ঢাকারবিবার , ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

আজমিরীগঞ্জের প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মাহমুদুল হকের বিরুদ্ধে অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ তদন্তের নির্দেশ

রায়হান উদ্দিন সুমন
সেপ্টেম্বর ২৫, ২০২২ ৯:৫০ অপরাহ্ণ
Link Copied!

আজমিরীগঞ্জ উপজেলার প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মাহমুদুল হকের বিরুদ্ধে নানা অনিয়ম ও দুর্নীতির লিখিত অভিযোগ করেছেন উপজেলার প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকবৃন্দ।

গত এপ্রিল মাসের ২১ তারিখ প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব বরাবরে উপজেলার সবকটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মোট ১০২ জন শিক্ষক-শিক্ষিকার স্বাক্ষর সম্বলিত এই অভিযোগটি দাখিল করা হয়।

অভিযোগ ঘেটে জানা যায়,এপ্রিল মাসের ৪ তারিখ উপজেলার কাটাখালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক স্বস্তি রাণী দাস স্থানীয় সোনালী ব্যাংক থেকে ব্যক্তিগত লোন নিতে ফরমে স্বাক্ষর নেয়ার জন্য উপজেলা শিক্ষা অফিসার মাহমুদুল হকের কাছে যান।

সেখানে যাওয়ার পর মাহমুদুল হক ওই শিক্ষকের সাথে বাজে ব্যবহারসহ উগ্র আচরণ করেন। একপর্যায়ে শিক্ষক স্বস্তি রাণী দাসকে তার অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে অফিস থেকে বের করে দেন মাহমুদুল হক।

পরবর্তীতে অনুমতি নিয়ে পুনরায় তার অফিসে প্রবেশ করলে শিক্ষক স্বস্তি রাণী দাসকে শোকজসহ বিভাগীয় মামলার ভয় দেখান শিক্ষা অফিসার মাহমুদুল হক।

বিষয়টি নিয়ে গত এপ্রিল মাসের ৭ তারিখে শিক্ষক স্বস্তি রাণী দাসকে একটি শোকজ চিঠি প্রেরণ করা হয়। ফলে ওই শিক্ষক অসহায়বোধসহ শিক্ষক সমাজের জন্য মানহানিকর ও অসম্মানজনক বলে অভিযোগে উল্লেখ করা হয়।

ইতোপূর্বে পাহাড়পুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মনোরঞ্জন চৌধুরী হবিগঞ্জের সোনালী ব্যাংক থেকে ব্যক্তিগত লোনের ফরমে স্বাক্ষর নিতে চাইলে উপজেলা শিক্ষা অফিসার মাহমুদুল হক কর্র্তৃক অপমানিত ও লাঞ্চিত হন।

ইংরেজী বিষয়ে উচ্চতর প্রশিক্ষণনের জন্য দুইজন শিক্ষকের নাম প্রেরণের জন্য উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ প্রস্তাব করলে মানসম্মত শিক্ষক থাকার পরেও উপজেলা শিক্ষা অফিসার মাহমুদুল হক তাদের নাম বাদ দিয়ে তার অনুগত শিক্ষকদের নাম প্রেরণ করেন। এতে প্রকৃত মূল্যায়নের বিঘিœত ঘটাসহ প্রাথমিক শিক্ষা মানোন্নয়নে বাঁধা হয়ে দাঁড়িয়েছে বলে অভিযোগে উল্লেখ করা হয়।

এছাড়াও ইএফটি’র মাধ্যমে দ্রুততম শিক্ষকদের বেতন প্রদানের অজুহাতে প্রতি শিক্ষকদের কাছ থেকে ১৩০টাকা করে আদায় করেন মাহমুদুল হক যা নিয়ম বহির্ভুত।

উদ্ধবপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মতিউর রহমান, পিটুয়ারকান্দি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বিপ্লব দেবনাথ,বিরাট সারদা সুন্দরি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মেরাজুল ইসলামসহ তার অনুগত শিক্ষকদের পাঠদান না করিয়ে তার অফিস কক্ষে বসিয়ে রাখেন। ওইসব শিক্ষকরা বিদ্যালয়ে গিয়ে হাজিরা খাতায় স্বাক্ষর করেই প্রতিদিন উপজেলা শিক্ষা অফিসের এসে সময় কাটান বলে অভিযোগে তোলে ধরা হয়।

এসব বিষয়ে শিক্ষা অফিসার মাহমুদুল হককে বারবার অবগত করলেও তিনি কোন কর্ণপাট এমনকি তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেননি।

উপজেলা শিক্ষা অফিসার মাহমুদুল হক উপর মহলের লোকদের সাথে গভীর সম্পর্ক রয়েছে বলে শিক্ষকদের ভয়-ভীতি এমনকি কথায় কথায় শোকজ ও বিভাগীয় মামলা করার হুমকি দেন।

অভিযোগের অনুলিপি সদয় অবগতি ও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার জন্য প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক,সিলেট বিভাগের বিভাগীয় উপপরিচালক ও জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারের নিকট প্রেরণ করা হয়েছে।

এদিকে আজমিরীগঞ্জ উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মাহমুদুল হকের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগটি খতিয়ে দেখে অভিযোগপত্রের বিষয়ে বিধি মোতাবেক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক (অতিরিক্ত দায়িত্ব) কে গত ২১ আগস্ট ৩৮. ০০. ০০০০. ০০৪. ২৭. ০০১. ১৭.৩৯৭ স্বারক নাম্বারে নির্দেশনা প্রদান করেছেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের তদন্ত ও শৃঙ্খলা শাখার সিনিয়র সহকারী সচিব মো: ফজলুর রহমান।

এই নির্দেশনাটি প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিবের একান্ত সচিবকেও প্রেরণ করা হয়েছে।

Developed By The IT-Zone