ঢাকামঙ্গলবার , ২১ জানুয়ারি ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

অপরাধ জগতের আরেক নাম সাতছড়ি জাতীয় উদ্যান

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
জানুয়ারি ২১, ২০২০ ৫:৫৪ অপরাহ্ণ
Link Copied!

মাধবপুর  প্রতিনিধি  :    ভয় আতঙ্কের আরেক নাম হবিগঞ্জের চুনারুঘাটের সাতছড়ি জাতীয় উদ্যান। দিন দিন ক্রাইমজোনে পরিণত হচ্ছে পর্যটকদের ভ্রমণস্থল এ সাতছড়ি উদ্যানটি। অপরাধিদের আনাগোনা ও প্রেমিক-প্রেমিকাদের দৈনিক উপস্থিতিতে দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে অপরাধ প্রবণতা, ছিনতাই ও ধর্ষণ। গেল ২৮ দিনের ব্যবধানে এ উদ্যানে ঘটেছে দুটি গণধর্ষণের ঘটনা। এমতাবস্থায় ভয়-আতঙ্কে দিন দিন কমে যাচ্ছে পর্যটকদের ভীড়। মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছেন অনেক ভ্রমণ পিয়াসু। সচেতনরা মনে করছেন পর্যাপ্ত নিরাপত্তার ব্যবস্থা না থাকার কারণে উদ্যানে বৃদ্ধি পাচ্ছে অপরাধ কর্মকাণ্ড।
জানা মতে পর্যটন সম্ভাবনাময় হবিগঞ্জ জেলার সবচেয়ে জনপ্রিয় স্পট সাতছড়ি জাতীয় উদ্যান। প্রতি বছর সেখানে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে কয়েক লাখ পর্যটকের সমাগম ঘটে। কিন্তু গেল কয়েক বছর ধরে উদ্যানটি পর্যটকদের জন্য আতঙ্কের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। উদ্যানের ভেতর থেকে বারবার অস্ত্র উদ্ধার ও ছিনতাইয়ের পর এবার নতুন করে ঘটছে ধর্ষণ ও গণধর্ষণের ঘটনা জানা যায়, গত ১১ ডিসেম্বর সাতছড়ি উদ্যানে প্রেমিকের সঙ্গে ঘুরতে গিয়ে গণধর্ষণের শিকার হয় বি-বাড়িয়ার এক স্কুলছাত্রী। প্রেমিককে গাছের সাথে বেধে ওই ছাত্রীকে গণধর্ষণ করে একদল দূর্বৃত্ত। শুধু এই দুটি ঘটনাই নয়, কিছুদিন পরপরই ঘটে এমন ধর্ষণের ঘটনা।
এর পর ৭ জানুয়ারি উদ্যানে ঘুরতে গিয়ে গণধর্ষণের শিকার হয় বৃন্দাবন কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির এক ছাত্রী। এ ব্যাপারে ৮ জানুয়ারি প্রেমিকসহ ৫ জনকে আসামি করে হবিগঞ্জের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-২এ মামলা দায়ের করেন তিনি। বিচারক জিয়া উদ্দিন মাহমুদ মামলাটি আমলে নিয়ে চুনারুঘাট থানাকে তদন্তের নির্দেশ দেন। এ ঘটনায় ৯ জানুয়ারি ভোরে মামলার প্রধান আসামী শামীম আহমেদ মামুনকে (২২) আটক করে পুলিশ। শুধু তাই নয়, দিন দিন বাড়ছে অপরাধ প্রবণতাও। দর্শনার্থী সেজে উদ্যানে প্রবেশ করে অনেকেই চালাচ্ছেন নির্বিঘেœ অপরাধ কর্মকান্ড। অনেক ধর্ষিতা মান সম্মানের ভয়ে মুখ লুকাচ্ছেন প্রতিনিয়ত।
সম্প্রতি মাত্র ২৮ দিনের ব্যবধানে উদ্যানের ভেতরে ঘটে যাওয়া দুটি গণধর্ষণের ঘটনা দেশজুড়ে আলোচনা সৃষ্টি করেছে।
বিশেষ করে শীত মৌসুমে সাতছড়ি উদ্যানে সবচেয়ে বেশি পর্যটকের সমাগম ঘটে। দেশের নানা প্রান্ত থেকে বিনোদন প্রেমি নারী-পুরুষরা উদ্যানের মনোরম পরিবেশ উপভোগ করতে আসেন। কিন্তু গেল কয়েক বছর ধরে শীত মৌসুমের শুরুতেই উদ্যানের গভীর অরণ্য থেকে বিভিন্ন ধরণের আগ্নেয়াস্ত্র উদ্ধার করে র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটেলিয়ন (র‌্যাব)। যার কারণে আতঙ্কিত হয়ে পড়েন সারাদেশের পর্যটকরা। মুখ ফিরিয়ে নিতে থাকেন প্রকৃতির অপরূপ লীলাভূমি সাতছড়ি থেকে। ভ্রমণে আসতে চাইলেও অনেক পরিবার বাধা দিচ্ছে তাদের সন্তানদের পর্যটকদের অভিযোগ- সেখানে প্রতিদিনই ঘটছে ছিনতাইয়ের ঘটনা।
পর্যটকদের জন্য নিরাপত্তা ব্যবস্থা না থাকার কারণে অপরাধিদের অভয়ারণ্যে পরিণত হয়েছে উদ্যানটি। সাতছড়িতে ঘুরতে আসা পর্যটকদের কাছ থেকে দৃর্বৃত্তরা প্রতিনিয়ত ছিনিয়ে নিচ্ছেন টাকা-পয়সাসহ মূল্যবান জিনিসপত্র নারী নেত্রী হবিগঞ্জ সদর উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস-চেয়ারম্যান ফেরদৌস আরা বেগম বলেন, ‘পর্যটনের অপার সম্ভাবনাময় সম্পট গুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশি জনপ্রিয় পর্যটনস্পট সাতছড়ি জাতীয় উদ্যান। কিন্তু সেখানে দিন দিন অবৈধ কার্যকলাপ বাড়ছে। এতে করে পর্যটকদের মধ্যে দেখা দিয়েছে ভয়-আতঙ্ক। ছিনতাই ও ধর্ষণের ঘটনায় অনেক পবিবার ওই উদ্যানে আসতে ভয় পাচ্ছেন। পর্যটকদের নিরাপত্তার জন্য প্রয়োজন একটি পুলিশ ক্যাম্প। প্রশাসনের সহযোগিতায় অপার সম্ভাবনাময় এই জাতীয় উদ্যানটি টিকিয়ে রাখা দরকার।
সিলেট এমসি কলেজের ছাত্রী শিরিন আক্তার সোনিয়া বলেন, ‘সুযোগ পেলেই আমরা বন্ধু-বান্ধব বা সংগঠনের সদস্যরা মিলে প্রায় সময়ই সাতছড়ি উদ্যাগে ভ্রমন করতে যাই। সবুজ গাছ-গাছালীর সামারোহ ওই উদ্যানটি আমাদের মন কাড়ে। সেখানে গিয়ে অনেক আনন্দ মনে সঞ্চারিত হয়। ইদানিং উদ্যানের ভেতরে ঘটে যাওয়া কয়েকটি অপরাধমূলক কর্মকান্ড মনে ভয় লাগিয়ে দিয়েছে চুনারুঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ নাজমুল হক বলেন- ‘অনেকেই ‘পর্যটন এরিয়ার’ বাহিরে চলে যাওয়ার কারণে এসব অপরাধ কর্মকাণ্ড ঘটে। ধর্ষনের ঘটনা বেশিরভাগ বয়ফ্রেন্ড ও তাদের গালফ্রেন্ডদের মধ্যে ঘটছে। যা পরে প্রকাশ পায়। আমরা সাতছড়ি উদ্যানে একটি পুলিশ ক্যাম্প বসানোর জন্য উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সাথে অলোচনা করছি। উদ্যানে অপরাধ প্রবণতা কমাতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে সর্বোচ্চ চেষ্টা চলছে।

Developed By The IT-Zone