ঢাকাশনিবার , ১২ ফেব্রুয়ারি ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

আজমিরীগঞ্জে কোটি টাকা বাজেটের রাস্তা সংস্কার কাজে অনিয়ম

দিলোয়ার হোসেন,আজমিরীগঞ্জ
ফেব্রুয়ারি ১২, ২০২২ ৪:১৬ অপরাহ্ণ
Link Copied!

আজমিরীগঞ্জে এলজিইডির অধীনে ১ কোটি ৪ লক্ষ টাকা বরাদ্দের মাধ্যমে আজমিরীগঞ্জ- পাহাড়পুর সড়কের বিভিন্ন পয়েন্ট সর্বমোট ১৬৫০ মিটার রাস্তার সংস্কার কাজ চলছে। বিভিন্ন লোকমুখে রাস্তা সংস্কার কাজে ঠিকাদার ও দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রকৌশলীর যোগসাজশে নিম্নমানের কাজের মাধ্যমে লক্ষ লক্ষ টাকা লুপাট করছে বলে অভিযোগ উঠেছে ।

সরেজমিনে রাস্তা সংস্কার কাজ পরিদর্শন করে দেখা যায়,রাস্তা সংস্কারের কাজ স্থানীয় ঠিকাদার বাদল রায় টেন্ডারের মাধ্যমে প্রাপ্ত হন । পরবর্তীতে শিডিউল মোতাবেক কাজ শুরু হয়। রাস্তা সংস্কার কাজের পিরিজপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পাশে ঢালাই কাজ পরিদর্শন করে দেখা যায়,এলজিইডি থেকে দায়িত্বপ্রাপ্ত উপ সহকারী প্রকৌশলী মোসাদ্দেকুল ইসলাম ও সার্ভেয়ার আপেল মাহমুদ মেহেদী ঢালাই কাজ চালু থাকলেও ঢালাইকৃত স্থানে তদারকীর জন্য তারা অনুপস্থিত।

ঠিকাদারের লোকজন কোন রকম নিয়ম নীতির তোয়াক্কা না করে নিজেদের মনগড়া নিয়মে ঢালাই কাজ চালাতে থাকে। রাস্তা সংস্কারে ঢালাই এভারেজে ৪ ইঞ্চি হওয়ার কথা থাকলেও আমাদের নিজস্ব তদন্তে বেশির জায়গা ৩ ইঞ্চি ঢালাইও পাওয়া যায়নি । বেশিরভাগ স্থানে ২.৫ ইঞ্চি এবং কিছু জায়গায় ৩ ইঞ্চি ঢালাই পাওয়া যায়।

ঢালাই কাজে ব্যবহৃত নির্মাণ সামগ্রীর মান নিয়ে আমাদের কাছে সন্দেহ দেখা দিলে নির্মান সামগ্রী পরিদর্শন করে দেখা যায়,ঢালাই কাজে ব্যবহৃত  পাথর যেন ময়লা আবর্জনার স্তূপ। সংস্কার কাজে ব্যবহৃত নেটের জালি বিভিন্ন জায়গায় বিভিন্ন রকম দেখতে পাওয়া যায়।

এলজিইডির নিয়ম অনুসারে দায়িত্ব প্রাপ্ত উপসহকারী প্রকৌশলী,সহকারী প্রকৌশলীদের ঢালাই স্থানে উপস্থিত থাকার কথা থাকলেও রহস্যজনক কারনে বেশিরভাগ ঢালাইয়ের ক্ষেত্রে তাদের অনুপস্থিতি নিয়ে এলাকায় আলোচনা-সমালোচনা চলমান ।

আবার অনেক সময় এলজিইডির কর্তৃপক্ষ হতে চতুর্থ শ্রেণীর এক-দুইজন সাইটে ঢালাইয়ের সময় উপস্থিত থাকলেও প্রতিদিন একটা নির্দিষ্ট হারে পকেটমানির বিপরীতে তাদের সামনেই চলে বিভিন্ন অনিয়ম।

সাংবাদিক ও সচেতনমহল অনিয়ম নিয়ে সরাসরী স্পটে কথা বললে চতুর্থ শ্রেণীর কর্মচারীরা শাক দিয়ে মাছ ঢাকার চেষ্টা করতেও দেখা যায়। আবার অনেকই মনে করেন ঠিকাদার – প্রকৌশলীর যোগসাজশে অনেকটা ইচ্ছাকৃতভাবে অনিয়মের মাধ্যমে বরাদ্দকৃত টাকা নিজেদের পকেটে ঢুকিয়ে থাকেন।

আজমিরীগঞ্জের সচেতন মহলের কেউ কেউ অনেকটা মজার সুরেই বলতে শোনা যায় “ঠিকাদার-ইঞ্জিনিয়ার ভাই,ভাই রাস্তাঘাট,স্কুল কলেজের মানসম্মত কাজের উপায় নাই”।

শুধুমাত্র আজমিরীগঞ্জ-পাহাড়পুর রোড সংস্কারের কাজই না নিকট অতীতে আজমিরীগঞ্জে এলজিইডির অর্থায়নে ও তত্ত্বাবধানে অনান্য রাস্তাঘাট,স্কুল ও বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজে ঠিকাদারের সাথে কমিশন বাণিজ্যের মাধ্যমে নির্মানকাজে অনিয়ম করা হয় বলে লোকমুখে প্রচার রয়েছে ।

তত্ত্বাবধানে নিয়োজিত ব্যক্তিরা অনিয়মে জড়িয়ে পড়ায় আজমিরীগঞ্জের অধিকাংশ রাস্তাঘাটই নির্মানের বছরখানেক পরেই চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়ে। তখন দায়িত্বশীল ব্যক্তিরা ভাটি এলাকা,বন্যাসহ বিভিন্ন প্রাকৃতিক দূর্যোগের দোহাই দিয়ে নিজেদের দায় সাড়ে বলে তথ্য রয়েছে।

আজমিরীগঞ্জ-পাহাড়পুর রোড সংস্কার কাজে ঠিকাদারের বিভিন্ন অনিয়মের ব্যাপারে অবগত করতে আজমিরীগঞ্জ উপজেলা প্রকৌশলী তানজিম উল্লাহ সিদ্দিকির সাথে যোগাযোগ করলে তিনি দৈনিক আমার হবিগঞ্জ কে জানান, কোথায়ও অনিয়ম হচ্ছে বলে আমার মনে হয় না।

আপনাদের কাছে প্রমান থাকলে আমাকে দেন। তার হোয়াটসঅ্যাপ অনিয়মের এইচডি কোয়ালিটির ভিডিও প্রেরন করলে তিনি ভিডিও দেখে আমাদের পরবর্তীতে নিজেই কল দিয়ে জানান,দেখুন ঢালাই দিতে গেলে মাঝে মাঝে এদিক সেদিক হয়। আপনারা ভালভাবে পর্যালোচনা করে নিউজ করেন ।

Developed By The IT-Zone