ঢাকারবিবার , ২ অক্টোবর ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

অনলাইন ব্যবসার নামে চলছে এনআইডি জালিয়াতি : সালেহ চৌধুরীর বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের

তারেক হাবিব
অক্টোবর ২, ২০২২ ১০:০২ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) জালিয়াতি ও সংশোধন বাণিজ্যে জড়িয়ে পড়েছে হবিগঞ্জ জেলা নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয়ের কর্মচারী ও স্থানীয় একটি চক্র। হবিগঞ্জ জেলা জুড়ে গড়ে তুলেছে শক্তিশালী সিন্ডিকেট।

শুধু এনআইডি সংশোধন ও জালিয়াতির ব্যবসাই নয়, কতিপয় সদস্যদের সাথে সখ্যতা গড়ে তুলে এনআইডি জালিয়াতি করে অন্যের সম্পত্তি হাতিয়ে নেওয়ার ঘটনাও ঘটেছে।

সম্প্রতি বেশ কয়েকটি জালিয়াতির ঘটনা সামনে আসায় অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে জেলে পাঠানোর ঘটনাও ঘটেছে।

দৈনিক আমার হবিগঞ্জের অনুসন্ধানে বেরিয়ে আসছে কিছু চাঞ্চল্যকর তথ্য। জানা গেছে, হবিগঞ্জ জেলা নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয়ের মূল ফটকের সামনে কয়েকটি দোকানে অনলাইন আবেদন ও ফটোকপির নামে চলছে নানা অপকর্ম।

জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন থেকে শুরু করে দ্রুত গতিতে পাসপোর্ট করানো পাসপোর্ট সংশোধনসহ পুরো কাজের দায়িত্ব নেয় ওই চক্রটি।

এদিকে, বিষয়গুলোর প্রতিকার চেয়ে সালেহ আমমেদ চৌধুরী নামে এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে হবিগঞ্জের জেলা প্রশাসক বরাবরে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন সেলিম চৌধুরী নামে আরেক ভুক্তভোগী।

অভিযোগ সুত্রে জানা যায়, হবিগঞ্জ শহরতলীর বড় বহুলা গ্রামের মৃত সিরাজুল হক চৌধুরীর পুত্র সালেহ আহমেদ চৌধুরী (৩৬) দীর্ঘদিন ধরে এনআডি জালিয়াতি, সংশোধন বাণিজ্যসহ নানা অপকর্ম করে আসছেন।

স্থানীয়তার প্রভাব খাটিয়ে কতিপয় কর্মচারীদের হাত করে সাধারণ মানুষের কাছ থেকে হাতিয়ে নিচ্ছেন লাখ লাখ টাকা। হবিগ জেলা নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয়ের সামনে অনলাইন ও ফটোকপির দোকান থাকার সুবাদে ইউপি মেম্বার-চেয়ারম্যানদের স্বাক্ষর জাল করে ভুয়া জন্মনিবন্ধন ও জাতীয় পরিচয়পত্র তৈরি করে আসছেন তিনি।

সম্প্রতি হবিগঞ্জ সদর উপজেলার ৫নং গোপায়া ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ড মেম্বার মোঃ আব্দুল হক-এর স্বাক্ষর জালিয়াতি করে হাতে-নাতে ধরা পড়েন সালেহ চৌধুরী।

পরে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল মন্নানের ম্ধ্যস্থতায় বিষয়টি সমঝোতায় আসে। গোপায়া ইউনিয়ন পরিষদের ৪নং ওয়ার্ড মেম্বার আব্দুল হক দৈনিক আমার হবিগঞ্জ’কে বলেন, ‘সালেহ চৌধুরী দীর্ঘদিন ধরে জাতীয় পরিচয়পত্র জালিয়াতি করে আসছে।

সম্প্রতি সে আমার স্বাক্ষর জাল করে ভুয়া পরিচয়পত্র তৈরি সময় হাতে নাতে ধরা পড়ে। পরে উপজেলা নির্বাচন অফিসারের মধ্যস্থতায় আমরা তাকে ছেড়ে দেই।

গোপায়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুল মান্নান জানান, বানিয়াচং ও আজমিরীগঞ্জ উপজেলার কিছু লোককে হবিগঞ্জ সদর উপজেলার গোপায়া ইউনিয়নের নাগরিকের পরিচয়ে জাতীয় পরিচয়পত্র বানাতে গিয়ে হাতেনাতে ধরা পরে এই সালেহ। পরে হবিগঞ্জ সদর উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা বিষয়টি দেখবেন বলে আশ্বাস দিয়ে ছাড়িয়ে নেন।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত সালেহ আহমেদ চৌধুরীর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি দৈনিক আমার হবিগঞ্জ’কে জানান, স্বাক্ষর জালিয়াতির ঘটনাটি তার দোকানের কর্মচারী সাইফুল ঘটিয়েছে। এখানে তার কোন হস্তক্ষেপ নেই।

হবিগঞ্জ সদর উপজেলা নির্বাচন অফিসার মুহাম্মদ মনিরুজ্জামান জানান, স্বাক্ষর জালিয়াতি ও ভুয়া তথ্য ব্যবহার করায় একজনকে আটক করা হয়েছিল। তবে সে অপ্রাপ্তবয়স্ক হওয়ায়  তাকে কয়েক ঘন্টা আটক রেখে ছেড়ে দিয়েছি।

Developed By The IT-Zone