ঢাকারবিবার , ৫ জানুয়ারি ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

অলিপুরে চলছে শীতের পিঠা বিক্রির ধুম

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
জানুয়ারি ৫, ২০২০ ৫:১৩ অপরাহ্ণ
Link Copied!

সৈয়দ হাবিবুর রহমান ডিউক: শীতের তীব্রতা বাড়ার সাথে সাথেই মৌসুমি পিঠা বিক্রির এ চেনা দৃশ্য শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার শিল্পনগরী অলিপুরের অলিগলিতে বসেছে পিঠার দোকান। এসব দোকানে ভিড় জমাচ্ছেন নানা শ্রেণির পিঠাপ্রেমিক ব্যক্তিরা। ভোর থেকে সকাল ৯টা ও বিকেল ৫টা থেকে রাত ১১টা পর্যন্ত চলছে দোকানগুলো।ক্রেতাদের কারও চাহিদা ৫-১০টি পিঠা। কেউ কাগজের ঠোঙায় মুড়িয়ে নিয়ে যাচ্ছেন বাড়িতে, গরমাগরম মুখে পুড়ছেন কেউ,এ এলাকার বিভিন্ন এলাকা স্থানে দেখা যায়, এবার ৭-৮টি জায়গায় পিঠার দোকান বসেছে। এর মধ্যে হবিগঞ্জ ইন্ড্রাষ্টিয়াল এর পাশের মোড় এলাকায় পিঠাপ্রেমীদের ভিড় বেশি।পিঠার দোকানিরা জানালেন, ভাপা, চিতইসহ হরেক রকম পিঠা তৈরি করছেন তাঁরা। পিঠার স্বাদ বাড়াতে দোকানে রয়েছে ঝুরঝুরে গুড়, শর্ষেবাটা ও মরিচ, শুঁটকি, ধনেপাতাসহ মুখরোচক নানা ভর্তা। তবে এবার জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে ভাপা পিঠা।

বিভিন্ন দোকান ঘুরে দেখা যায়, রিকশাচালক, দিনমজুর থেকে শুরু করে চাকরিজীবী, ছাত্র–ছাত্রী থেকে শিক্ষক, শিশু-কিশোর থেকে বৃদ্ধ সবাই ক্রেতা। চুলার পাশে দাঁড়িয়ে কিংবা বসে গরম-গরম পিঠা খাওয়ার লোক যেমন আছে, তেমনি অফিসফেরত অনেকে ঠোঙায় পুরে পিঠা নিয়ে যাচ্ছেন পরিবারের জন্য।

অলিপুরে ভাপা পিঠা বিক্রেতা জামাল মিয়া জানান, প্রতিটি ভাপা পিঠা তিনি ১০টাকা করে বিক্রি করেন, প্রতিদিন তিনি ৫০০-৬০০টি ভাপা পিঠা বিক্রি করে থাকেন। এছাড়াও তিনি শরবত, ছোলা, ডিমপুলি বিক্রি করেন। তিনি বলেন সারাদিন বেছাকেনা কম থাকে, কোম্পানীগুলো যখন ছুটি হয় তখন বেছাকেনা অনেক ভাল হয়।পিঠার দোকানিরা বেশির ভাগই পুরুষ ও নারী,হতদরিদ্র পরিবারের সদস্য। সংসারে সামান্য বাড়তি আয়ের আশায় অল্প পুঁজি নিয়ে রাস্তার মোড়ে মোড়ে পিঠার পসরা বসিয়েছেন তাঁরা। অনেক সময় সঙ্গে থাকেন স্বামী-সন্তানদের কেউ।

Developed By The IT-Zone