ঢাকামঙ্গলবার , ১৭ মে ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

আওয়ামী লীগ থেকে টিটু-মোতাচ্ছির-ইকবাল-তাহেরকে অব্যাহতির সিদ্ধান্ত

স্টাফ রিপোর্টার
মে ১৭, ২০২২ ১২:৩০ অপরাহ্ণ
Link Copied!

দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গ ও বিদ্রোহী হয়ে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করার দায়ে ৪ নেতা কর্মীকে বহিস্কারের সিদ্ধান্ত নিয়েছে হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগ।গত শনিবার (১৪মে) বিকেলে হবিগঞ্জ শহরের টাউনহলে জেলা আওয়ামী লীগের কার্যকরি কমিটির এক সভায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

বহিস্কৃত নেতারা হলেন, হবিগঞ্জ পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি নিলাদ্রী শেখর পুরকায়স্থ টিটু, সাধারণ সম্পাদক ও হবিগঞ্জ সদর উপজেলা চেয়ারম্যান মোঃ মোতাচ্ছিরুল ইসলাম, বানিয়াচং উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ইকবাল হোসেন খান, চুনারুঘাট উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মোঃ আবু তাহের।

শনিবার বিকেলে জেলা আওয়ামী লীগের কার্যকরি কমিটির বৈঠক শেষে অভিযুক্তদের আত্মপক্ষ সমর্থনের জন্য ৭ দিনের সময় বেঁধে দেয়া হয়েছে।

৭ দিন পরে তাদের বহিস্কারে চ‚ড়ান্ত চিঠি দেওয়া হবে বলে জানা যায়। এদিকে, জেলা আওয়ামী লীগের বহিস্কারের এই সিদ্ধান্তকে মনগড়া ও উদ্দেশ্য প্রণোদিত বলে আখ্যায়িত করেছেন বহিস্কৃত ৪ ত্যাগী এই নেতারা।

তারা বলেছেন, অনেক বিদ্রোহী আছেন যারা নৌকার প্রার্থীর বিরুদ্ধে কাজ করাসহ তাদের বিরুদ্ধে নানা অনিয়মের অভিযোগ আছে তবে তাদের জামাই আদর করে জেলা আওয়ামী লীগের গুরুত্বপূর্ণ পদে রাখা হয়েছে। বিষয়টি জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র নেতাদের একতরফা মনগড়া সিদ্ধান্ত।

তথ্যানুসন্ধানে জানা যায়, বানিয়াচং উপজেলার সুবিদপুর থেকে নৌকার প্রার্থীর বিরুদ্ধে বিদ্রোহী হয়ে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেন সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ সজিব আলী। নৌকার প্রার্থীর বিরুদ্ধে বিদ্রোহী হয়ে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করার ফলে নিজের অবস্থান ধরে রাখতে বেশ হিমশিম খেতে হয়েছিল নৌকার প্রার্থীকে। সাবেক এই বিদ্রোহী প্রার্থী সজিব আলী আছেন বর্তমানে জেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি পদে।

২০১৯ সালে হবিগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে তৎকালীন নৌকার প্রার্থী মিজানুর রহমান মিজানের বিরুদ্ধে বিদ্রোহী প্রার্থী নিলাদ্রী শেখর পুরকায়স্থ টিটুর পক্ষে প্রকাশ্যে প্রচার- প্রচারণা করেছেন জেলা যুবলীগের সাবেক সভাপতি আতাউর রহমান সেলিম। দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্যকারী এই নেতাকে রাখা হয়েছে হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক পদে।

টিটুর পক্ষে প্রকাশ্যে মিটিং-মিছিল ও প্রচার-প্রচারণা করেছেন আব্দুর রহমান। তিনি বর্তমানে হবিগঞ্জ সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক পদে দায়িত্ব পালন করছেন।

গত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে নৌকা মনোনীত প্রার্থী মশিউর রহমান শামীমের বিরুদ্ধে এবং বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান মোতাচ্ছিরুল ইসলামের পক্ষে প্রকাশ্যে মিটিং-মিছিল ও প্রচার-প্রচারণা করেছেন আব্দুর রহিম। তিনিও হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

একইভাবে বিদ্রোহী এই উপজেলা চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে কাজ করেছেন সজল খান নামে আরও এক নেতা। তিনি আছেন বর্তমান হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের উপ-প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক পদে।

জেলা আওয়ামী লীগের আরো অনেক পদধারী নেতা প্রকাশ্যে টিটু-মোতাচ্ছিরের পক্ষে নির্বাচনী প্রচার প্রচারনায় ছিল বলে দৈনিক আমার হবিগঞ্জের কাছে তথ্য প্রমাণ আছে। এর মধ্যে জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আকরাম আলী, অর্থ বিষয়ক সম্পাদক মিজানুর রহমান শামীম অন্যতম।

চুনারুঘাট উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু তাহের জানান, এক সভায় সাম্প্রতিককালে চলমনা ইউনিয়ন পরিষদের কাউন্সিলের নতুন কমিটিতে বিদ্রোহী হয়ে নির্বাচনে অংশগ্রহণকারীদের স্বাক্ষর না করার নির্দেশ দেওয়া হয়।

কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদকের বরাত দিয়ে আরো জানানো হয় বিদ্রোহী সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকদের পরিবর্তে বিকল্প নেতাদের স্বাক্ষরে কমিটি অনুমোদন করতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

বাংলাদেশ কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন জানান, বিষয়টি আমার জানা নেই। এ বিষয়ে আমাকে কোন কিছু জানানো হয়নি।

Developed By The IT-Zone