ঢাকারবিবার , ১২ জুন ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে ‘রাজাকারপুত্র’ আব্দুল হাইয়ের এক যুগ

তারেক হাবিব
জুন ১২, ২০২২ ৯:৪২ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সময়ে গঠিত শান্তি কমিটির চেয়ারম্যান সুরত আলীর পুত্র আব্দুল হাই বাহুবল উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক পদে আসীন হয়ে দীর্ঘদিন যাবৎ দাপটের সাথে রাজনীতি করে আসছেন।

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের সংগঠক হলেও এই দলের ছত্রছায়ায় হবিগঞ্জ জেলার বাহুবল উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের পদ আঁকড়ে ধরে আছেন রাজাকার পুত্র আব্দুল হাই।

দলীয় সূত্রে জানা গেছে, গত ১২ বছর ধরে আব্দুল হাই উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। সর্বশেষ উপজেলা আওয়ামী লীগের দলীয় ত্রিবার্ষিকী কাউন্সীলের মাধ্যমে মনোনীত হয়ে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের পদে আসীন আছেন তিনি।

মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের সংগঠক দল আওয়ামী লীগের প্রতীক নৌকা নিয়ে নির্বাচনে অংশগ্রহন করে নির্বাচিত হয়েছেন উপজেলা চেয়ারম্যান। এতে করে যেমন উপজেলার ত্যাগী আওয়ামী পরিবারের সদস্যরা পদবঞ্চিত হচ্ছেন ঠিক তেমনিভাবে রাজাকার পুত্রের ক্ষমতার অপব্যবহারের কারণে অতিষ্ট হচ্ছেন স্থানীয় আ’লীগের নেতাকর্মী সহ সাধারণ মানুষ।

এদিকে, গতকাল শনিবার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হওয়া একটি ভিডিও চিত্র অনুসন্ধানে দেখা যায় আব্দুল হাই তিনি মাতাল হয়ে দিক-বেদিক ছুটাছুটি করছেন। সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ও বর্তমান আওয়ামী লীগ নেতার এমন আচরণে সমালোচনার ঝড় বইছে সচেতন মহলে।

কে এই আব্দুল হাই? বাহুবল উপজেলার বাহুবল সদর ইউনিয়নের বড়ইউড়ি গ্রামের কেরোসিন ব্যবসায়ী পিতা সুরত আলীর ২য় পুত্র আব্দুল হাই। প্রথম জীবনে সুনির্দিষ্ট কোন পেশা না থাকলেও পৈতৃক ভিটার ভাড়া ও সুদের ব্যবসা করেই সংসার চলত তার।

স্থানীয়তার যথেষ্ট প্রভাব থাকায় বিচার শালিসের নামে টাকা আত্মসাত করা ছিল নেশার মত। যৌবনের শুরু থেকেই মাদক ও নারীর প্রতি ছিল তার তীব্র আসক্তি। নানা প্রলোভনে বহু নারীর সংসার নষ্ট করেছেন তিনি। রাত-বিরাতে নেশাগ্রস্থ হয়ে মাতলামি করতেও দেখা গেছে তাকে।

বাহুবল হাসপাতাল এলাকায় কিছুদিন কসমেটিকসের ব্যবসা করলেও পরে হঠাৎ করে প্রবেশ করেন আওয়ামী রাজনীতিতে। আওয়ামী লীগের রাজনীতির সাথে সমপৃক্ততার সুবাদে দলের শীর্ষ নেতাদের নাম ভাঙ্গিয়ে শুরু করেন মনোনয়ন ও শালিস বানিজ্য। সাতকাপন ইউনিয়নের সিরাজ মেম্বারসহ আরও কয়েকজনের কাছ থেকে মনোনয়নের নামে হাতিয়ে নেন কয়েক লাখ টাকা।

এত ক্ষমতার উৎস কোথায়? একজন রাজাকার পুত্র কিভাবে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ এর মতো মুক্তিযুদ্ধের স্ব-পক্ষের রাজনৈতিক দলের উপজেলা কমিটিতে স্থান পায় এবং দাপটের সাথে রাজনীতি করে সে প্রশ্ন উপজেলা আওয়ামীলীগের অনেক নেতাকর্মীদের মধ্যে।

এ বিষয়ে বাহুবল উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুর নুর মানিক মিয়ার কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন “এ বিষয়ে আমি কিছু জানি না, তবে তার বাবা সুদের ব্যবসা করতেন এটা জানি। মনোনয়নের আশ্বাসে টাকা আত্মসাতের বিষয়ে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বরাবরে লিখিত অভিযোগ দায়ের করলে সেটার তদন্ত করার দায়িত্ব আসে আমার উপর। এর বেশী কিছু আমি বলতে পারব না।

অভিযুক্ত আব্দুল হাইয়ের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি দৈনিক আমার হবিগঞ্জ’কে বলেন, ‘আমার বাবা রাজাকার ছিলেন না, আমি দীর্ঘদিন ধরে আওয়ামী লীগের রাজনীতির সাথে সমপৃক্ত। সকল অভিযোগ মিথ্যা’।

নাম প্রকাশ্যে অনিচ্ছুক এক আওয়ামী লীগ নেতা বলেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নির্দেশনা আছে যে, কোন রাজাকারের সন্তানদের আওয়ামীলীগের কমিটিতে স্থান দেয়া যাবেনা। কিন্তু এখানে তার ভিন্ন। যা আমাদের কারুর কাম্য নয়। তাহলে কি করে আব্দুল হাই এই কমিটিতে আসলেন? এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, দেখুন উপজেলা আওয়ামীলীগের কমিটি গঠন করা হয় জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক এবং কেন্দ্রীয় নেতাদের দ্বারা। তারা জেনে শুনে যদি রাজাকার পুত্রকে কমিটিতে রাখেন তাহলে আমাদের কি করার আছে। আমরা কখনই রাজাকার পুত্রের সাথে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে রাজনীতি করতে চায়না বলেও জানান তিনি।

এদিকে, রাজাকার পুত্রকে অনতিবিলম্বে যেন আওয়ামী লীগের কমিটি থেকে পদচ্যুত করা হয়। তা না হলে তাদের দৌরাত্ম কমবে না বলে মনে করেন সচেতন মহল।

Developed By The IT-Zone