ঢাকারবিবার , ২৩ জানুয়ারি ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

আজমিরীগঞ্জে কে বেশি শক্তিশালী প্রশাসন নাকি বালুখেকো সিন্ডিকেট? জনমনে প্রশ্ন

দিলোয়ার হোসেন,আজমিরীগঞ্জ
জানুয়ারি ২৩, ২০২২ ৫:৩৬ অপরাহ্ণ
Link Copied!

আজমিরীগঞ্জে ড্রেজার ও এক্সাভেটর দিয়ে বালু উত্তোলন দিনকে দিন বেড়েই চলছে। প্রশাসনের নাম মাত্র কয়েকটা অভিযানের পর আরো ঝেকে বসেছ বালুখেকোরা।

এই সংবাদ প্রকাশ করা পর্যন্ত কালনী-কুশিয়ারা নদীতে ১ কিলোমিটারের ভিতরে দুইটি ড্রেজার মেশিন,বদলপুর ইউনিয়নের ৬ টি স্পট,শিবপাশার ২ টি স্পট,ও কাকাইলছেও ইউনিয়নের কামালপরে ১ স্পটে এক্সাভেটর দিয়ে অবিরাম ফসলী জমি কেটে বালু উত্তোলন করে কোটি টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে বালুখেকো সিন্ডিকেট। ড্রেজার,এক্সাভেটর ছাড়াও কালনী নদীর তীর থেকে হাতে কেটে ট্রলি দিয়ে মাটি বিক্রি করছে আরেকটি সিন্ডিকেট।

এসব ব্যাপারে বিগত একমাসে একাধীকবার সংবাদ প্রকাশ করার পরও মিলছে না কোন সুষ্টু প্রতিকার।

বদলপুরের ঝিলুয়া গ্রামে এক্সাভেটর চালকের সাথে পরিচয় গোপন রেখে কথা বললে সে বলে,প্রশাসন বলতে ইউএনও ম্যাডাম। ওনি মহিলা মানুষ এতদূর আসবেন না এটা চিন্তা করেই আমরা এক্সাভেটর চালাই। বৃহস্পতিবার দিনে বন্ধ রাখি,ঐদিন নাকি এসিল্যান্ড উত্তম বাবু আয়,ওনি ডিয়ারিং মানুষ কখন আসে বলা যায়না। তবে উপজেলায় আমাদের মানুষ আছে,সব সময় খোঁজখবর দেয়।

বদলপুরে কালনী-কুশিয়ারা নদীতে চালিত ড্রেজার মেশিন নাকি অনুমতি আছে। তারা বলে এলজিআইডির দুটি কেল্লা নির্মানের মাটি তারা নদী থেকে তুলছে। যে জায়গা থেকে মাটি তুলছে সে জায়গা অনুমোদিত বালু মহাল কিনা সে প্রশ্নের সদুত্তর ড্রেজার পরিচালকরা দেননি।

শিবপাশার পাচআইক্কা ব্রীজের পাশে রাতের আধারে এক্সাভেটর চালু দেখে দৈনিক বিজয়ের কন্ঠ (সিলেট) আজমিরীগঞ্জ প্রতিনিধি রাইসুল ইসলাম নাইম ঐ এক্সাভেটরের ছবি উটাইলে উক্ত এক্সাভেটর মালিক কল দিয়া তাকে পরবর্তীতে দেখে নিবে বলে হুমকি দেয় এবং তার পরিচয় দেয় স্হানীয় নেতা মকবুল নামে। পরবর্তীতে ঐ রাতে রাইসুল ইসলাম নাইম উক্ত এক্সাভেটর মালিক মকবুল মিয়ার নামে আজমিরীগঞ্জ থানায় সাধারন ডায়েরি দায়ের করেন।

এছাড়াও আজমিরীগঞ্জ পৌরসভাধীন কালনী-কুশিয়ারা নদীতে যেখানে মাসখানেক আগেও ভ্রাম্যমান কোর্টে ৪ জনকে জেল দেওয়া হয়েছিল সেই একই সিন্ডিকেটের ড্রেজার সচল অবস্থায় দিনে-রাতে একাধারে বালু উত্তোলন করে চলেছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে আরেক এক্সাভেটর চালক দৈনিক আমার হবিগঞ্জ কে জানায়,দেখুন ড্রেজার,এক্সাভেটর চললে ইউএনও এর কোন সমস্যা নাই। ইউএনও বলছে আপনারা(সাংবাদিকরা) তাকে এ ব্যাপার নিয়ে বেশি জ্বালাতন করেন। সে যাতে আপনাদের তথ্যের উপর ভিত্তি করে সারা উপজেলা ঘুরতে পারে সে জন্য নতুন সু জুতা কিনছেন। ইউএনও এর কথাগুলি তাকে বলছেন কিনা জিজ্ঞেস করলে সে অকপটে বলে হ্যা আমাকেই বলছেন।

অনিয়ন্ত্রিতভাবে এভাবে হঠাৎ করে বালুখেকো সিন্ডিকেটের বালু উত্তোলন বেড়ে যাওয়ায় সাধারন মানুষ আতংকিত হয়ে পড়েছে। বালুখেকো সিন্ডিকেটের রোষানলের কারনে সাংবাদিকরা সংবাদ সংগ্রহে যেতেও নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে।

প্রশাসনের অভিযানের তুলনায় বালুখেকো সিন্ডিকেটের পদচারনা শতভাগ বেশি হওয়ায় আজমিরীগঞ্জে মানুষের মুখে মুখে একটাই প্রশ্ন কে বেশি শক্তিশালী প্রশাসন নাকি বালুখেকো সিন্ডিকেট?

বদলপুরে কালনী-কুশিয়ারা নদীতে চালিত ড্রেজারটি অনুমোদিত বালুমহালে কি না জানতে চেয়ে আজমিরীগঞ্জ উপজেলা প্রকৌশলী তানজিম উল্লাহ সাথে যোগাযোগ করলে তিনি দৈনিক আমার হবিগঞ্জ কে জানান,আমরা এ ব্যাপারে ইউএনও মহোদয়ের কাছ থেকে অনুমতি নিয়েছি।

হঠাৎ করে বালুখেকোদের দৌরাত্ম বেড়ে যাওয়া,এবং এক্সাভেটর চালকের সাংবাদিকদের সম্পর্কে দেওয়া বিবৃতি সম্পর্কে জানতে আজমিরীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার সুলতানা সালেহা সুমি সাথে যোগাযোগ করতে একাধীকবার কল করেও তিনি কল রিসিভ না করায় তার বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।

Developed By The IT-Zone