ঢাকামঙ্গলবার , ৫ জুলাই ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

আজমিরীগঞ্জে উৎকোচের বিনিময়ে ধান সংগ্রহ করছেন গুদাম কর্মকর্তা বকুল কুমার বৈদ্য

দিলোয়ার হোসেন,আজমিরীগঞ্জ
জুলাই ৫, ২০২২ ৬:৪৯ অপরাহ্ণ
Link Copied!

আজমিরীগঞ্জ উপজেলায় সরকারি ভাবে বোরো ধান সংগ্রহে প্রতি মেট্রিক টন ধানে ৫শ টাকা করে উৎকোচের মাধ্যমে নিম্নমানের ধান সংগ্রহ করার অভিযোগ উঠেছে উপজেলা খাদ্য গুদাম কর্মকর্তা বুকুল কুমার বৈদ্যের বিরুদ্ধে। টাকা না দিলে গুদামে ধান ক্রয় না করারও অভিযোগ রয়েছে।

সুত্রে জানাযায়, খাদ্যশস্য বোরো ধান সংগ্রহের কর্মসূচির আওতায় আজমিরীগঞ্জ উপজেলায় ২ হাজার ১৪ মেট্রিক টন বোর ধান সংগ্রহ করার দায়িত্বপান উপজেলা খাদ্য গুদাম কর্মকর্তা বকুল কুমার বৈদ্য।

গত দু’মাস পূর্বে উপজেলা কৃষি অধিদপ্তর কৃষকদের যাচাই-বাছাই করে লটারির মাধ্যমে ২ হাজার ১৪ জন কৃষকের তালিকা তৈরী করে। খাদ্য অধিদপ্তরে তালিকা প্রেরন করে তালিকা মোতাবেক ধান সংগ্রহ করার জন্য নির্দেশনা প্রদান করেন উপজেলা প্রশাসন।

তার পর থেকে প্রকৃত কৃষকরা খাদ্য গুদামে ধান বিক্রি করতে গেলে আদ্রতা কম, ময়েশ্চার বেশি বলে নানান ধরনের হয়রানির শিকার করা হয়। এছাড়া সবকিছু পরিপটি করে নিলেও তাদের নিকট থেকে ওজনে কারচুপির মাধ্যমে বেশি ধান নেয়া ও অতিরিক্ত টাকা উৎকোচ দাবি করায় অনেক কৃষকই গুদামে ধান বিক্রি করতে অনিহা প্রকাশ করেন।

এছাড়া সরকারি নির্ধারিত মূল্যের থেকে ৪/৫ টাকা কমে প্রতি কেজিতে ব্যাবসায়িদের নিকট বিক্রি করছে। এতে বিরাট অংকের ক্ষতিগ্রস্থ্য হচ্ছে সাধারন কৃষক।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, খাদ্য গুদামে প্রতিদিন ধান দিচ্ছে স্থানীয় একটি সিন্ডিকেট চক্র। তাদের নিকট থেকে ধান সংগ্রহ করা হচ্চে যেখানে বেশিরভাগ ধানের আদ্রতা ১৪ পার্সেন্ট নেয়ার কথা তাকলেও নিচ্ছে ১৬/১৭ পারসেন্ট ও ময়েশ্চার ও ধুলাবালি যুক্ত। তার বিনিময়ে সিন্ডিকেট ব্যবসায়ীদের নিকট থেকে প্রতি মেট্রিকটন ধানে উৎকোচ নিচ্ছে ৫ শত টাকা করে বলে অনেকেই জানান।

কৃষকরা আরো জানান, তাদের নিকট থেকে ব্যাবসায়ীরা ধান ক্রয় করে এনে গুদামে বিক্রি নিয়ে গেলে আদ্রতা আসে আর তারা নিযে গেলেই ধান পূনরায় শুকিয়ে দিতে হবে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে কয়েকজন কৃষকের সাথে আলাপকালে তারা বলেন, রোদ বৃষ্টি মাথায় নিয়ে ফসল ফলিয়েছি। ভেবেছিলাম সরকারি মূল্য ১ হাজার ৮০ মন ধরে বিক্রি করতে পারবো। কিন্তুগুদামে গিয়ে দান দিতে চাইলে ধান দেখেই এলএসডি সাব ধান আরো শুকিয়ে গুদামে আনতে বলেন।

পরদিন ধান শুকিয়ে ৭৫ মন (৩ মেট্রিকটন) গুদামে দেই। তারপর এলএসডি সাব আমার কাছে টাকা দাবি করলে ২ হাজার টাকা দিয়ে ব্যাংকের চেক (ডব্লিউসি) আনতে হয়েছে।

আরেক জন কৃষক বলেন, তিনি ধান দিতে গুদামে গেলে তার ধান শুকিয়ে দিতে বলেন এলএসডি। তিনি কিছুদিন পর সেই ধান স্থানীয় এক ব্যবসায়ীর নিকট বিক্রি করেন। সেই ব্যবসায়ী ওই ধান গুদামে বিক্রি করেন।

খাদ্য গুদাম সুত্রে জানা যায়, এ পর্যন্ত খাদ্য গুদামে ধান সংগ্রহ করা হয়েছে প্রায় ১ হাজার ৫ শত মেট্রিকটন ধান। আর বাকী ৫শ টন ধান আগামী ৩/৪ দিনের মধ্যে সংগ্রহ করা হবে বলে সূত্রটি নিশ্চিত করেন।

কয়েকজন কৃষক আরো জানান,আজমিরীগঞ্জ খাদ্যগুদামের সিসি ক্যামেরায় ধারনকৃত ভিডিও যদি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ যাচাই-বাছাই করে তাহলে গুদামের সকল অনিয়ম পানির মত পরিস্কার হয়ে যাবে।

আজমিরীগঞ্জ খাদ্য গুদাম কর্মকর্তা বকুল কুমার বৈদ্যর সাথে অভিযোগের ব্যাপারে কথা বলতে মুঠোফোনে কল দিলে তিনি কল রিসিভ করেননি,সরাসরি খাদ্যগুদামে গিয়ে বক্তব্য নেওয়ার চেষ্টা করলে তিনি কাজের ব্যস্ততা দেখিয়ে কথা বলতে পারবেন না বলে জানিয়ে দেন।

আজমিরীগঞ্জ খাদ্য নিয়ন্ত্রক কর্মকর্তা মাজহারুল ইসলামের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন,দেখেন আমার জানা মতে সবকিছু নিয়মের ভিতরেই হয়,তারপরেও আমি যাচাই-বাছাই করবও।

 

 

Developed By The IT-Zone