ঢাকাসোমবার , ২২ আগস্ট ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

অন্যত্র রোগী পাঠিয়ে টাকা আত্মসাত : চিকিৎসক আকলিমার বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু

তারেক হাবিব
আগস্ট ২২, ২০২২ ৮:২৬ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

হবিগঞ্জের মাতৃমঙ্গল (মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্র) হাসপাতাল থেকে সুর্যমূখী জেনারেল হাসপাতালে রোগী পাঠিয়ে প্রতারণা করে টাকা আত্মসাতের ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে। গত রবিবার (২১আগস্ট) হবিগঞ্জের সিভিল সার্জন ডাঃ মোহাম্মদ নুরুল হকের নেতৃত্বে একটি তদন্ত কমিটি সরেজমিনে ওই হাসপাতাল পরিদর্শন করেন। এ সময় অভিযোগকারী ভুক্তভোগী মোস্তাফিজুর রহমান উপস্থিত ছিলেন।

ভুক্তভোগী দৈনিক আমার হবিগঞ্জ’কে জানান, গত ১৮ আগস্ট তাকে একটি আদেশপত্র দেয়া হয়। এতে ২১ আগস্ট রবিবারে যাবতীয় তথ্য উপাত্ত নিয়ে স্ব-শরীরে উপস্থিত থাকবে বলা হয়। তদন্ত কমিটি অন্যান্য সদস্যরা হলেন, মেডিকেল অফিসার ডাঃ দিব্যেন্দু রায় বাজীব এবং প্রশাসনিক কর্মকর্তা মোহাম্মদ শাহ আলম।

এদিকে, নিজের অপকর্ম ঢাকতে সাংবাদিক মহলসহ বিভিন্ন জায়গায় দৌড়ঝাপ শুরু করেছেন অভিযুক্ত ডাক্তার আকলিমা তাহেরী কলি। কতিপয় সাংবাদিকদের ম্যানেজ করে নিজের পক্ষে সাফাই গাইতেও দেখা গেছে তাকে।

এর আগে, হবিগঞ্জ মাতৃমঙ্গল (মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্র) হাসপাতালের ডাক্তার আকলিমা তাহেরী কলি ও পরিবার পরিকল্পনা পরিদর্শীকা নাদিরা বেগমের বিরুদ্ধে হবিগঞ্জ সিভিল সার্জন বরাবরে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন মোস্তাফিজুর রহমান নামে এক ব্যক্তি।

উল্লেখ্য, গত ১ ফেব্রুয়ারী প্রসব ব্যাথা নিয়ে হবিগঞ্জ মাতৃমঙ্গল (মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্র) হাসপাতালে ভর্তি হন বাহুবল উপজেলার চক্রামপুর গ্রামের মোস্তাফিজুর রহমানের স্ত্রী শাকিরা বেগম। নরমাল ডেলিভারী করার পর্যাপ্ত সুযোগ সুবিধা থাকলেও বাচ্চার অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে সিজার করতে হবে বলে পরামর্শ দেন ওই হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার আকলিমা তাহেরী কলি।

ও আকলিমা তাহেরী কলি ভুক্তভোগীকে বাচ্চা ও তার মা মরে যাওয়ার ভয় দেখিয়ে হবিগঞ্জ শহরের সূর্য্যমূখী জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যান। পরিবার কল্যাণ পরিদর্শিকা নাদিরা বেগম ও আকলিমা তাহেরী কলি সূর্য্যমূখী জেনারেল হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সাথে কথা বলে মোটা অঙ্কের টাকার চুক্তিতে সিজার করান।

সিজারে কন্যা সন্তান জন্ম নিলেও কয়েকদিন পর অপারেশনের জায়গা ফুলে ব্যাথা শুরু হয়। সমস্যাটি তীব্র আকার ধারণ করলে শাকিরা ও তার স্বামী সার্জারী বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডাঃ একেএম আজাদের দারস্থ হলে সেলাইয়ের ভেতর থেকে সিরিঞ্জের মাধ্যমে বিশাল পরিমাণের জমাট বাধা রক্ত ও পুজঁ বের করেন।

রোগীকে বাচাঁতে ব্রাহ্মণবাড়িয়া দ্যা ল্যাব এইড হাসপাতালে পুনরায় অপারেশন করা হয় ভুক্তভোগী শাকিরাকে। এ ঘটনায় অসহায় অবস্থায় লক্ষাধিক টাকা খরচ করেও জীবন শঙ্কটে আছেন বলেন জানিয়েছেন।

Developed By The IT-Zone