ঢাকাসোমবার , ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

অবৈধভাবে বালু উত্তোলনে হুমকির মুখে চুনারুঘাটের কাজিরখিল ব্রীজ

তারেক হাবিব
সেপ্টেম্বর ২৬, ২০২২ ৯:০৫ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

সরকারি নিয়মনীতির কোনো তোয়াক্কা না করেই চুনারুঘাট উপজেলার চুনারুঘাট সদর ইউনিয়নের কাজিরখিল
ব্রীজসংলগ্ন খোয়াই নদীতে ২০/২৫টি অবৈধ ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলন করছে একটি চক্র। মাত্রারিক্ত অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের কারণে পানি উন্নয়ন বোর্ডের কোটি টাকায় নির্মিত ব্রীজটি পড়েছে অস্তিত্ব সংকটে।

দৈনিক আমার হবিগঞ্জের সরেজমিনে অনুসন্ধানে জানা যায়, কাজিরখিল ব্রীজের ভাটির দিকে (পশ্চিম দিকে) প্রায় ১’শ ফুটের মধ্যেই ২০/২৫টি অবৈধ ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলন করছে মোঃ সেলিম মিয়া (৩৭) এর নেতৃত্বে একটি চক্র। সেলিম ওই এলাকার মৃত আশ্রব মিয়ার পুত্র।

খোয়াই নদী থেকে উত্তোলিত এ বালু উচ্চক্ষমতা সম্পন্ন বালুবাহি ড্রাম ট্রাক ও অবৈধ ট্রাক্টর দিয়ে পরিবহন করা হচ্ছে স্থানীয় মাঠে। বালুবাহি ড্রাম ট্রাক ও অবৈধ ট্রাক্টরের যাতায়াতের ফলে হুমকির মুখে পড়েছে নদী রক্ষাবাঁধ ও নদীপাড়ের প্রায় ১০ হাজার বাসিন্দাদের জীবনযাত্রা।

ছবি : বালু উত্তোলনে বসানো ড্রেজার

পানি উন্নয়ন বোর্ড-এর তথ্য মতে, স্থানীয় আশপাশের আটটি গ্রামের মানুষের নিরাপদ যাতায়াতের জন্য ২০০৭ সালে কোটি টাকা ব্যয় করে নির্মাণ করা হয় কাজিরখিল ব্রীজ। কিন্তু এতেও লাঘব হয়নি গ্রামের মানুষের দুঃখ-দুর্দশা। অবাদে বালু উত্তোলণ ও রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে সরে গেছে ব্রিজের গোড়ার মাটি।

ঝুকিঁপূর্ণ অবস্থায় চলাচল করছে মানুষ ও যানবাহন। বালু উত্তোলনের ফলে শুধু ব্রীজের গোড়া থেকে মাটিই সড়ে যায়নি বালুবাহি ড্রাম ট্রাক ও অবৈধ ট্রাক্টরের যাতায়াতের ফলে চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে স্থানীয় চলাচলের রাস্তাও।

চলমান বর্ষা মৌসুমে এই ভোগান্তি আরো প্রকট আকার ধারণ করে। বালু উত্তোলনের ফলে গ্রামবাসীকে প্রায় সাত কিলোমিটার রাস্তা ঘুরে ভিন্ন রাস্তায় চলাচল করতে হচ্ছে।

সাটিয়াজুড়ি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ আবদালুর রহমান জানান, সেলিম মিয়া নামে একজন বালুমহালদার আছেন। তার বউয়ের নামে বালুমহাল ইজারা নিয়ে বালু উত্তোলণ করে আসছেন বলে শুনেছি। এর বেশী কিছু জানি না। তবে বালুমহাল ইজারার তথ্যমতে, ব্রীজ ও বাধঁ রক্ষা করার স্বার্থে ২০২০ সাল থেকেই কাজিরখিল ব্রীজসংলগ্ন খোয়াই নদীতে ইজারা বন্ধ ঘোষণা করেন উপজেলা প্রশাসন।

বিষয়গুলো উপজেলা প্রশাসনকে জানালে মাঝে মাঝে অভিযান হলেও স্থায়ীভাবে বন্ধ হয় না বালু উত্তোলন। সংশ্লিষ্টরা অভিযোগ করে বলেন, এখানে কোন ইজারাদার নেই মূলত ২০-২৫ জনের একটি সিন্ডিকেট বালু উত্তোলন করছে। কাজিরখিল ব্রীজসংলগ্ন এলাকা থেকে দৈনিক ২ থেকে ৩ লাখ টাকার বালু উত্তোন করা হয়।

অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের ফলে প্রতি মাসে সরকার প্রায় ১ কোটি টাকারও বেশী রাজস্ব হারাচ্ছে। এর সাথে চরম বিপর্যয় নেমে আসছে পরিবেশে ।

এদিকে, বালু খেকো সেলিম মিয়ার বিরুদ্ধে হবিগঞ্জের জেলা প্রশাসক বরাবরে লিখিত অভিযোগের তদন্তে সত্যতা পেলেও আদৌ তার বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা না নেয়ায় বিষয়টি রীতিমত ভাবিয়ে তুলছে সচেতন মহলদের।

স্থানীয়রা অভিযোগ করেছেন, বালুখেকো সেলিম কতিপয় ব্যক্তিদের ম্যানেজ করেই বালু উত্তোলন করে। বালু বিক্রির একটা বিরাট শেয়ার কর্তাব্যক্তিদের দিয়েই সে সব ম্যানেজ করে।

তবে বালু তোলার বিষয়ে জানতে চাইলে অভিযুক্ত সেলিম মিয়া দৈনিক আমার হবিগঞ্জ’কে জানান, তিনি কোন অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করেন না। তিনি সরকারের বৈধ ইজারাদার।

অবৈধ বালু উত্তোলন ও জরিমানা প্রসঙ্গে জানতে চাইলে চুনারুঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সিদ্ধার্থ ভৌমিক দৈনিক আমার হবিগঞ্জ’কে জানান, উপজেলা প্রশাসনের নিয়মিত তদারকি আছে। ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে নিয়মিত অভিযান পরিচালনা করা হয়।

Developed By The IT-Zone