্যায়ে ঝড়ে পড়া শিশুদের শিক্ষা প্রদানের জন্য উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা বুরো,প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীনে এই প্রজেক্টটি চালু করা হয়।

প্রকল্প কর্মকর্তা আলমগীর হোসেন অনেকটা নিজের মন-মর্জিতে নিজস্ব লোক সুপারভাইজার নিয়োগ দিয়ে শিক্ষক নিয়োগ কার্যক্রম শুরু হওয়ার ৬ মাস আগে থেকেই আবেদন নেয়া শুরু করেন বলে স্পষ্ট অভিযোগ রয়েছে দৈনিক আমার হবিগঞ্জের হাতে ।

অভিযোগের ভিত্তিতে সরজমিন ঘুরে এবং আমাদের বিভিন্ন সূত্রে খবর নিয়ে জানা যায়,উক্ত প্রজেক্টের প্রকল্প কর্মকর্তা আলমগীর হোসেন কোনরকম নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ছাড়াই বিগত কয়েক মাস যাবত আজমিরীগঞ্জ উপজেলাধীন পৌরসভা ও ৫ টি ইউনিয়ন থেকে অনেকটা তার মর্জিমত শিক্ষক নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু করেন।

আজমিরীগঞ্জ উপজেলায় এই প্রকল্পের আওতাধীন ৭০ জন শিক্ষক নিয়োগ দেবেন বলে তার লোকজন দিয়ে প্রচারের ভিত্তিতে ৩৫০টি আবেদন তার অধীনে জমা পড়ে।

নিকটাত্মীয় লোকজনকে সুপারভাইজার নিয়োগ দিয়ে তাদের মাধ্যমেই উক্ত প্রকল্পে শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ দিবেন প্রতিশ্রুতিতে প্রতিটি শিক্ষক আবেদন ফর্মের বিপরীতে সর্বনিম্ন ১-৪ হাজার টাকা পর্যন্ত উৎকোচ নিয়েছেন বলে আমাদের কাছে সুস্পষ্ট প্রমান রয়েছে।

বিগত ২০২১ সালের নভেম্বর মাসে শিক্ষক হিসেবে আবেদন করা পৌরসভাধীন কয়েকজন আবেদনকারী তার কার্যালয়ে প্রতিনিয়ত খোঁজ নিতে থাকেন তাদের নিয়োগ কখন কনফার্ম করা হবে। তাদেরকে নয়-ছয় বুঝিয়ে অদ্যবদি পর্যন্ত আলমগীর হোসেন কোন নিয়োগ দেননি।

বিগত ০৬ মার্চ ২০২২ ইং হবিগঞ্জের একটি স্হানীয় দৈনিকে উক্ত প্রকল্পে আজমিরীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার সুলতানা সালেহা সুমির স্বাক্ষরিত একটি শিক্ষক নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ হলে আবেদনকারীদের মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়।

তারা অনেকেই সাথে সাথে প্রকল্প কর্মকর্তা আলমগীর হোসেনকে কল দিলে তিনি কারো কল রিসিভ করেন নি আবার রিসিভ করলে শাক দিয়ে মাছ ডাকা টাইপের কথাবার্তা বলতে শুরু করেন।

অভিযোগের ভিত্তিতে পিইডিপি-৪ প্রকল্প কর্মকর্তা আলমগীর হোসেনের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে তিনি জানান,নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের আগে তিনি কোন আবেদন গ্রহন করেন নাই ।

আবার শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ দেয়ার প্রতিশ্রুতিতে কোন টাকাও গ্রহন করেননি। টাকা গ্রহনের স্পষ্ট প্রমান আমাদের কাছে আছে বললে তিনি বিরক্তির সুরে বলেন,ইউএনওকে কল দেন আমারে কেন কল দিলেন বলে লাইনের সংযোগ কেটে দেন।

পিইডিপি-৪ এর বিস্তারিত জানতে এবং আলমগীর হোসেনের উৎকোচ গ্রহনের ব্যাপারে প্রমানসাপেক্ষে কোন ব্যবস্থা নেয়া হবে কিনা জানতে আজমিরীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার সুলতানা সালেহা সুমির সাথে হোয়াটসঅ্যাপে প্রমানসহ যোগাযোগ করলে তিনি জানান,তদন্ত সাপেক্ষেে অনিয়ম প্রমান হলে অভিযুক্তদের ব্যাপারে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

 

Developed By The IT-Zone